• ঢাকা, বাংলাদেশ
  • শুক্রবার, ১০ জুলাই ২০২০, ২৬ আষাঢ় ১৪২৭

ফায়ার বল: অত্যাধুনিক অগ্নিনির্বাপক প্রযুক্তি

ফায়ার বল: অত্যাধুনিক অগ্নিনির্বাপক প্রযুক্তি

ফিচার ডেস্ক২৩ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ০৮:৪৩এএম, ঢাকা-বাংলাদেশ।

বিশ্বে মানবসৃষ্ট দুর্ঘটনাগুলোর অন্যতম একটি অগ্নিকাণ্ড। বিশ্ব যত বেশি আধুনিক হয়েছে, এই দুর্ঘটনার প্রকৃতি ও ধ্বংসাত্মক প্রভাব তত বেড়েছে। আর সেই সঙ্গে আবিষ্কৃত হয়েছে আগুন নিয়ন্ত্রণের নানা প্রযুক্তি। এই প্রযুক্তির অন্যতম একটি নতুন সংযোজন ‘ফায়ার বল’।

ফায়ার বল হচ্ছে আগুন নেভানোর জন্য ব্যবহৃত একটি অত্যাধুনিক অগ্নিনির্বাপক বল। কোথাও বড় ধরনের আগুন লাগলে সেখানে এই বল ব্যবহার করে আগুন নিয়ন্ত্রণ করা হয়। এতে আগুন দ্রুত নিয়ন্ত্রণ করা যায় এবং ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি প্রতিরোধ করা সম্ভব হয়।

অগ্নিনির্বাপক বল ওজনে হালকা এবং সহজে বহনযোগ্য। ফলে এর ব্যবহার খুবই সহজ। এটা খুব দ্রুত আগুন নিভাতে সক্ষম। এটি পানি-নিরোধক প্লাস্টিকের খোসা দ্বারা তৈরি একটি বল যার ভেতর, “নন-টক্সিক মনো-অ্যামোনিয়াম ফসফেট” নামে এক ধরনের রাসায়নিক পাউডার দ্বারা পরিপূর্ণ। এই পাউডার পরিবেশের কোনো ক্ষতি করে না।

এই বলে কোনো প্রকার সুইচ নেই। কারণ এটি একটি স্বয়ংক্রিয় বল। তাই এটি ব্যবহারে কোনো বিশেষ দক্ষতার প্রয়োজন নেই। সাধারণত এর ওজন ১.৩ কেজি হয়ে থাকে। তাই নারী, শিশু, বৃদ্ধ যেকোনো ব্যক্তি এটি ব্যবহার করতে পারেন।

এটি ব্যবহারের নিয়ম হচ্ছে- যখন কোথাও আগুন লাগে, তখন এই বলটিকে আগুনের মধ্যে নিক্ষেপ করতে হয়। মাত্র কয়েক সেকেন্ডের মধ্যেই এই বলটি বিস্ফোরিত হয় এবং এর ভেতরে থাকা পাউডার চারদিকে ছড়িয়ে পড়ে। এই বিশেষ রাসায়নিক পাউডার কিছুক্ষণের মধ্যেই আগুন নিভিয়ে দিতে ভূমিকা রাখে।

কেবল আগুন লাগার পর ব্যবহার করতে হবে তা নয়। আগুন লাগার পূর্বেও অগ্নিপ্রতিরোধক হিসেবে এটি ব্যবহার করা যায়। উদাহরণস্বরূপ:- বাসা-বাড়িতে, কল-কারখানায়, শিল্প-প্রতিষ্ঠানে, গাড়িতে সব জায়গাতেই এটি ব্যবহার করা যাবে। অর্থাৎ যেখানেই অগ্নিকাণ্ড ঘটার সম্ভাবনা আছে, সেখানেই এই বল ব্যবহার করা যাবে।

আমরা সাধারণত দেখি যে, আমাদের বাসা-বাড়ি, কল-কারখানা, শিল্প-প্রতিষ্ঠান ও অন্যান্য প্রতিষ্ঠানে অগ্নিনির্বাপক সিলিন্ডার স্থাপন করা হয়। কিন্তু এই যন্ত্রটি সবাই ব্যবহার করতে জানে না। আবার এটি ওজনে ভারী হওয়ায় সবাই এটি ব্যবহার করতে পারে না। তাছাড়া এটি স্বয়ংক্রিয়ভাবেও কাজ করতে পারে না। তাই অনেক সময় অগ্নিনির্বাপক যন্ত্র থাকা সত্ত্বেও এটি আগুন নিয়ন্ত্রণে খুব একটা কাজে আসে না।

