• ঢাকা, বাংলাদেশ
  • বৃহস্পতিবার, ২৮ মে ২০২০, ১৪ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭

গোপালগঞ্জের ভিসির বিরুদ্ধে ঢাকায় বিক্ষোভ

গোপালগঞ্জের ভিসির বিরুদ্ধে ঢাকায় বিক্ষোভ

নিজস্ব প্রতিবেদক২২ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ০৬:০৬পিএম, ঢাকা-বাংলাদেশ।

গোপালগঞ্জের বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (বশেমুরবিপ্রবি) উপাচার্য খোন্দকার নাসির উদ্দিনের পদত্যাগের দাবিতে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় এলাকায় বিক্ষোভ হয়েছে।

ক্ষমতার অপব্যবহারের অভিযোগে উপাচার্য নাসিরের পদত্যাগ দাবিতে আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের ওপর শনিবার সন্ত্রাসীদের হামলায় অন্তত ২০ জন আহত হয়েছেন। উপাচার্য বহিরাগতদের দিয়ে এই হামলা চালিয়েছেন বলে অভিযোগ শিক্ষার্থীদের।

এই হামলার প্রতিবাদে রোববার টিএসসির রাজু ভাস্কর্যের সামনে বিক্ষোভ অনুষ্ঠিত হয়। বিক্ষোভের এক পর্যায়ে ওই উপাচার্যের কুশপুত্তলিকা দাহ করা হয়। অবিলম্বে তাকে উপাচার্যের পদ থেকে সরিয়ে দেয়ার দাবি জানান বিক্ষোভকারীরা।

ঢাকার বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে কর্মরত বশেমুরবিপ্রবি প্রায় ৩০ জন প্রাক্তন শিক্ষার্থী মানববন্ধনে অংশ নিয়ে উপাচার্যের পদত্যাগ দাবি করেন।

‘ভিসির পেটোয়াবাহিনীর অবিলম্বে গ্রেপ্তার চাই’, ‘সন্ত্রাসী হামলায় প্রশাসন চুপ কেন’, ‘আমার ভাই বোনের রক্ত ঝরালে কেন, জবাব চাই জবাব চাই’সহ বিভিন্ন স্লোগান লেখা প্ল্যাকার্ড নিয়ে মানববন্ধনে দাঁড়ান তারা।

বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের ওপর যে বর্বরোচিত হামলা করা হয়েছে তার বিচারের দাবিতে এখানে দাঁড়িয়েছেন বলে জানান মানববন্ধনে অংশ নেয়া কয়েকজন।

বুয়েটে মাস্টার্সে অধ্যয়নরত সেখানকার সাবেক শিক্ষার্থী মো. কামরুল ইসলাম বলেন, ভিসি নাসির উদ্দিন বঙ্গবন্ধুর পূণ্যভূমিতে থাকতে পারেন না। তিনি একটি গুরুত্বপূর্ণ পদকে কলুষিত করেছেন। আমরা এ ভিসির পদত্যাগ চাই।

এই মানববন্ধন শেষ হওয়ার কিছুক্ষণের মধ্যে রাজু ভাস্কর্যের সামনে সমবেত হয়ে ভিসি নাসির উদ্দিনের কুশপুত্তলিকা দাহ করেন মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চের সদস্যরা।

একটি ফেসবুক পোস্টকে কেন্দ্র করে গত ১১ সেপ্টেম্বর বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন বিভাগের দ্বিতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী সাংবাদিক ফাতেমা-তুজ-জিনিয়াকে বহিষ্কার করা হয়। এরপর থেকেই উপাচার্য নাসিরের বিরুদ্ধে শিক্ষার্থীদের আন্দোলন শুরু হয়। এর মধ্যে জিনিয়া ও উপাচার্যের কথোপকথনের একটি অডিও ভাইরাল হয়, যেখানে ওই ছাত্রীকে বকাঝকা ও হুমকি-ধমকি দিতে শোনা যায় উপাচার্যকে। মেয়েটির বাবাকে নিয়েও তীর্যক মন্তব্য করেন তিনি।

শিক্ষার্থীদের বিক্ষোভের মুখে বুধবার জিনিয়ার বহিষ্কারাদেশ প্রত্যাহার করে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ। পরদিন বিশ্ববিদ্যালয়ের পক্ষ থেকে ১৪টি বিষয়ে আশ্বাস দেয়া হয়, যার মধ্যে সাধারণ শিক্ষার্থীদের বাকস্বাধীনতার নিশ্চয়তা, ক্ষমার অযোগ্য অপরাধ ছাড়া বহিষ্কার না করা, অভিভাবকদের ডেকে এনে অপমান না করা এবং ফেসবুক পোস্ট ও কমেন্টকে কেন্দ্র করে কোনো শিক্ষার্থীকে বহিষ্কার করা হবে না বলে বলা হয়।

তবে এতে সন্তুষ্ট না হয়ে শিক্ষার্থীরা উপাচার্যের পদত্যাগের দাবিতে অনশনসহ আন্দোলন অব্যাহত রাখেন, যার প্রেক্ষিতে শনিবারের ওই হামলা হয়।

