• ঢাকা, বাংলাদেশ
  • বৃহস্পতিবার, ২০ ফেব্রুয়ারি ২০২০, ৮ ফাল্গুন ১৪২৬

চন্দ্রাভিযান সম্পর্কে অজানা তথ্য

চন্দ্রাভিযান সম্পর্কে অজানা তথ্য

ফিচার ডেস্ক১০ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ০৯:৩৭এএম, ঢাকা-বাংলাদেশ।

মানুষ চাঁদে পা রেখেছে সেই ১৯৬৯ সালে। এর ৭ বছর আগে ১৯৬২ সালে যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট জন এফ. কেনেডি চাঁদে মানুষ পাঠাবার কথা ঘোষণা দিয়েছিলেন। তখন ছিল শীতল যুদ্ধের সময়, সেকারণে সাবেক সোভিয়েত ইউনিয়নের সঙ্গে সব রকম প্রতিযোগিতায় নিজেকে যোগ্য প্রমাণে মরিয়া ছিল যুক্তরাষ্ট্র।

চাঁদে মানুষ পাঠানো শুধু কেনেডির স্বপ্নের ফলেই সম্ভব হয়নি, এর পেছনে বহু লোকের শ্রম ও মেধা বিনিয়োগ করতে হয়েছে। এখানে যুক্তরাষ্ট্রের চন্দ্র-বিজয়ের অজানা বা কম আলোচিত কিছু তথ্য তুলে ধরা হলো।

চাঁদের মাটি দুর্গন্ধযুক্ত
নাসার যে দলটি অ্যাপোলো-১১’র চন্দ্রাবতরণের দায়িত্বে ছিল তাদের কাছে সব থেকে বড় প্রশ্ন ছিল- চাঁদের মাটি কেমন হবে? যানটি কি শক্ত মাটিতে নামতে যাচ্ছে, নাকি ডুবে যাবে তরল কিছুতে? দেখা গেল, চাঁদের তল কঠিন। কিন্তু অবাক করা বিষয় হলো- চাঁদের মাটির এক ধরণের গন্ধ রয়েছে।

চাঁদের মাটি অত্যন্ত আঠালো হওয়ায় তা ঝেড়ে ফেলা কঠিন। তাই নীল আর্মস্ট্রং ও অল্ড্রিন যখন লুনার মডিউলে ফিরে এসেছিল তখন তাদের পোষাকে লেগে থাকা চাঁদের মাটি কেবিনে ঢুকে যায়। ফলে নভোচারীরা কেবিনে অনুভব করা একধরণের দুর্গন্ধের কথা লিপিবদ্ধ করেছিলেন, যা অনেকটা পোড়া ছাইয়ের মতো।

তবে বিজ্ঞানীরা কখনো এই ঘটনা পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে দেখার সুযোগ পাননি। চাঁদ থেকে নিয়ে আসা যে মাটি ও পাথর ল্যাবে পরীক্ষার জন্যে পাঠানো হয়েছিল সেগুলোতে কোন গন্ধ ছিল না। এবিষয়ে ওয়ান জায়েন্ট লিপ’এর লেখক চার্লস ফিসম্যানের বিখ্যাত উক্তি হচ্ছে, “চাঁদের গন্ধ চাঁদেই থাকে।”

সোভিয়েত ইউনিয়নকে টেক্কা দেয়াই ছিল কেনেডির মূল লক্ষ্য
জনসাধারণের সম্মুখে চন্দ্র বিজয়ের কারণ হিসেবে কেনেডি বারবার জ্ঞান-বিজ্ঞানের প্রসারের কথাই বলেছেন। কিন্তু পরবর্তীতে ফাঁস হয়ে যাওয়া একটি ভিডিও থেকে জানা যায়, মহাশূন্য বিজয়ের থেকেও সোভিয়েত ইউনিয়নকে টেক্কা দেয়াই কেনেডির আগ্রহ ছিল বেশি।

ফাঁস হয়ে যাওয়া ভিডিওতে দেখা যায়, ১৯৬২ খৃষ্টাব্দে অনুষ্ঠিত উপদেষ্টা পরিষদ ও নাসার কর্মকর্তাদের সঙ্গে এক মিটিংয়ে মি. কেনেডি মন্তব্য করেন, “আমি মহাকাশ সম্পর্কে অতটাও আগ্রহী নই”। কিন্তু তিনি শীতল যুদ্ধে যথেষ্ট আগ্রহী ছিলেন। তার শপথ গ্রহণের কয়েক মাসের মধ্যেই সোভিয়েত ইউনিয়ন মহাশূন্যে মানুষ পাঠিয়েছিল।

