• ঢাকা, বাংলাদেশ
  • শুক্রবার, ১৯ এপ্রিল ২০১৯, ৬ বৈশাখ ১৪২৬

নুসরাত হত্যার দোষ স্বীকার করে নূর ও শামীমের জবানবন্দি

নুসরাত হত্যার দোষ স্বীকার করে নূর ও শামীমের জবানবন্দি

নিজস্ব প্রতিবেদক১৫ এপ্রিল ২০১৯, ০২:২৬পিএম, ঢাকা-বাংলাদেশ।

মাদ্রাসাছাত্রী নুসরাত জাহান রাফিকে আগুনে পুড়িয়ে হত্যায় ‘সরাসরি জড়িত থাকার কথা স্বীকার করে’ ফেনীর  আদালতে জবানবন্দি দিয়েছেন এজাহারভুক্ত দুই আসামি নূর উদ্দিন ও শাহাদাত হোসেন শামীম।

পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশনের (পিবিআই) অতিরিক্ত পুলিশ সুপার তাহেরুল হক চৌহান জানান, নূর ও শামীমকে ফেনীর জ্যেষ্ঠ বিচারিক হাকিম জাকির হোসাইনের খাস কামরায় হাজির করা হয় রোববার বিকাল ৩টায়। এরপর তাদের জবানবন্দি গ্রহণ শুরু করেন বিচারক, তা চলে রাত ১টা পর্যন্ত। ১৬৪ ধারায় জবানবন্দি দেন এই দুই আসামি।

তাহেরুল হক চৌহান বলেন, ‘আদালত দীর্ঘ সময় ধরে তাদের জবানবন্দি পরীক্ষা-নিরীক্ষা ও জিজ্ঞাসাবাদ করে। আসামি দুজন আদালতের কাছে তাদের স্বীকারোক্তি উপস্থাপন করেন।’

সেখানে তারা পুরো ঘটনা স্পষ্ট করেছেন জানিয়ে এই পুলিশ কর্মকর্তা বলেন, ‘তারা কারাগারে থাকা মাদ্রাসার অধ্যক্ষ সিরাজ উদ দৌলার কাছ থেকে হুকুম পেয়ে হত্যাকাণ্ডটি ঘটিয়েছে। এ সময় তাদের সাথে কারা ছিল, কীভাবে ঘটনাটি ঘটিয়েছে, বিষয়গুলো জবানবন্দিতে এসেছে। তবে তদন্তের স্বার্থে তা এখনই গণমাধ্যমকে জানানো হচ্ছে না।’

সিরাজ উদ দৌলার নির্দেশেই নুসরাত হত্যা: পুলিশ

সোনাগাজীর ইসলামিয়া সিনিয়র ফাজিল মাদ্রাসার অধ্যক্ষ সিরাজ উদ দৌলার বিরুদ্ধে যৌন নিপীড়নের অভিযোগ এনেছিলেন নুসরাত। গত ২৬ মার্চ নুসরাতের মা শিরীনা আক্তার মামলা করার পরদিন সিরাজকে গ্রেপ্তার করেছিল পুলিশ।

ওই মামলা প্রত্যাহার না করায় ৬ এপ্রিল আলিম পরীক্ষার হল থেকে ছাদে ডেকে নিয়ে নুসরাতের গায়ে আগুন দেয় বোরখা পরা চারজন। আগুনে শরীরের ৮৫ শতাংশ পুড়ে যাওয়া নুসরাত ১০ এপ্রিল রাতে মারা যান।

দুই বছর আগে দাখিল পরীক্ষার সময়ও আক্রান্ত হয়েছিলেন নুসরাত। তখন তার চোখে দাহ্য পদার্থ ছুড়ে মারা হয়েছিল। ওই ঘটনাতেও অধ্যক্ষ সিরাজ উদ দৌলার ‘ঘনিষ্ঠ’ নূর উদ্দিনকে সন্দেহ করা হয়।

‘নুসরাতের অভিযোগের ব্যবস্থা নিলে এমন পরিণতি হত না’

ফেনীর সোনাগাজীর উত্তর চর চান্দিয়া গ্রামের নূর উদ্দিনকে শুক্রবার ময়মনসিংহের ভালুকা থেকে গ্রেপ্তার করে পিবিআই। আর শাহাদাত হোসেন শামীমকে শুক্রবার সকালে ময়মনসিংহের মুক্তাগাছা থেকে গ্রেপ্তার করা হয়।

ধানমন্ডিতে শনিবার এক সংবাদ সম্মেলনে পিবিআইয়ের ডিআইজি বনজ কুমার মজুমদার বলেন, নুসরাতের গায়ে আগুন দেওয়ার ঘটনায় মোট ১৩ জন জড়িত ছিলেন, যাদের মধ্যে অন্তত দুজন ছাত্রী। তাদের একজন অধ্যক্ষের ভাগ্নি উম্মে সুলতানা পপি।