 

টাইমস/এসআই

ইউনাইটেড হাসপাতালে আগুনে ৫ করোনা রোগীর মৃত্যু

ইউনাইটেড হাসপাতালে আগুনে ৫ করোনা রোগীর মৃত্যু

গুলশানে ইউনাইটেড হাসপাতালের করোনা ইউনিটে অগ্নিকাণ্ড হয়েছে। বুধবার রাত ৯টা

করোনায় আক্রান্ত হচ্ছেন শিল্পপতিরা, এপর্যন্ত ৪ জনের মৃত্যু

করোনায় আক্রান্ত হচ্ছেন শিল্পপতিরা, এপর্যন্ত ৪ জনের মৃত্যু

যোবায়ের মোহাম্মদ : করোনাভাইরাসে প্রতিদিন বাড়ছে আক্রান্তের সংখ্যা। দীর্ঘ হচ্ছে

বিসিএসে অপেক্ষমানের আরও ২ হাজার চিকিৎসক নিয়োগ!

বিসিএসে অপেক্ষমানের আরও ২ হাজার চিকিৎসক নিয়োগ!

করোনাভাইরাসের সংক্রমণ দিনে দিনে বাড়ছে। এ অবস্থায় রোগীদের চিকিৎসা নিয়ে

জাতীয়

করোনায় আরও ২২ জনের মৃত্য, আক্রান্ত ১৫৪১

করোনায় আরও ২২ জনের মৃত্য, আক্রান্ত ১৫৪১

দেশে করোনাভাইরাস সংক্রমণের ৮১তম দিনে কোভিড-১৯ এ আক্রান্ত হয়ে আরও ২২ জনের মৃত্যু হয়েছে। এ নিয়ে দেশে মোট মৃত্যুর সংখ্যা গিয়ে দাড়াল ৫৪৪ জন।

রাজনীতি

খালেদা জিয়া এখনও হোম কোয়ারেন্টিনে আছেন -ফখরুল

খালেদা জিয়া এখনও হোম কোয়ারেন্টিনে আছেন -ফখরুল

বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া এখনও হোম কোয়ারেন্টিনে আছেন বলে জানিয়েছেন দলটির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। দেশে করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাব শুরু হওয়ার পরপরই খালেদা জিয়াকে শর্ত সাপেক্ষে ছয় মাসের জামিন দেয় আদালত।

জাতীয়

নারায়ণগঞ্জে বিদ্যুৎস্পৃষ্টে দুই সন্তানসহ মায়ের মৃত্যু

নারায়ণগঞ্জে বিদ্যুৎস্পৃষ্টে দুই সন্তানসহ মায়ের মৃত্যু

ঝড়ের আঘাতে বিদ্যুতের তার ছিঁড়ে টিনের ঘরের ওপর পড়ে বিদ্যুৎস্পৃষ্টে দুই সন্তানসহ গৃহবধূর মৃত্যুর হয়েছে। এ ঘটনায় বিদ্যুতায়িত হয়ে আহত হয়েছেন আরও ৫ জন।

জাতীয়

বজ্রপাত থেকে রক্ষার উপায়

বজ্রপাত থেকে রক্ষার উপায়

তীব্র গরমে স্বস্তি এনে দেয় বৃষ্টি। কিন্তু এই স্বস্তির বৃষ্টির সঙ্গে আসা বজ্রপাত বিপর্যয়ের কারণ হয়ে দাঁড়ায়। আমাদের দেশে মার্চ থেকে অক্টোবর পর্যন্ত বজ্রপাত হয়ে থাকে। এর মধ্যে এপ্রিল ও মে মাসে বজ্রপাত তুলনামূলকভাবে বেশি হয়। আর এই বজ্রপাতে প্রায়শই প্রাণহানির শিকার হচ্ছেন দেশের মানুষ।

যা কিছু প্রথম

তালাচাবি আবিষ্কারের ইতিহাস

তালাচাবি আবিষ্কারের ইতিহাস

যবে থেকে মানুষের কিছু জিনিসপত্র সম্বল হল, তবে থেকেই সেগুলোকে আগলে রাখার প্রবণতা এসে গেল। প্রথম প্রথম তালাচাবি বলতে শুধু দড়ি বা অন্য কিছু দিয়ে বেঁধে রাখা হতো। সময়ের সঙ্গে সঙ্গে সত্যিকারের তালাচাবি ব্যবহার করতে শুরু করল মানুষ। সেগুলো কাঠ বা ধাতুর তৈরি। ঠিক কে বা কোনো সভ্যতায়ে প্রথম তালাচাবি ব্যবহার হয়েছিল সেটা সঠিকভাবে জানা যায়নি।

বিনোদন

লকডাউনে কাজ নেই, নিজের প্রাণটাই দিয়ে দিলেন অভিনেত্রী!

লকডাউনে কাজ নেই, নিজের প্রাণটাই দিয়ে দিলেন অভিনেত্রী!

করোনাভাইরাসে লকডাউনের কারণে কোন কাজ নেই। একারণে হতাশায় পড়ে আত্মহত্যা করেছেন এক অভিনেত্রী।