• ঢাকা, বাংলাদেশ
  • রোববার, ২১ এপ্রিল ২০১৯, ৮ বৈশাখ ১৪২৬

প্রবীণদের চোখে পহেলা বৈশাখ

প্রবীণদের চোখে পহেলা বৈশাখ

তানভীর রায়হান১৩ এপ্রিল ২০১৯, ১০:২৬পিএম, ঢাকা-বাংলাদেশ।

বাংলা নববর্ষকে বরণ করতে সারা বাংলা প্রস্তুত। এই উৎসবকে ঘিরে কয়েক দশক ধরেই পান্তা-ইলিশ নিয়ে একটা হইচই পড়ে যায়। তবে বিংশ শতাব্দীর শেষ দশকের আগে এই সংস্কৃতির প্রচলন ছিল না। প্রবীণরা বলছেন, আধুনিককালের কিছু মানুষ পান্তা-ইলিশের রীতি চালু করেছে।

তারা জানান, আগে পহেলা বৈশাখ উদযাপন করা হতো খুব অল্প পরিসরে। সেসময়ে পান্তা ইলিশ খাওয়া হতো না। এই সংস্কৃতি চালু হয়েছে ১৯৯০ সালের পর।

ঢাকা শহরে বিভিন্ন প্রান্তের ছয়জন প্রবীণের সাথে কথা বলেছে বাংলাদেশ টাইমস। তাদের কাছে প্রশ্ন ছিল, ১৯৭০ থেকে ১৯৮০ সাল পর্যন্ত তাদের বৈশাখ উদযাপন কেমন ছিল? সেসময় খাবারের ধরনই বা কেমন ছিল?

এ বিষয়ে উত্তর-পশ্চিম যাত্রাবাড়ীর স্থানীয় এক বাড়িওয়ালী সাবিহা বেগম বলেন, আমার আব্বা ও আম্মা পহেলা বৈশাখে ফলমূল নিয়ে আসতো; তা আমরা খেতাম। পোলাও পাক করতাম। কারো বাড়িতে আমরা ওইদিন যেতাম না। আর পান্তা ইলিশের যে রীতি এখন বের হয়েছে তা আগে ছিল না। এছাড়াও গোস্ত, মুরগি খেতাম। ভালো ভালো খাবার খেতাম। যাতে বছরের সবদিনই ভালো খাবার খেতে পারি। আর তখন এখনকার মতো এতো আয়োজন হতো না।

গেন্ডারিয়ার স্থানীয় বাসিন্দা এম এ আওয়াল পহেলা বৈশাখের স্মৃতিচারণ করতে গিয়ে বলেন, এসব বলতে গেলে আমাদের অনেক অতীতে যেতে হয়। তখন পহেলা বৈশাখে পান্তা-ইলিশের প্রচলন ছিল না। বর্ষবরণের দিন স্বাভাবিক খাবার খাওয়া হতো। তখন অনেক ছিল ইলিশ। আর এখন তো ইলিশের দামও বেশি। অদূর ভবিষ্যতে এই প্রথাও থাকবে কিনা জানি না।

তিনি বলেন, আমাদের সময় পহেলা বৈশাখে বাচ্চাদের নিয়ে মেলায় যেতাম। বন্ধু-বান্ধব, আত্মীয় স্বজন বেড়াতে আসতো।

পুরান ঢাকার নারিন্দার স্থায়ী বাসিন্দা মো. মজিবুর রহমান বলেন, পহেলা বৈশাখ ছিল ব্যবসায়ীদের হালখাতার উৎসব। সেসময় আমরা আত্মীয়দের নিয়ে পোলাও-কোরমা খেতাম। পান্তা-ইলিশ ছিল না। বর্তমানে পান্তা-ইলিশটাকে ব্যবসায় রুপান্তর করা হয়েছে।

রাজধানীর সায়েদাবাদের মোটরসাইকেল গ্যারেজে কাজ করেন সেলিম। তিনি বলেন, আমরা মুসলিম পরিবারের মানুষ। সেসময় আমাদের মেলাতেও যেতে দিতো না। এখনকার ছেলেমেয়েরা যেভাবে ফুর্তি করে তা আমাদের সময়ে ছিল না। এটা এসেছে সম্রাট আকবর থেকে। পান্তা-ইলিশ তো নব্বই এর আগে চোখেও দেখিনি।

