• ঢাকা, বাংলাদেশ
  • সোমবার, ২১ অক্টোবর ২০১৯, ৬ কার্তিক ১৪২৬

আগামীকাল ঐতিহাসিক ৭ মার্চ

আগামীকাল ঐতিহাসিক ৭ মার্চ

সেন্ট্রাল ডেস্ক০৬ মার্চ ২০১৯, ১২:৫৩পিএম, ঢাকা-বাংলাদেশ।

আগামীকাল বৃহস্পতিবার ঐতিহাসিক ৭ মার্চ। বাঙালি জাতির স্বাধীনতা সংগ্রাম ও মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাসের এক অনন্য দিন। সুদীর্ঘকালের আপসহীন আন্দোলনের একপর্যায়ে ১৯৭১ সালের এই দিনে সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে (তদানীন্তন রেসকোর্স ময়দান) বিশাল জনসমুদ্রে দাঁড়িয়ে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বাংলাদেশের স্বাধীনতা সংগ্রামের ডাক দেন।

এ দিন লাখ লাখ মুক্তিকামী মানুষের উপস্থিতিতে এই মহান নেতা বজ্রকণ্ঠে ঘোষণা করেন, ‘রক্ত যখন দিয়েছি রক্ত আরো দেব, এ দেশের মানুষকে মুক্ত করে ছাড়বো ইনশাআল্লাহ। এবারের সংগ্রাম আমাদের মুক্তির সংগ্রাম, এবারের সংগ্রাম স্বাধীনতার সংগ্রাম।’

দিবসটি যথাযথ মর্যাদায় পালনের জন্য আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে বিস্তারিত কর্মসূচি গ্রহণ করা হয়েছে। এসব কর্মসূচির মধ্যে রয়েছে- বৃহস্পতিবার ভোর ৬টা ৩০ মিনিটে বঙ্গবন্ধু ভবন ও দলীয় কার্যালয়ে জাতীয় ও দলীয় পতাকা উত্তোলন, সকাল ৭টায় বঙ্গবন্ধু ভবন প্রাঙ্গণে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধা নিবেদন। এছাড়াও এদিন বিকাল ৩টায় বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে অনুষ্ঠিত হবে আলোচনা সভা। এতে সভাপতিত্ব করবেন আওয়ামী লীগ সভাপতি এবং প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। আওয়ামী লীগের সকল শাখা কমিটি কেন্দ্রীয় কর্মসূচির সঙ্গে সামঞ্জস্যপূর্ণ কর্মসূচি গ্রহণ করে ঐতিহাসিক ৭ মার্চ স্মরণ করবে।

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ঐতিহাসিক ৭ মার্চের এই ভাষণকে ইতোমধ্যে বিশ্ব প্রামাণ্য ঐতিহ্য হিসেবে স্বীকৃতি দিয়েছে জাতিসংঘের শিক্ষা বিজ্ঞান ও সাংস্কৃতিক বিষয়ক সংস্থা ইউনেসকো। এ ভাষণ বিশ্ব ঐতিহ্যের স্বীকৃতি পাওয়ায় বাংলাদেশের মানুষের গৌরব সম্মান আরেকবার আন্তর্জাতিকভাবে প্রতিষ্ঠিত হয়েছে।

একাত্তরের ৭ মার্চ বঙ্গবন্ধুর এই উদ্দীপ্ত ঘোষণায় বাঙালি জাতি পেয়ে যায় স্বাধীনতার দিক-নির্দেশনা। এরপরই দেশের মুক্তিকামী মানুষ ঘরে ঘরে চূড়ান্ত লড়াইয়ের প্রস্তুতি নিতে শুরু করে। বঙ্গবন্ধুর এই বজ্রনিনাদে আসন্ন মহামুক্তির আনন্দে বাঙালি জাতি উজ্জীবিত হয়ে ওঠে। যুগ যুগ ধরে শোষিত-বঞ্চিত বাঙালি ইস্পাতকঠিন দৃঢ়তা নিয়ে এগিয়ে যায় কাঙ্খিত মুক্তির লক্ষ্যে।

১৯৪৭ সালে ধর্মীয় চিন্তা, সাম্প্রদায়িকতার মানসিকতা ও দ্বি-জাতিতত্ত্বের ভিত্তিতে গঠিত পাকিস্তান রাষ্ট্রের বিরুদ্ধে ২৩ বছরের আন্দোলন-সংগ্রামের মধ্যদিয়ে বাঙালি জাতিসত্তা, জাতীয়তাবোধ ও জাতিরাষ্ট্র গঠনের যে ভিত রচিত হয় তারই চূড়ান্ত পর্যায়ে বঙ্গবন্ধুর ৭ মার্চের ভাষণের পর ছাত্র-কৃষক-শ্রমিকসহ সর্বস্তরের বাঙালি স্বাধীনতা অর্জনের জন্য মুক্তিযুদ্ধের প্রস্তুতি গ্রহণ করে।