তখন মি. কেনেডি তার ভাইস প্রেসিডেন্টকে ডেকে প্রশ্ন করেছিলেন যে, কীভাবে আমেরিকা সোভিয়েত ইউনিয়নের থেকে এক ধাপ এগিয়ে যেতে পারে? আর চাঁদের মাটিতে অবতরণের মধ্য দিয়ে আমেরিকা সত্যিকার অর্থেই সোভিয়েত ইউনিয়নের থেকে এক ধাপ এগিয়ে গিয়েছিল।

সোভিয়েত ইউনিয়ন তার চাঁদে মানুষ পাঠানোর পরিকল্পনা লুকিয়ে রাখতে চেয়েছিল
শুধু যুক্তরাষ্ট্র নয়, সাবেক সোভিয়েত ইউনিয়নের কর্মকর্তারাও পরিকল্পনা করছিলেন চাঁদে মানুষ পাঠানোর। কিন্তু সোভিয়েত কর্মকর্তারা এই পরিকল্পনা লোকচক্ষুর সামনে আনতে চায় নি। তারাও অতি গোপনীয়তা বজায় রেখে সবার আগে এই সফলতার মুকুট পরতে চেয়েছিল। কিন্তু আমেরিকা তাদের বঞ্চিত করে।

সোভিয়েত পত্রিকা কোমসোমলকায়া পবদা’র ইয়ারোস্লাভ গোলোভানভ সাংবাদিক এ বিষয়ে বলেন, “মানুষ যাতে আমাদের থেকে খুব বেশি আশা না করে সে জন্য গোপনীয়তার প্রয়োজন ছিল।”

চাঁদের জীবাণু পৃথিবীকে আক্রান্ত করতে পারে ভেবে ভীত ছিলেন বিজ্ঞানীরা
যদিও নিজের জীবন বিপন্ন করে বিজ্ঞান ও প্রযুক্তিকে বহু ধাপ এগিয়ে নিয়ে গেছিলেন আর্মস্ট্রং, অল্ড্রিন ও কোলিনস, তবুও পৃথিবীতে ফেরার পর তাদেরকে সন্দেহজনক চোখে দেখা হয়েছিল। আর বিজ্ঞানীরা এই ভেবে ভয় পাচ্ছিলেন যে, নভোচারীদের মাধ্যমে চাঁদ হতে কোনো ভয়ানক জীবাণুর প্রবেশ ঘটতে পারে পৃথিবীতে।

তাদের সঙ্গে মহাশূন্যে সৃষ্ট নতুন জীবনঘাতি কোনো প্ল্যাগ পৃথিবীতে ঢুকেছে কিনা, তা নিয়েও নাসার বিজ্ঞানীরা ছিলেন সন্দিহান। তাই এই তিন নভোচারীকে ২৪ জুলাই থেকে ১০ আগস্ট পর্যন্ত মহাকাশ কেন্দ্রের বিশেষ সুরক্ষিত কক্ষে কাটাতে হয়েছিল। সেখানে তাদের উপর বিস্তর পরীক্ষা-নিরীক্ষা চালানো হয়।

মিশন ব্যর্থতার জন্য আলাদা বক্তৃতা প্রস্তুত ছিল নিক্সনের
যেহেতু এর আগে কখনো চাঁদের মাটিতে মানুষের পা পড়েনি, তাই এই মিশনের সফলতা সম্পর্কে কেউ নিশ্চিত ছিলেন না। এমনকি এটাও নিশ্চিত করে বলার উপায় ছিল না যে, চাঁদ থেকে পৃথিবীর উদ্দেশ্যে টেক অফ করা সম্ভব হবে। সুতরাং সব সম্ভাবনা মাথায় রেখে,
অ্যাপোলো-১১’র চন্দ্রাভিযান ব্যর্থ হলে জাতীর উদ্দেশ্যে কি বলতে হবে তা আগে থেকেই প্রস্তুত করে রেখেছিলেন আমেরিকার তৎকালীন প্রেসিডেন্ট নিক্সন। সূত্র হিস্ট্রিডটকম

 

টাইমস/এনজে/জিএস

বাংলা সাহিত্য ও সংস্কৃতি আন্তর্জাতিক পর্যায়ে ছড়িয়ে দিন: প্রধানমন্ত্রী

বাংলা সাহিত্য ও সংস্কৃতি আন্তর্জাতিক পর্যায়ে ছড়িয়ে দিন: প্রধানমন্ত্রী

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বাংলা সাহিত্য ও সংস্কৃতিকে বিশ্ব দরবারে আরও

সমন্বিত ভর্তি পরীক্ষায় যাচ্ছে না বুয়েট

সমন্বিত ভর্তি পরীক্ষায় যাচ্ছে না বুয়েট

বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশনের সমন্বিত ভর্তি পরীক্ষায় অংশ নিচ্ছে না বাংলাদেশ