ইতিহাস থেকে জানা গেছে, খাজনা আদায়ে সুষ্ঠুতার জন্য মুঘল সম্রাট আকবর বাংলা সনের প্রবর্তন করেন। তিনি মূলত প্রাচীন বর্ষপঞ্জিতে সংস্কার আনার আদেশ দেন। সম্রাটের আদেশ মতে তৎকালীন বাংলার বিখ্যাত জ্যোতির্বিজ্ঞানী ও চিন্তাবিদ ফতেহউল্লাহ সিরাজি সৌর সন এবং আরবি হিজরি সনের ওপর ভিত্তি করে নতুন বাংলা সনের নিয়ম বিনির্মাণ করেন।

১৫৮৪ খ্রিস্টাব্দের ১০ মার্চ বা ১১ মার্চ থেকে বাংলা সন গণনা শুরু হয়। তবে এই গণনা পদ্ধতি কার্যকর করা হয় আকবরের সিংহাসন আরোহণের সময় (৫ই নভেম্বর, ১৫৫৬) থেকে। প্রথমে এই সনের নাম ছিল ফসলি সন, পরে ‘বঙ্গাব্দ’ বা বাংলা বর্ষ নামে পরিচিত হয়।

আকবরের সময়কাল থেকেই পহেলা বৈশাখ উদযাপন শুরু হয়। তখন প্রত্যেককে বাংলা চৈত্র মাসের শেষ দিনের মধ্যে সকল খাজনা, মাশুল ও শুল্ক পরিশোধ করতে বাধ্য থাকত।

পহেলা বৈশাখে ভূমির মালিকরা নিজ নিজ অঞ্চলের অধিবাসীদেরকে মিষ্টান্ন দ্বারা আপ্যায়ন করতেন। এ উপলক্ষে বিভিন্ন উৎসবের আয়োজন করা হত। তখনকার সময় এই দিনের প্রধান ঘটনা ছিল একটি হালখাতা তৈরি করা। হালখাতা বলতে একটি নতুন হিসাব বই বোঝানো হয়েছে।

 

টাইমস/টিআর/জেডটি

শ্রীলঙ্কায় গির্জা ও হোটেলে সিরিজ বোমা হামলা, নিহত দেড় শতাধিক

শ্রীলঙ্কায় গির্জা ও হোটেলে সিরিজ বোমা হামলা, নিহত দেড় শতাধিক

শ্রীলঙ্কায় খ্রিস্টান ধর্মাবলম্বীদের ইস্টার সানডের প্রার্থনার সময় রাজধানীসহ বিভিন্ন স্থানে অনন্ত তিনটি গির্জা ও তিনটি অভিজাত হোটেলে সিরিজ বোমা বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটেছে। রোববার সকালের এ ঘটনায় নিহতের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ১৫৬ জনে। তাদের মধ্যে ৩৫ জন বিদেশি রয়েছে। এছাড়া চার শতাধিক আহত হয়েছেন বলে হাসপাতাল ও পুলিশের বরাতে জানিয়েছে বার্তা সংস্থা রয়টার্স।

শ্রীলঙ্কায় নুতন করে আরও একটি হোটেলে বিস্ফোরণ, দুইজন নিহত   

শ্রীলঙ্কায় নুতন করে আরও একটি হোটেলে বিস্ফোরণ, দুইজন নিহত  

শ্রীলঙ্কার রাজধানী কলম্বোতে নতুন করে আরেকটি হোটেলে বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটেছে। রোববারের এ বিস্ফোরণে দুইজন নিহত হয়েছেন। পুলিশের একজন মুখপাত্রের বরাত দিয়ে বার্তা সংস্থা এএফপির এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

শ্রীলঙ্কায় বিস্ফোরণের পর থেকে দুই বাংলাদেশি নিখোঁজ

শ্রীলঙ্কায় বিস্ফোরণের পর থেকে দুই বাংলাদেশি নিখোঁজ

শ্রীলঙ্কায় বিস্ফোরণের ঘটনার পর থেকে দুই বাংলাদেশি নিখোঁজ রয়েছেন বলে জানিয়েছেন পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী মো. শাহরিয়ার আলম। নিখোঁজ দুই বাংলাদেশির মধ্যে একজন প্রাপ্তবয়স্ক, অন্যজন শিশু। চার সদস্যর পরিবারটি শ্রীলঙ্কার বেড়াতে গিয়েছিল বলে জানান তিনি।

জাতীয়

প্রখ্যাত সাংবাদিক মাহফুজ উল্লাহ আর নেই

প্রখ্যাত সাংবাদিক মাহফুজ উল্লাহ আর নেই

দেশের প্রখ্যাত সাংবাদিক মাহফুজ উল্লাহ আর নেই। (ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন)। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ৬৯ বছর। রোববার ব্যাংককের একটি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন। তার মৃত্যুর খবর ব্যাংককে বাবার সঙ্গে অবস্থানরত তার বড় মেয়ে ডা. মেঘলা গণমাধ্যমে নিশ্চিত করেছেন।

