• ঢাকা, বাংলাদেশ
  • শনিবার, ১১ এপ্রিল ২০২০, ২৭ চৈত্র ১৪২৬

চট্টগ্রাম বন্দর কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যানকে হাইকোর্টে তলব

চট্টগ্রাম বন্দর কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যানকে হাইকোর্টে তলব

ছবি সংগৃহীত

নিজস্ব প্রতিবেদক০৫ জানুয়ারি ২০২০, ০২:৫৫পিএম, ঢাকা-বাংলাদেশ।

আদালতের আদেশ যথাযথভাবে পালন না করায় চট্টগ্রাম বন্দর কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যানকে তলব করেছেন হাইকোর্ট।

রোববার হাইকোর্টের বিচারপতি মইনুল ইসলাম চৌধুরী ও বিচারপতি খন্দকার দিলীরুজ্জামানের সমন্বয়ে গঠিত বেঞ্চ এই আদেশ দেন। আগামী ২৬ জানুয়ারি আদালতে হাজির হয়ে তাকে এ বিষয়ে ব্যাখ্যা দিতে বলা হয়েছে।

আদালতে আবেদনের পক্ষে শুনানি করেন আইনজীবী মনজিল মোরসেদ। আর বন্দর কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যানের পক্ষে ছিলেন আইনজীবী কে এস সালাউদ্দিন আহমেদ।

শুনানি শেষে আইনজীবী মনজিল মোরসেদ সাংবাদিকদের জানান, আদালতের আদেশ অনুযায়ী কর্ণফুলী নদীর তীরে অবৈধ স্থাপনা কেন উচ্ছেদ করা হয়নি, আদালতে হাজির হয়ে তার ব্যাখ্যা দিতে বলেছেন হাইকোর্ট। একই সঙ্গে, আগামী ২৬ জানুয়ারির আগে অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদেরও নির্দেশ দিয়েছেন আদালত।

তিনি আরও জানান, এর আগে কর্ণফুলী নদীর তীরে অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদের নির্দেশ দেন আদালত। পরে জেলা প্রশাসন থেকে কিছু অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ করা হয়। পরবর্তীতে কিছু অবৈধ স্থাপনা বন্দর এলাকার মধ্যে থাকায় সেটি আর উচ্ছেদ করা হয়নি। পরে আদালতে ফের আবেদন করা হলে আদালতের নির্দেশে আংশিক উচ্ছেদ করা হয়। এরপর আবার আবেদন করা হলে আদালত বন্দর কর্তৃপক্ষকে তিন মাস সময় দেন। তিন মাস সময় পার হয়ে গেলেও অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ না করে ফের সময় আবেদন করায় বন্দরের চেয়ারম্যানকে তলব করে আদেশ দেন আদালত।

আদেশে আদালত বলেছেন, ইদানীং দেখা যায়, অনেক কর্মকর্তারাই আদালতের আদেশ বাস্তবায়নে অনীহা দেখাচ্ছেন।

চলতি বছরের ৯ এপ্রিল কর্ণফুলী নদীর পাড়ে চট্টগ্রাম বন্দরের পাশে অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ করে ৩০ দিনের মধ্যে আদালতে প্রতিবেদন দাখিল করতে নির্দেশ দেন হাইকোর্ট। চট্টগ্রাম বন্দর কর্তৃপক্ষ ও বন্দরের চেয়ারম্যানকে এ নির্দেশ দেন আদালত।

এর আগে ২০১০ সালে গণমাধ্যমে কর্ণফুলী নদীর তীরে অবৈধ দখল সংক্রান্ত খবর প্রকাশিত হয়। ওই খবরযুক্ত করে হিউম্যান রাইটস অ্যান্ড পিস ফর বাংলাদেশ জনস্বার্থে হাইকোর্টে রিট করে। ওই রিটের চূড়ান্ত শুনানি শেষে ২০১৬ সালের ১৬ আগস্ট আদালত কর্ণফুলী নদীর তীরে থাকা ২ হাজার ১৮৭টি অবৈধ স্থাপনা সরানোর পাশাপাশি রায়ে ১১ দফা নির্দেশনা দেন।

 

টাইমস/এইচইউ

ইতালিতে করোনায় প্রাণ হারালেন ১০০ চিকিৎসক

ইতালিতে করোনায় প্রাণ হারালেন ১০০ চিকিৎসক

মহামারী করোনাভাইরাসের ভয়াল থাবায় ইতালি যেন মৃত্যুপুরী। এখনো থামছেনা মৃত্যুর

সন্ধ্যা ৬টার পর ঘরের বাইরে যাওয়া নিষিদ্ধ

সন্ধ্যা ৬টার পর ঘরের বাইরে যাওয়া নিষিদ্ধ

দেশব্যাপী করোনাভাইরাসের সংক্রমণ রোধে সন্ধ্যা ৬টার পর নাগরিকদের ঘরের বাইরে

করোনায় প্রাণ গেল আরও ৬ জনের

করোনায় প্রাণ গেল আরও ৬ জনের

দেশে গত ২৪ ঘন্টায় প্রাণঘাতী করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে ৬ জনের