আর মাদ্রাসার ছাদে নুসরাতের গায়ে কেরোসিন ঢেলে আগুন দেয়ার সময় বোরকা পরা যে চারজন ছিলেন, তাদের একজন শামীম বলে নিশ্চিত হয়েছেন তদন্ত কর্মকর্তারা।

থানায় নুসরাতের কান্নার ভিডিও ভাইরাল

শামীম এক সময় প্রেমের প্রস্তাব দিয়েছিলেন নুসরাতকে, কিন্তু নুসরাত সেই প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করেছিলেন বলে জানান বনজ কুমার।

বনজ কুমার মজুমদার বলেন, ‘তারা দুটি কারণে নুসরাতকে পুড়িয়ে মারার পরিকল্পনা করে। এর একটি হচ্ছে অধ্যক্ষ সিরাজ উদ দৌলার বিরুদ্ধে মামলা করে আলেম সমাজকে হেয় করা। আর অপরটি হচ্ছে শাহাদত হোসেন শামীমের প্রেমের প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করা।’

পিবিআইয়ের ভাষ্য, নূর উদ্দিনসহ কয়েকজন সিরাজ উদ দৌলার সঙ্গে কারাগারে দেখা করে নির্দেশ নিয়ে আসেন। ৫ এপ্রিল সকাল ৯ টা থেকে সাড়ে নয়টার দিকে মাদ্রাসার কাছে থাকা হোস্টেলের পশ্চিম অংশে তার মূল পরিকল্পনা করেন। সেখানেই নুসরাতকে পুড়িয়ে মারার সিদ্ধান্ত নেন তারা। অধ্যক্ষকে আটক করায় আলেম সমাজকে হেয় করা হয়েছে বলে মনে করেন তারা। এই হেয় করা ও প্রেমের প্রস্তাব প্রত্যাখ্যানের ক্ষোভ থেকে নুসরাতকে পুড়িয়ে মারার সিদ্ধান্ত নেন। এ ঘটনায় দুজন মাদ্রাসা ছাত্রী ও তিনজন ছাত্র জড়িত। এদের একজন মাদ্রাসা সংলগ্ন সাইক্লোন সেন্টারে তিনটি বোরকা ও কেরোসিন শাহাদাতকে দিয়েছেন। পরে দুজন ছাত্র ও দুজন ছাত্রী বোরকা পরে সাইক্লোন সেন্টারের টয়লেটে লুকিয়ে ছিলেন। তারাই নুসরাতের শরীরে আগুন লাগিয়েছেন।

 

 

টাইমস/এসআই

 

বগুড়ার শীর্ষ সন্ত্রাসী স্বর্গ  'গোলাগুলিতে' নিহত

বগুড়ার শীর্ষ সন্ত্রাসী স্বর্গ 'গোলাগুলিতে' নিহত

বগুড়া শহরে শীর্ষ সন্ত্রাসী রাফিদ আনাম ওরফে স্বর্গ কথিত গোলাগুলিতে নিহত হয়েছেন। বৃহস্পতিবার দিবাগত রাত দেড়টার দিকে উপশহরের ধুন্দাল সেতু এলাকায় নামাজগড়-ধরমপুর সড়কে দুই দল সন্ত্রাসীর ‘গোলাগুলিতে’ রাফিদ আনাম (২৫)  নিহত হয় বলে পুলিশের ভাষ্য। রাফিদ নিহত হওয়ার ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন বগুড়া সদর সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার সনাতন চক্রবর্তী।

নুসরাত হত্যায় স্থানীয় রাজনীতি প্রভাব রেখেছে: ডিআইজি

নুসরাত হত্যায় স্থানীয় রাজনীতি প্রভাব রেখেছে: ডিআইজি

স্থানীয় রাজনীতি প্রভাব রেখেছে ফেনীর সোনাগাজীর মাদ্রাসাছাত্রী নুসরাত জাহান রাফিকে পুড়িয়ে হত্যার ঘটনায়। পুলিশের গাফিলতি তদন্তে গঠিত কমিটির প্রধান ডিআইজি এস এম রুহুল আমিন এমন দাবি করেছেন।

অপুর অপেক্ষা...

অপুর অপেক্ষা...