জাতীয়

শ্রীলঙ্কায় বোমা হামলার ঘটনায় প্রেসিডেন্ট ও প্রধানমন্ত্রীর নিন্দা

শ্রীলঙ্কায় বোমা হামলার ঘটনায় প্রেসিডেন্ট ও প্রধানমন্ত্রীর নিন্দা

শ্রীলঙ্কার রাজধানী কলম্বোতে গীর্জা ও হোটেলে ভয়াবহ সিরিজ বোমা হামলার ঘটনায় তীব্র নিন্দা ও শোক জানিয়েছেন প্রেসিডেন্ট আব্দুল হামিদ ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। পৃথক বার্তায় তারা এ হামলার নিন্দা জানিয়েছেন।

জাতীয়

শ্রীলঙ্কায় বাংলাদেশিরা নিরাপদে আছেন: বাংলাদেশ হাইকমিশন   

শ্রীলঙ্কায় বাংলাদেশিরা নিরাপদে আছেন: বাংলাদেশ হাইকমিশন  

শ্রীলঙ্কায় সিরিজ বোমা বিস্ফোরণের ঘটনায় বাংলাদেশিরা নিরাপদে আছেন বলে জানিয়েছেন শ্রীলঙ্কায় নিযুক্ত বাংলাদেশের হাইকমিশনার রিয়াজ হামিদুল্লাহ। তিনি জানিয়েছেন, শ্রীলঙ্কায় সিরিজ বোমা বিস্ফোরণে এখন পর্যন্ত কোনও বাংলাদেশি হতাহতের খবর পাওয়া যায়নি। শ্রীলঙ্কায় বাংলাদেশের মিশন সেখানে থাকা বাংলাদেশি পরিবারের সঙ্গে যোগাযোগ করছে। মিশনে একটি হটলাইন খোলা হয়েছে যাতে করে যে কেউ যোগাযোগ করতে পারে।

জাতীয়

টেকনাফে বন্দুকযুদ্ধে মাদক ব্যবসায়ী নিহত

টেকনাফে বন্দুকযুদ্ধে মাদক ব্যবসায়ী নিহত

কক্সবাজারের টেকনাফের মেরিন ড্রাইভে র‌্যাবের সঙ্গে বন্দুকযুদ্ধে মহিউদ্দিন (৩৫) নামে এক ব্যক্তি নিহত হয়েছেন। রোববার ভোর ৪টার দিকে মেরিন ড্রাইভ সড়কের জব্বার মুন্সির হ্যাচারীর পাশে এ বন্দুকযুদ্ধের ঘটনা ঘটে। কক্সবাজার র‌্যাব-১৫ এর উপ-অধিনায়ক মেজর মোহাম্মদ রবিউল ইসলাম ঘটনাটি নিশ্চিত করছেন।

ভ্রমণ

চট্টগ্রামের খেজুরতলা বীচ

চট্টগ্রামের খেজুরতলা বীচ

অজস্র আকর্ষণীয় পর্যটন নিদর্শনে ভরপুর পাহাড় কন্যা চট্টগ্রাম। পাহাড়, সাগর, আঁকাবাঁকা পাহাড়ি সড়ক, বন্যপ্রাণীর অভয়ারণ্য, ঝাউবন, ঝুলন্ত সেতু, সমুদ্রবন্দর- কি নেই এখানে। চট্টগ্রামের অন্যতম আকর্ষণ হল এর অনিন্দ্য সুন্দর সমুদ্র সৈকতগুলো। এখানে যে কয়টি সুন্দর সৈকত আছে তার মধ্যে সৌন্দর্যের দিক থেকে খেজুরতলা বীচ অনেকটা এগিয়ে।

বিনোদন

পেশাদার খুনি থেকে ‘প্রেমিক’ সজল

পেশাদার খুনি থেকে ‘প্রেমিক’ সজল

আব্দুন নূর সজল। বাংলা নাটকের বেশ চ্যালেঞ্জিং চরিত্রের একজন তারকা। গেলো দুই বছর ধরে বেছে বেছে চ্যালেঞ্জিং চরিত্রে অভিনয় করছেন তিনি। এর আগে, বেশী সময় তাকে রোম্যান্টিক চরিত্রে পাওয়া গেলেও এখন গল্প বাছাইয়ের ক্ষেত্রে বেশ মনোযোগী হয়েছেন এই অভিনেতা।