• ঢাকা, বাংলাদেশ
  • বৃহস্পতিবার, ০২ এপ্রিল ২০২০, ১৯ চৈত্র ১৪২৬

উক্তি প্রতিদিন

“ক্ষুধাতুর শিশু চায় না স্বরাজ, চায় দুটো ভাত একটু নুন”

“ক্ষুধাতুর শিশু চায় না স্বরাজ, চায় দুটো ভাত একটু নুন”

জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম। ১৮৯৯ সালের ২৪ মে পশ্চিমবঙ্গের বর্ধমান জেলার চুরুলিয়া গ্রামে তিনি জন্মগ্রহণ করেন। তিনি বিদ্রোহী কবি নামে খ্যাত। ১৯৭৪ সালের ৯ ডিসেম্বর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কবিকে সম্মানসূচক ডি.লিট উপাধিতে ভূষিত করে। ১৯৭৬ সালের জানুয়ারি মাসে নজরুলকে বাংলাদেশ সরকার নাগরিকত্ব প্রদান করে। একই বছরে তাকে একুশে পদকে ভূষিত করা হয়। তিনি ১৯৭৬ সালের ২৯ আগস্ট বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়

‘অযথা তর্ক করা চরম বোকামি’

‘অযথা তর্ক করা চরম বোকামি’

চার্লস ল্যাম্ব, ইংরেজি সাহিত্যের রোমান্টিক যুগের নামকরা একজন লেখক। একাধারে তিনি লিখেছেন প্রবন্ধ, কবিতা, ফিকশন ও নাটক। এই চিন্তাশীল ও চিত্তাকর্ষক লেখক তার কর্মসমূহের মধ্য দিয়ে রোমান্টিক যুগটি পুরোপুরিই তুলে ধরেছেন। ১৭৭৫ সালের ১০ ফেব্রুয়ারি তিনি লন্ডনে জন্ম নেন। ল্যাম্ব পড়াশোনা করেন নিউগেট স্ট্রিটের ক্রাইস্ট’স হসপিটালে নামে একটি দাতব্য শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে।

‘সর্বাধিক  গৌরবমন্ডিত শিল্প হচ্ছে কৃষি’

‘সর্বাধিক গৌরবমন্ডিত শিল্প হচ্ছে কৃষি’

দার্শনিক ও স্বনামধন্য লেখক জাঁ জ্যাক রুশো ১৭১২ সালের ২৮ জুন সুইজারল্যান্ডের রাজধানী জেনেভায় জন্মগ্রহণ করেন। তবে জীবনের সিংহভাগ সময় তিনি ফ্রান্সে কাটিয়েছেন। তাঁর লেখালেখিও ফরাসি ভাষায়। রুশোর দর্শনের ভিত্তি ছিল রাজনীতি কেন্দ্রিক। মহান ফরাসি বিপ্লবে অনুপ্রেরণা যুগিয়েছে যাদের লেখা, জাঁ জ্যাক রুশো তাদের অন্যতম।

“যারা সত্য কথা বলেন তারা সবার চক্ষুশূল”

“যারা সত্য কথা বলেন তারা সবার চক্ষুশূল”

বিশ্ববিখ্যাত গ্রিক দার্শনিক প্লেটো। ৪২৭ খ্রিস্টপূর্বাব্দে গ্রিসের এথেন্সে তিনি জন্মগ্রহণ করেন। প্লেটো ছিলেন দার্শনিক সক্রেটিসের ছাত্র এবং দার্শনিক এরিস্টটলের শিক্ষক। প্লেটো একাধারে গণিতজ্ঞ এবং দার্শনিক ভাষ্যের রচয়িতা হিসেবে খ্যাত। তিনিই পশ্চিমা বিশ্বে উচ্চ শিক্ষার প্রথম প্রতিষ্ঠান গড়ে তোলেন। এটি ছিল এথেন্সের আকাদেমি।

‍“আবেগের সঙ্গে ছন্দের সংমিশ্রণেই  কাব্যের উৎপত্তি”

‍“আবেগের সঙ্গে ছন্দের সংমিশ্রণেই কাব্যের উৎপত্তি”

‘গুণবানকে আশ্রয় দিলে নির্গুণও গুণী হয়’

‘গুণবানকে আশ্রয় দিলে নির্গুণও গুণী হয়’

ইতিহাসে যে কজন প্রাচীন পণ্ডিত অমর হয়ে আছেন, তাদের মধ্যে অন্যতম হলেন চাণক্য (খ্রিস্টপূর্ব ৩৭০-২৮৩ অব্দ)। এই উপমহাদেশ তো বটেই সারা বিশ্বে তাকে অন্যতম প্রাচীন ও বাস্তববাদী পণ্ডিত মনে করা হয়। তাকে কৌটিল্য বা বিষ্ণুগুপ্ত নামেও অভিহিত করা হয়।