বঙ্গবন্ধুর ডাকে সাড়া দিয়ে পাকিস্তানী হানাদার বাহিনীর বিরুদ্ধে ৯ মাসের সশস্ত্র মুক্তিযুদ্ধে বিজয়ী হয়ে ১৯৭১ সালের ১৬ ডিসেম্বর বিজয় ছিনিয়ে আনে বাঙালি জাতি। এই বিজয়ের মধ্যদিয়ে বিশ্ব মানচিত্রে জন্ম নেয় স্বাধীন সার্বভৌম বাংলাদেশ।

এর আগে একাত্তরের ঐতিহাসিক ৭ মার্চ বঙ্গবন্ধুর ভাষণে গর্জে ওঠে উত্তাল জনসমুদ্র। লাখ লাখ মানুষের গগনবিদারী শ্লোগানের উদ্দামতায় বসন্তের মাতাল হাওয়ায় সেদিন পত পত করে ওড়ে বাংলাদেশের মানচিত্র খচিত লাল-সবুজের পতাকা। লাখো শপথের বজ্রমুষ্টি উত্থিত হয় আকাশে।

পরের দিন প্রকাশিত বিভিন্ন পত্রিকা থেকে জানা যায়, সেদিন বঙ্গবন্ধু মঞ্চে আসেন বিকাল ৩টা ২০ মিনিটে। ফাগুনের সূর্য তখনো মাথার ওপর। মঞ্চে আসার পর তিনি জনতার উদ্দেশ্যে হাত নাড়েন। তখন পুরো সোহরাওয়ার্দী উদ্যান লাখ লাখ বাঙালির কণ্ঠে ‘তোমার দেশ আমার দেশ, বাংলাদেশ বাংলাদেশ, তোমার নেতা আমার নেতা শেখ মুজিব, শেখ মুজিব’ শ্লোগানে মুখরিত হয়ে ওঠে। তিনি দরাজ গলায় তার ভাষণ শুরু করেন, ‘ভাইয়েরা আমার, আজ দুঃখ-ভারাক্রান্ত মন নিয়ে আপনাদের সামনে হাজির হয়েছি…।’

এরপর জনসমুদ্রে দাঁড়িয়ে বাংলা ও বাঙালির স্বাধীনতার মহাকাব্যের কবি ঘোষণা করেন- ‘এবারের সংগ্রাম আমাদের মুক্তির সংগ্রাম…, এবারের সংগ্রাম স্বাধীনতার সংগ্রাম।’

মাত্র ১৯ মিনিটের ভাষণ। এই স্বল্প সময়ে তিনি ইতিহাসের পুরো ক্যানভাসই তুলে ধরেন। তিনি তার ভাষণে সামরিক আইন প্রত্যাহার, জনগণের নির্বাচিত প্রতিনিধিদের কাছে ক্ষমতা হস্তান্তর, গোলাগুলি ও হত্যা বন্ধ করে সেনাবাহিনীকে ব্যারাকে ফিরিয়ে নেয়া এবং বিভিন্ন স্থানের হত্যাকাণ্ডের তদন্তে বিচার বিভাগীয় কমিশন গঠনের দাবি জানান।

বঙ্গবন্ধু বলেন, ‘ভাইয়েরা আমার, আমি প্রধানমন্ত্রীত্ব চাই না, মানুষের অধিকার চাই। প্রধানমন্ত্রীত্বের লোভ দেখিয়ে আমাকে নিতে পারেনি। ফাঁসির কাষ্ঠে ঝুলিয়ে দিতে পারেনি। আপনারা রক্ত দিয়ে আমাকে ষড়যন্ত্র-মামলা থেকে মুক্ত করে এনেছিলেন। সেদিন এই রেসকোর্সে আমি বলেছিলাম, রক্তের ঋণ আমি রক্ত দিয়ে শোধ করবো। আজো আমি রক্ত দিয়েই রক্তের ঋণ শোধ করতে প্রস্তুত।’

বঙ্গবন্ধুর ভাষণের সর্বশেষ দু’টি বাক্য, যা পরবর্তীতে বাঙালির স্বাধীনতার চূড়ান্ত লড়াইয়ের দিক-নির্দেশনা ও প্রেরণার হাতিয়ারে পরিণত হয়েছে। বঙ্গবন্ধু বলেন, ‘রক্ত যখন দিয়েছি রক্ত আরো দেব। এ দেশের মানুষকে মুক্ত করে ছাড়বো ইনশাআল্লাহ। এবারের সংগ্রাম আমাদের মুক্তির সংগ্রাম, এবারের সংগ্রাম স্বাধীনতার সংগ্রাম। জয়বাংলা।’

 

 

টাইমস/এসআই

১১ দফা দাবিতে ধর্মঘটে সাকিব-তামিমরা, অনিশ্চিত ভারত সফর

১১ দফা দাবিতে ধর্মঘটে সাকিব-তামিমরা, অনিশ্চিত ভারত সফর

ক্রিকেটারদের দীর্ঘদিনের চাপা ক্ষোভ এবার বাস্তবে রূপ নিলো। পারিশ্রমিক বাড়ানোসহ

শুল্কফাঁকি: বিএনপির এমপি হারুনের ৫ বছর কারাদণ্ড

শুল্কফাঁকি: বিএনপির এমপি হারুনের ৫ বছর কারাদণ্ড

বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব ও চাঁপাইনবাবগঞ্জ-৩ আসনের সংসদ সদস্য হারুন অর