জাতীয়

সাধারণ ছুটি বাড়ল ২৫ এপ্রিল পর্যন্ত

সাধারণ ছুটি বাড়ল ২৫ এপ্রিল পর্যন্ত

মহামারী করোনাভাইরাসের সংক্রমণ রোধে সরকার ঘোষিত সাধারণ ছুটি ২৫ এপ্রিল পর্যন্ত বাড়ানো হয়েছে। শুক্রবারের ঘোষণার মধ্য দিয়ে চতুর্থ দফায় সাধারণ ছুটি বাড়ানো হলো। এর আগে প্রধানমন্ত্রী কার্যালয়ের মুখ্য সচিব আমহদ কায়কাউস সাধারণ ছুটি বাড়ার ইঙ্গিত দিয়েছিলেন।

জাতীয়

সিঙ্গাপুরে আরও ১১৬ বাংলাদেশী করোনায় আক্রান্ত

সিঙ্গাপুরে আরও ১১৬ বাংলাদেশী করোনায় আক্রান্ত

সিঙ্গাপুরে গত ২৪ ঘন্টায় ১১৬ প্রবাসী বাংলাদেশীসহ মোট ২৮৭ জন করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন। এ নিয়ে দেশটিতে এখন পর্যন্ত করোনায় আক্রান্তের বাংলাদেশী প্রবাসীদের সংখ্যা গিয়ে দাড়াল ৩৬০ জনে। সিঙ্গাপুরের স্বাস্থ্য বিভাগ বিষয়টি নিশ্চিত করেছে।

জাতীয়

করোনা : রাজধানীর মিরপুরে দুটি আবাসিক ভবন লকডাউন

করোনা : রাজধানীর মিরপুরে দুটি আবাসিক ভবন লকডাউন

প্রাণঘাতী করোনাভাইরাসের সংক্রমণ ঠেকাতে রাজধানীর মিরপুরে আরও দুটি আবাসিক ভবন লকডাউন করা হয়েছে। ঢাকা মহানগর পুলিশ (ডিএমপি) সূত্রে এ ব্যাপারে নিশ্চিত হওয়া গেছে।

জাতীয়

রাজধানীতে আরও দুই সাংবাদিক করোনায় আক্রান্ত

রাজধানীতে আরও দুই সাংবাদিক করোনায় আক্রান্ত

রাজধানী ঢাকায় আরও দুইজন সাংবাদিক করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন। এর আগে বেসরকারি স্যাটেলাইট চ্যানেল ইন্ডিপেন্ডেন্ট টেলিভিশনের এক সংবাদকর্মী করোনায় আক্রান্ত হন। এ নিয়ে এখন পর্যন্ত দেশে তিনজন সংবাদকর্মী প্রাণঘাতী এ ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন।

স্বাস্থ্য

করোনাভাইরাস : অ্যাজমা রোগীদের যা জানা প্রয়োজন

করোনাভাইরাস : অ্যাজমা রোগীদের যা জানা প্রয়োজন

নোভেল করোনাভাইরাসের ফলে সৃষ্ট কোভিড-১৯ রোগটির অন্যতম প্রধান উপসর্গ হলো- কফ ও শ্বাসকষ্ট। সাধারণ ঠাণ্ডা বা ইনফ্লুয়েঞ্জার মতোই কোভিড-১৯ আক্রান্ত ব্যক্তির শ্বাসযন্ত্রে সংক্রমণ ঘটায়, শ্বাসকষ্ট দেখা দেয় এবং অনেক সময় কৃত্রিম শ্বাসপ্রশ্বাস গ্রহণের প্রয়োজন পড়ে। ফলে যাদের অ্যাজমা বা শ্বাসকষ্টের সমস্যা রয়েছে, রোগটি তাদের জন্য মারাত্মক হুমকি হয়ে উঠতে পারে। বিভিন্ন গবেষণা বলছে, যাদের ডায়াবেটিস, উচ্চ রক্তচাপ কিংবা অ্যাজমার মতো দুরারোগ্য ব্যাধি রয়েছে, কোভিড-১৯তে আক্রান্ত হলে তাদের ঝুঁকি অন্যদের তুলনায় বেশি। তবে রোগটি অ্যাজমা রোগীদেরকে কিভাবে প্রভাবিত করবে কিংবা আক্রান্ত হওয়ার ঝুঁকি বাড়ায় কিনা, সে বিষয়ে সুনির্দিষ্ট তথ্য এখনো পাওয়া যায়নি।

বিনোদন

প্রবাসীদের পাশে দাঁড়ালেন সুজানা, দিলেন ১৫ দিনের খাবার!

প্রবাসীদের পাশে দাঁড়ালেন সুজানা, দিলেন ১৫ দিনের খাবার!

মডেল অভিনেত্রী সুজানা জাফর। প্রাণঘাতী করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাবে সংযুক্ত আরব আমিরাতে আটকা পড়েছেন তিনি। পরিস্থিতি যখন স্বাভাবিক ছিল তখন সেখানে গিয়েছিলেন সুজানা, পরে আর ফিরতে পারেননি তিনি।