ঢাকাই চলচ্চিত্র জনপ্রিয় নায়িকা অপু বিশ্বাস। এই নায়িকাকে চেনেন না এমন মানুষ নেই বললে চলে। মূলত দর্শকের ভালোবাসায় তিনি এই পরিচিতি পেয়েছেন। গেল দুয়েক বছর আগেও ঢালিউডে ব্যবসাসফল ছবির তুলনাহীন নায়িকা ছিলেন অপু বিশ্বাস। ওই সময় একের পর এক ছবিতে দেখা মিলত তার। তবে অনেকদিন ধরে নিজেকে আড়াল করে রেখেছেন অপু বিশ্বাস।

আন্তর্জাতিক

ফেরদৌসের পর গাজি নূরকে ভারত ত্যাগের নির্দেশ

ফেরদৌসের পর গাজি নূরকে ভারত ত্যাগের নির্দেশ

লোকসভা নির্বাচনে একটি দলের প্রচারে যোগ দেয়ার জেরে তার ভিসা বাতিল করে বাংলাদেশি অভিনেতা গাজী আবদুন নূরকে অবিলম্বে দেশত্যাগের নির্দেশ দিয়েছে ভারতের স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়। বৃহস্পতিবারই দেশে ফিরে যেতে হবে ওই বাংলাদেশি অভিনেতাকে।

রাজনীতি

সবকিছুই চলছে অবলীলায়, কোনো জবাবদিহি নেই: ফখরুল

সবকিছুই চলছে অবলীলায়, কোনো জবাবদিহি নেই: ফখরুল

বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন,বর্তমানে দেশে আইনের শাসন নেই, ন্যায়বিচার নেই, মানবাধিকার নেই, ইনসাফ নেই। সবকিছুই চলছে অবলীলায়। কোনো জবাবদিহি নেই। বগুড়ায় দুর্বৃত্তদের হামলায় নিহত বিএনপির নেতা মাহবুব আলম শাহীনের বাসার সামনে ধরমপুর এলাকায় সংক্ষিপ্ত সমাবেশে এই মন্তব্য করেন মির্জা ফখরুল।

জাতীয়

আবার হাঁটছেন রাসেল

আবার হাঁটছেন রাসেল

গ্রিনলাইনের বাসের চাপায় পা হারানো রাসেল সরকারের কৃত্রিম পা সাভারে অবস্থিত পক্ষাঘাতগ্রস্তদের পুনর্বাসন কেন্দ্রে (সিআরপি) সংযোজন করা হয়। সিআরপির কৃত্রিম অঙ্গ সংযোজন বিভাগের প্রধান মোহাম্মদ শফিক বলেন, ‘বৃহস্পতিবার সকালে বিনা খরচে তার এই কৃত্রিম পা সংযোজন করা হয়।’

জাতীয়

উদ্বোধনী দিনে ‘বনলতা এক্সপ্রেসে’ ভ্রমণ ফ্রি

উদ্বোধনী দিনে ‘বনলতা এক্সপ্রেসে’ ভ্রমণ ফ্রি

ঢাকা-রাজশাহী রুটে বিরতিহীন ট্রেন সার্ভিস ‘বনলতা এক্সপ্রেস’ চালুর প্রথম দিন বিনা পয়সায় ভ্রমণ করা যাবে। ২৫ এপ্রিল ট্রেনটি রাজশাহী থেকে উদ্বোধন করা হবে। এরপর ২৭ এপ্রিল থেকে ট্রেনটি নিয়মিত ঢাকা-রাজশাহী রুটে বিরতিহীনভাবে চলবে।

আন্তর্জাতিক

পাঁচ সিংহ ও এক কুমিরের সঙ্গে মহিষের লড়াই (ভিডিও)

পাঁচ সিংহ ও এক কুমিরের সঙ্গে মহিষের লড়াই (ভিডিও)

একেই বলে জলে কুমির ডাঙায় বাঘ। তবে বিপদ যত বড়ই হোক, লড়াই চালিয়ে গেলে এক সঙ্গে কুমির আর সিংহ দলের হাত থেকেও রক্ষা পাওয়া যায়, দেখিয়ে দিল এক ‘বীর’ মহিষ। দক্ষিণ আফ্রিকার ক্রুগার ন্যাশনাল পার্কের এই লড়াইয়ের ভিডিও সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হয়ে গেছে।

আন্তর্জাতিক

মায়ের পেটে যমজ শিশুর মারামারি

মায়ের পেটে যমজ শিশুর মারামারি

চীনের ইয়ানচুর প্রদেশের চার মাসের অন্তঃসত্ত্বা এক নারী নিয়মিত চেকআপের অংশ হিসেবে  হাসপাতালে আল্ট্র্রাসাউন্ড করতে যায়। আল্ট্রাসাউন্ড করার সময় স্ক্রিনে দেখা যায় গর্ভে থাকা যমজরা মারামারি করছে । আল্ট্রাসাউন্ডের স্কিনে এই অবস্থা দেখে হতবাক হয়ে যায় চিকিৎসকরা।