রাজশাহীতে ট্রেনে কাটা পড়ে বাবা-মেয়ের মৃত্যু

রাজশাহীতে ট্রেনে কাটা পড়ে বাবা-মেয়ের মৃত্যু

রাজশাহীতে ট্রেনে কাটা পড়ে বাবা ও মেয়ের প্রাণহানির ঘটনা ঘটেছে।

আন্তর্জাতিক

প্রথম পাতা কালোকালিতে ঢেকে ‘অভিনব’ প্রতিবাদ অস্ট্রেলিয়ার পত্রিকাগুলির

প্রথম পাতা কালোকালিতে ঢেকে ‘অভিনব’ প্রতিবাদ অস্ট্রেলিয়ার পত্রিকাগুলির

সেন্সরশিপের বিরুদ্ধে অভিনব পন্থায় প্রতিবাদ জানিয়ে প্রথম পাতার শব্দগুলি কালো কালিতে মুছে দিয়ে পত্রিকা প্রকাশ করল অস্ট্রেলিয়ার সংবাদপত্রগুলি। খবর: ডয়েচেভেলে ও বিবিসি।

বিনোদন

অভিনয়ে নেই, ভারসাম্যহীন হয়ে রাস্তায় ঘুরছেন সারিকা!

অভিনয়ে নেই, ভারসাম্যহীন হয়ে রাস্তায় ঘুরছেন সারিকা!

অভিনেত্রী সারিকা সাবরিন। শেষ গত ঈদে নাটকে অভিনয় করেছিলেন তিনি। এরপর থেকে আর সারিকার হদিস মিলেনি। পুরোপুরি মিডিয়া ও সংবাদমাধ্যমকর্মীদের এড়িয়ে চলেছেন তিনি।

জাতীয়

ভোলায় সভা-সমাবেশ নিষিদ্ধ, পাঁচ হাজার জনের বিরুদ্ধে মামলা

ভোলায় সভা-সমাবেশ নিষিদ্ধ, পাঁচ হাজার জনের বিরুদ্ধে মামলা

আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখার স্বার্থে ভোলা জেলায় সব ধরনের সভা-সমাবেশ নিষিদ্ধ করেছে জেলা প্রশাসন। এছাড়া বোরহানউদ্দিনে সহিংসতার ঘটনায় অজ্ঞাত ৫ হাজার জনকে আসামি করে মামলা করেছে পুলিশ।

আইন আদালত

যুদ্ধাপরাধের মামলা: ঝিনাইদহে আ.লীগ নেতাসহ দুইজন গ্রেপ্তার   

যুদ্ধাপরাধের মামলা: ঝিনাইদহে আ.লীগ নেতাসহ দুইজন গ্রেপ্তার  

ঝিনাইদহে ১৯৭১ সালে যুদ্ধাপরাধের অভিযোগে দায়ের হওয়া মামলায় ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতিসহ দুইজনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। সোমবার দুপুরে সদর উপজেলার নারায়ণপুর বাজার ও হলিধানী বাজার থেকে তাদের গ্রেপ্তার করা হয়।

বিনোদন

হুমায়ূন সাধুর অবস্থা সঙ্কটাপন্ন, দোয়া চেয়েছেন ফারুকী

হুমায়ূন সাধুর অবস্থা সঙ্কটাপন্ন, দোয়া চেয়েছেন ফারুকী

হুমায়ূন সাধু। তিনি একজন নির্মাতা ও অভিনেতা। বর্তমানে এ শিল্পী গুরুতর অসুস্থ অবস্থায় লাইফ সাপোর্টে আছেন। রোববার (২০ অক্টোবর) দিবাগত রাত ২টার দিকে তাকে রাজধানীর স্কয়ার হাসপাতালের ইনটেনসিভ কেয়ার ইউনিটে (আইসিইউ)তে ভর্তি করা হয়। সেখানে তিনি ডাক্তার কৃষ্ণা প্রভুর তত্ত্বাবধানে রয়েছেন। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন গুণী নির্মাতা মোস্তফা সরয়ার ফারুকী।

বিনোদন

হাত ধরে ‘হাটা’ কি প্রেম?

হাত ধরে ‘হাটা’ কি প্রেম?

জনপ্রিয় টিভি অভিনেত্রী মেহজাবিন। একটা বিষয় নিয়ে বারবার গণমাধ্যমে খবরের খোরাক হচ্ছেন তিনি। নাট্য নির্মাতা আদনান আল রাজিবের সাথে তার প্রেমের গুঞ্জন! এই নিয়ে বহুদিন ধরে খবরের শিরোনাম হচ্ছেন মেহজাবিন।