• ঢাকা, বাংলাদেশ
  • বুধবার, ০৮ জুলাই ২০২০, ২৪ আষাঢ় ১৪২৭

মঙ্গলে বসবাসের হাতছানি

মঙ্গলে বসবাসের হাতছানি

ফিচার ডেস্ক০৯ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ১০:২৩এএম, ঢাকা-বাংলাদেশ।

বহুকাল ধরে মানুষ মঙ্গলে বসবাসের স্বপ্ন দেখে চলেছেন। তাই মঙ্গলগ্রহকে কিভাবে বসবাস উপযোগী করে তোলা যায়, তা নিয়ে ভাবনার শেষ নেই। এ নিয়ে লেখা হয়েছে অনেক বৈজ্ঞানিক কল্পকাহিনী ও উপন্যাস।

তবে কল্পনার জগত থেকে বেড়িয়ে এসে ১৯৭১ সালে কার্ল সেগান সর্বপ্রথম মঙ্গলের আবহাওয়া ও প্রকৃতিকে পৃথিবীর মতো করে গড়ে তোলা বা টেরাফর্মিংয়ের কথা বলেন। এক গবেষণাপত্রে, মঙ্গলের উত্তরাংশের বরফ বাষ্পীভূত করে এবং গ্রীণহাউজ এফেক্টের মাধ্যমে উষ্ণতা বৃদ্ধি করার মধ্যদিয়ে একে মানুষ বসবাসের উপযোগী করে তোলার সম্ভাবনার কথা সেগান তুলে ধরেন।

২০১৮ সালে নাসার উদ্যোগে ইউনিভার্সিটি অব কোলোরাডো, বোউল্ডার এবং নর্দান অ্যারিজোনা ইউনিভার্সিটির গবেষকরা আবিষ্কার করেন যে, মঙ্গলের সব উপাদান ব্যবহার করলেও এর উষ্ণতা পৃথিবীর ৭ শতাংশের বেশি বৃদ্ধিপ্রাপ্ত হবে না। ফলে মঙ্গলে বসবাসের স্বপ্নপূরণ প্রায় অসম্ভব হয়ে উঠেছিল।

কিন্তু সম্প্রতি হার্ভাড ইউনিভার্সিটি, নাসার জেট ল্যাব এবং ইউনিভার্সিটি অব এডিনবার্গে গবেষকরা উক্ত সমস্যাটি সমাধানে একটি নতুন ধারণা সামনে নিয়ে এসেছেন। তারা বলছেন, পুরো গ্রহটিকে বদলে দেয়া হয়তো সম্ভব নয়, কিন্তু নির্দিষ্ট কোনো এলাকা পৃথিবীর আদলে বদলে দেয়া যেতে পারে।

গবেষকরা বলছেন, মঙ্গলের নির্দিষ্ট অঞ্চল সিলিকা এরো জেল দ্বারা বসবাসযোগ্য করে তোলা যেতে পারে। এটি ব্যবহারের ফলে গ্রীনহাউজ এফেক্টের মধ্যদিয়ে ওই অঞ্চলটিতে পৃথিবীর মতো পরিবেশ সৃষ্টি হবে।

তারা পরীক্ষা চালিয়ে দেখেছেন যে, সিলাকা জেলের ২-৩ সেন্টিমিটার পুরু আস্তরণের ভেতরে সালোকসংশ্লেষণের জন্য যথেষ্ট আলো পৌঁছায়। এছাড়াও এটি ক্ষতিকর অতিবেগুনি রশ্মি ঠেকায় এবং ভেতরের তাপমাত্রা স্থায়ীভাবে এতটা বৃদ্ধি করে যে, তাতে পানি ফুটতে শুরু করে। সব থেকে আশার কথা হলো, এর জন্যে আলাদা করে তাপ উৎপাদনের ব্যবস্থা করার প্রয়োজন নেই।

গবেষণাপত্রটি ‘ন্যাচার অ্যাস্ট্রোনমি ২০১৯’এ প্রকাশিত হয়েছে। এই গবেষণার ফলে মঙ্গলে বসবাসের সম্ভাবনা নতুন দিগন্তে পৌঁছে গেল। সেইদিন হয়তো খুব বেশি দূরে নয় যখন পৃথিবীর মানুষ ঘর বাঁধবে মঙ্গলের বুকে। সূত্র: সাইন্সটেকডেইলিডটকম

 

টাইমস/এনজে/জিএস

করোনায় ফেনীর সিভিল সার্জন ডা. সাজ্জাদ হোসেনের মৃত্যু

করোনায় ফেনীর সিভিল সার্জন ডা. সাজ্জাদ হোসেনের মৃত্যু

করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে ফেনীর সিভিল সার্জন ডা. সাজ্জাদ হোসেন মারা

করোনায় সংক্রমিত হলেই পুরষ্কার!

করোনায় সংক্রমিত হলেই পুরষ্কার!

করোনাভাইরাস থেকে প্রাণে বাঁচতে রীতিমতো সংগ্রাম করছে বিশ্বের মানুষ। মহামারী

কোভিড-১৯ থেকে বাঁচতে খাঁটি সোনার মাস্ক বানিয়েছেন ভদ্রলোক!

কোভিড-১৯ থেকে বাঁচতে খাঁটি সোনার মাস্ক বানিয়েছেন ভদ্রলোক!

কোভিড-১৯ রোগটির হাত থেকে বাঁচতে মাস্কের বিকল্প নেই। বিভিন্ন ধরণের

চাকরি

এইচএসসিতেই বিয়ে, স্বামীর প্রেরণায় বিসিএসে দেশসেরা সাথী

এইচএসসিতেই বিয়ে, স্বামীর প্রেরণায় বিসিএসে দেশসেরা সাথী

নূরুন্নাহার সাথী পড়াশোনা করেছেন খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ে। এইচএসসিতে পড়াশোনা করার সময়ই তাকে বিয়ে দিয়ে দেয়া হয়। তবে বিয়ের পরও তার স্বপ্ন থেমে

জাতীয়

৯৯৯ এ ফোন, নাটোরে ট্রেন থামিয়ে সন্তানের জন্ম দিলেন মা!

৯৯৯ এ ফোন, নাটোরে ট্রেন থামিয়ে সন্তানের জন্ম দিলেন মা!

গভীর রাতে ৯৯৯ এ ফোন করে নাটোর স্টেশনে কুড়িগ্রাম এক্সপ্রেস ট্রেন থামিয়ে সন্তানের জন্ম দিয়েছেন এক নারী। নাটোর সদর হাসপাতালে ফুটফুটে ছেলে সন্তানের জন্ম

জাতীয়

১৫০০ টাকায় ট্রেনে চড়বে গরু!

১৫০০ টাকায় ট্রেনে চড়বে গরু!

এবারের আসন্ন ঈদুল আযহাকে সামনে রেখে দেশের উত্তরাঞ্চল ও পশ্চিমাঞ্চল থেকে ঢাকা ও চট্টগ্রামে ট্রেনে করে কোরবানির পশু পরিবহন করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে বাংলাদেশ রেলওয়ে (বিআর)। পশু ব্যবসায়ীদের সুবিধার্থে মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের অনুরোধে রেলওয়ে এ সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

জাতীয়

করোনায় প্রাণ গেল আরও ৫৫ জনের

করোনায় প্রাণ গেল আরও ৫৫ জনের

দেশে করোনাভাইরাসে গত ২৪ ঘন্টায় আরও ৫৫ জনের মৃত্যু হয়েছে। মৃতদের মধ্যে ৪৬ জন পুরুষ ও ৯ জন নারী। এ নিয়ে দেশে করোনায় আক্রান্ত হয়ে মৃতের সংখ্যা দাড়াল ২ হাজার ১৫১ জন।

জাতীয়

আম গাছে একই রশিতে ঝুলছিল প্রেমিক যুগলের লাশ

আম গাছে একই রশিতে ঝুলছিল প্রেমিক যুগলের লাশ

বরিশালের উজিরপুর উপজেলায় একই রশিতে ঝুলন্ত অবস্থায় প্রেমিক যুগলের লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। মঙ্গলবার বেলা ১১টার দিকে উপজেলার জল্লা ইউনিয়নের ইন্দুকানি গ্রামের একটি আম গাছ থেকে ওই যুগলের উদ্ধার করা হয়। পরে ময়নাতদন্তের জন্য মরদেহ বরিশাল শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মর্গে পাঠিয়েছে পুলিশ।

আন্তর্জাতিক

আর্কটিক অঞ্চলে হাজার হাজার মরণ ভাইরাস

আর্কটিক অঞ্চলে হাজার হাজার মরণ ভাইরাস

পৃথিবীর সর্ব উত্তরে অবস্থিত আর্কটিক অঞ্চলের বরফ গলার কারণে বিশ্বে আরও ভয়াবহ পরিস্থিতি তৈরি হতে পারে। এসব অঞ্চলের নিচে নিষ্ক্রিয় অবস্থায় আছে হাজার হাজার বছরের পুরনো ভাইরাস। সেগুলো সক্রিয় হয়ে বিশ্বে ভয়ংকর সব রোগের সৃষ্টি করতে পারে বলে সতর্ক করেছেন বিজ্ঞানীরা।