অন্যদিকে অগ্নিনির্বাপক বলের খোসা প্লাস্টিকের তৈরি হওয়ায়, আগুনের সংস্পর্শে আসার কয়েক সেকেন্ডের মধ্যেই এটি বিস্ফোরিত হয়। তাই যেকোনো স্থানে এটি রাখা যাবে। যখন আগুন বলকে স্পর্শ করবে কিছুক্ষণের মধ্যেই এটি স্বয়ংক্রিয়ভাবে বিস্ফোরিত হবে। ফলে এর ভেতরে থাকা অগ্নিনির্বাপক পাউডার চারদিকে ছড়িয়ে পড়ে আগুন নিভাতে ভূমিকা রাখবে।

তাছাড়া এর সবচেয়ে বড় সুবিধা, এটি সুবিধাজনক যেকোনো দূরত্ব থেকে নিক্ষেপ করা যেতে পারে। এটি ব্যবহারের জন্য আগুনের কাছাকাছি যাওয়ার প্রয়োজন নেই। তাই ফায়ার সার্ভিস কর্মীদের জন্য যেকোনো দুর্গম ও ঝুঁকিপূর্ণ স্থানে অগ্নিনির্বাপক বল ব্যবহার করা সহজ।

এই বলের আরেকটি বড় সুবিধা হল এটাকে নাড়া-চাড়া করলে বা এর মেয়াদ উত্তীর্ণ হলেও এটি নিজে থেকে কোনো আগুন তৈরি করে না। তাছাড়া এটি পরিবেশবান্ধব উপাদান দিয়ে তৈরি হয় বলে এটা মানুষ বা পরিবেশের তেমন কোনো ক্ষতি করে না।

অগ্নিকাণ্ডের তীব্রতা ও ব্যাপকতা অনুযায়ী যেকোনো সংখ্যক বল ব্যবহার করা যেতে পারে। ফলে যেকোনো বড় ধরনের অগ্নিকাণ্ডের ক্ষেত্রেও এই বল ব্যবহার করে আগুন নিয়ন্ত্রণ করা সম্ভব। যেসব দুর্ঘটনা কবলিত এলাকায় পানি সরবরাহ করা কঠিন ও সময় সাপেক্ষ, সেখানে এই বল ব্যবহার করে আগুন নিয়ন্ত্রণ করা সহজ।

তবে এই বলের একটাই অসুবিধা এটা বিস্ফোরিত হবার সময় উচ্চ মাত্রায় শব্দ তৈরি হয়।

সুতরাং বলা যায়, যেকোনো ধরনের অগ্নিকাণ্ড সংশ্লিষ্ট দুর্ঘটনায় আগুন নিয়ন্ত্রণের জন্য অত্যন্ত কার্যকর একটি প্রযুক্তি ‘অগ্নিনির্বাপক বল’। তাই ফায়ার সার্ভিসের পাশাপাশি বাসা-বাড়ি এবং যেকোনো প্রতিষ্ঠানে অগ্নিকাণ্ড সংশ্লিষ্ট দুর্ঘটনা প্রতিরোধ করতে অগ্নিনির্বাপক বল ব্যবহার করা উচিত বলে বিশেষজ্ঞরা মনে করেন।

 

টাইমস/এএইচ/জিএস

করোনায় আরও ৩৭ জনের মৃত্যু, আক্রান্ত ২৯৪৯

করোনায় আরও ৩৭ জনের মৃত্যু, আক্রান্ত ২৯৪৯

দেশে করোনাভাইরাসে গত ২৪ ঘন্টায় আরও ৩৭ জনের মৃত্যু হয়েছে।

ইতালিফেরত ১৪৭ জন ঠাঁই পেল হজ ক্যাম্পে

ইতালিফেরত ১৪৭ জন ঠাঁই পেল হজ ক্যাম্পে

ইতালির রোম বিমানবন্দর থেকে ফেরত পাঠানো ১৪৭ বাংলাদেশিকে রাজধানীর আশকোনা

সরকারের ব্যর্থতায় বহির্বিশ্বে মহাসংকটে দেশ -রিজভী

সরকারের ব্যর্থতায় বহির্বিশ্বে মহাসংকটে দেশ -রিজভী

বহির্বিশ্বে বাংলাদেশের ভাবমূর্তি বড় ধরণের সংকটের মুখে পড়েছে বলে মন্তব্য

জাতীয়

করোনা: মারা গেলেন ফরিদপুর জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান

করোনা: মারা গেলেন ফরিদপুর জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান

ফরিদপুর জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান লোকমান হোসেন করোনায় আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন। ইন্নালিল্লাহি ওয়া ইন্নাইলাইহি রাজিউন। ফরিদপুর জেলা প্রশাসক অতুল সরকার এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

জাতীয়

সাবেক স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী সাহারা খাতুন মারা গেছেন

সাবেক স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী সাহারা খাতুন মারা গেছেন

আওয়ামী লীগের সভাপতিমন্ডলীর সদস্য ও সাবেক স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অ্যাডভোকেট সাহারা খাতুন এমপি মারা গেছেন (ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন)। থাইল্যান্ডের রাজধানী ব্যাংককের একটি হাসপাতালে বৃহস্পতিবার রাত সাড়ে ১১টায় তিনি মারা যান। তার বয়স হয়েছিল ৭৮ বছর।

জাতীয়

এবার ছাত্রীকে ধর্ষণের পর হত্যা করে সীমান্তে ফেলে রাখল দুলাভাই!

এবার ছাত্রীকে ধর্ষণের পর হত্যা করে সীমান্তে ফেলে রাখল দুলাভাই!

এবার নেত্রকোনার দুর্গাপুরে শ্যালিকাকে ধর্ষণের পর হত্যা করেছে দুলাভাই। হত্যার পর ওই কিশোরীরর লাশ বাংলাদেশ-ভারত সীমান্তের ‘নো ম্যানস ল্যান্ড’

খেলাধুলা

স্বাস্থ্যবিধি মেনে চিকিৎসককে বিয়ে করলেন ক্রিকেটার আবু জায়েদ

স্বাস্থ্যবিধি মেনে চিকিৎসককে বিয়ে করলেন ক্রিকেটার আবু জায়েদ

করোনার মহামারী চলাকালেই স্বাস্থ্যবিধি মেনে বিয়ে করেছেন বাংলাদেশ জাতীয় দলের ক্রিকেটার আবু জায়েদ রাহী। ঘরোয়া পরিসরে ডাক্তার মেয়েকে

জাতীয়

করোনায় মৃত বাবার লাশও নিতে আসেনি প্রতারক শাহেদ!

করোনায় মৃত বাবার লাশও নিতে আসেনি প্রতারক শাহেদ!

করোনা টেস্টের ভুয়া রিপোর্ট প্রদান, প্রতারণা ও ক্ষমতাসীন দলের ছত্রছায়ায় প্রভাব বিস্তার করে আলোচনায় আসা রিজেন্ট হাসপাতালের মালিক মো. শাহেদের বাবা সিরাজুল ইসলাম করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন। বৃহস্পতিবার রাত ৯টার দিকে রাজধানীর মহাখালীতে অবস্থিত ইউনিভার্সেল মেডিক্যাল কলেজ অ্যান্ড হাসপাতালে (সাবেক আয়েশা মেমোরিয়াল) চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি মারা যান।

শিল্প ও সাহিত্য

ঘরে বসে মহামারী সম্পর্কিত যেসব মুভি দেখতে পারেন

ঘরে বসে মহামারী সম্পর্কিত যেসব মুভি দেখতে পারেন

বিশ্বজুড়ে ছড়িয়ে পড়া কোভিড-১৯ মহামারীর ফলে ইতিমধ্যে প্রাণ হারিয়েছেন বহু লোক, সংক্রমণের সংখ্যাও প্রতিদিন বেড়েই চলেছে। যুক্তরাষ্ট্রসহ বহু দেশে দেখা দিয়েছে দ্বিতীয় পর্যায়ের মহামারী। দীর্ঘ দিনের লকডাউন, স্কুল-কলেজ বন্ধ থাকা, ব্যবসায় ধস, ক্যারিয়ার নিয়ে শঙ্কা প্রভৃতি নানা কারণে সাধারণ মানুষের দিন কাটছে আতঙ্ক আর উদ্বেগের মধ্য দিয়ে।