গ্রামীণফোনকে এক হাজার কোটি টাকা পরিশোধের নির্দেশ   

গ্রামীণফোনকে এক হাজার কোটি টাকা পরিশোধের নির্দেশ  

বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ সংস্থার (বিটিআরসি) পাওনা এক হাজার কোটি টাকা

আন্তর্জাতিক

এক মাসেই তৈরি হবে করোনাভাইরাসের প্রতিষেধক

এক মাসেই তৈরি হবে করোনাভাইরাসের প্রতিষেধক

এক মাসের মধ্যেই করোনাভাইরাসের প্রতিষেধক তৈরি করা সম্ভব বলে দাবি করেছেন যুক্তরাজ্যের অক্সফোর্ড ইউনিভার্সিটির এক বিজ্ঞানী। যদি বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডব্লিউএইচও) বলে আসছে, করোনাভাইরাসের প্রতিষেধক তৈরি করতে বছর দেড়েক সময় লাগবে

জাতীয়

ব্রাহ্মণপাড়া সীমান্তে চার বিএসএফ সদস্যকে আটকের পর ফেরত

ব্রাহ্মণপাড়া সীমান্তে চার বিএসএফ সদস্যকে আটকের পর ফেরত

অবৈধভাবে বাংলাদেশ সীমান্তে ঢুকে পড়ায় ভারতীয় সীমান্তরক্ষী বাহিনীর (বিএসএফ) চার সদস্যকে আটক করে বর্ডার গার্ড বাংলাদেশের (বিজিবি) সদস্যরা। পরে পতাকা বৈঠকের মাধ্যমে তাদের ফিরিয়ে দেওয়া হয়।

খেলাধুলা

রোনাল্ডোর প্রেমিকার হাত খরচ ৮৭ লাখ টাকা

রোনাল্ডোর প্রেমিকার হাত খরচ ৮৭ লাখ টাকা

ক্রিশ্চিয়ানো রোনাল্ডো তার প্রেমিকা জর্জিনা রদ্রিগেজের হাত খরচ মেটানোর জন্য প্রতি মাসে ৮৭ লাখ টাকা ব্যয় করেন। খবরটি পড়ে আশ্চর্য হবেন না জানি। কিন্তু একটু ভেবেই দেখুন না, বিয়ে না করেই প্রেমিকার জন্য এরকম কাড়ি কাড়ি টাকা কয়জনে বিলোতে জানে?

জাতীয়

ভালুকায় ট্রাকের পেছনে পিকআপের ধাক্কা, চালকসহ নিহত ২

ভালুকায় ট্রাকের পেছনে পিকআপের ধাক্কা, চালকসহ নিহত ২

ময়মনসিংহের ভালুকা উপজেলায় বালুবোঝাই ট্রাকের পেছনে মুরগিবাহী ট্রাকের ধাক্কায় পিকআপের চালকসহ দুজন নিহত হয়েছেন। এ সময় আহত হয়েছেন আরও একজন।

জাতীয়

ব্যতিক্রমী প্রতিবাদ ‘ছাল তুলে নাও’

ব্যতিক্রমী প্রতিবাদ ‘ছাল তুলে নাও’

ওরা ট্যাক্স ফাকি দেয়। কেউ লিখেছেন, ধুমপান ছাড়ুন জীবন বাচান। আবার কেউ লিখেছেন, সিগারেট রক্তে বিষ মেশায়। সিগারেট তৈরির কোম্পানীগুলো আইন মানে না। ধুমপায়ী আইন মানে না। ধুমপান মানে আত্মহত্যা। সিগারেটের মুল প্যাকেটের আবরণ তুলে সাদা অংশে এরকম নানা প্রতিবাদি কথা লিখছেন সচেতন মানুষগুলো।

স্বাস্থ্য

হজম ক্ষমতা বাড়ায় গরম মশলা

হজম ক্ষমতা বাড়ায় গরম মশলা

গরম মশলা আমাদের অতি পরিচিত। মাংস রান্না থেকে শুরু করে বিভিন্ন রান্নায় এর বাহারি ব্যবহার রয়েছে। গরম মশলা খাবারের স্বাদ বাড়ায়, সে কথা সবার জানা। তবে, এর স্বাস্থ্যকর অনেক গুনের কথাই আমরা হয়তো জানি না। আবার অনেকে ভেবে থাকেন এই মশলা আমাদের পেটের স্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকর। বাস্তবতা হলো- গরম মশলায় থাকা অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট হজমজনিত সমস্যা নিরাময়ের পাশাপাশি রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি করে।