বিমানবন্দরে করোনা পরীক্ষার সুযোগ মিলেছে, কিন্তু দুর্ভোগ কী আছে?

শাহাজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে ছয় ঘণ্টা আগে করোনা পরীক্ষা করার শর্ত থাকলেও যাত্রীদের আসতে হচ্ছে কমপক্ষে আট থেকে নয় ঘণ্টা আগে, এতে ভোগান্তিতে পড়তে হচ্ছে যাত্রীদের।

আমিরাতের শর্ত মেনে যাত্রার ৪৮ ঘণ্টার মধ্যে করোনা পরীক্ষা করা হচ্ছে। ফলাফল নেগেটিভ এলে বিমানবন্দরে এসে বিমানে উঠার ছয় ঘণ্টা আগে করোনা পরীক্ষা করা হচ্ছে। তাতে করোনা নেগেটিভ এলে তবেই বিমানে চড়ার সুযোগ মিলছে। 

আমিরাতগামী যাত্রীদের করোনা পরীক্ষায় গত ১৬ সেপ্টেম্বর বিমানবন্দরে স্থাপিত হয় ছয়টি ল্যাব। নানা টানাপোড়েন ও আমলাতান্ত্রিক জটিলতার পর ৩০ সেপ্টেম্বর থেকে টেস্ট শুরু হয়েছে।

১২টি মেশিনে দিনে গড়ে আড়াই হাজার যাত্রীর করোনা পরীক্ষা করছেন। ১২টি মেশিনে চার ঘণ্টায় এক হাজার ২০০ নমুনা পরীক্ষা করা যায়। কোনো ল্যাবেই র‌্যাপিড টেস্ট সুবিধা নেই। পিসিআর টেস্ট করা হয়, যাতে ফল পেতে তিন থেকে চার ঘণ্টা লাগে।

র‌্যাপিড টেস্টে ঘণ্টাখানেক সময় লাগে। ভারত, পাকিস্তানসহ বাকি দেশগুলো আমিরাতের শর্ত পূরণে বিমানবন্দরে র‌্যাপিড সুবিধা চালু করেছে। শাহজালালে র‌্যাপিড টেস্ট সুবিধা কিংবা ল্যাবে মেশিন সংখ্যা বাড়লে অপেক্ষার ভোগান্তি কম হতো বলে মনে করছেন অনেকে।

Share this news on: