• ঢাকা, বাংলাদেশ
  • শুক্রবার, ১৮ অক্টোবর ২০১৯, ২ কার্তিক ১৪২৬

সুইজ্যারল্যান্ডে ইভিএমে ভোট নিয়ে বিতর্ক

সুইজ্যারল্যান্ডে ইভিএমে ভোট নিয়ে বিতর্ক

আন্তর্জাতিক ডেস্ক২৬ মার্চ ২০১৯, ১২:৩৭পিএম, ঢাকা-বাংলাদেশ।

সুইজারল্যান্ডে এখন চলছে ইভিএম নিয়ে জোর বিতর্ক। দেশটির সরকার চায় আসন্ন অক্টোবরের নির্বাচনে ২৬টি প্রদেশের অন্তত দুই-তৃতীয়াংশ অংশে ব্যবহৃত হোক ইভিএম। কিন্তু অনেকেই ইভিএমের বিশ্বাসযোগ্যতা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন।

অগত্যা সরকারের তরফ থেকে ঘোষণা করা হয়েছে, ২৪ ফেব্রুয়ারি থেকে ২৪ মার্চের মধ্যে কোনো ব্যক্তি বা সংগঠন যদি প্রমাণ করতে পারেন যে, ইভিএমে কারচুপি করা সম্ভব, তা হলে সরকারের তরফ থেকে তাকে ৫০ হাজার সুইস ফ্রাঁ (প্রায় ৪২ লাখ ৩৭ হাজার টাকা) পুরস্কার দেওয়া হবে।

একে বলা হচ্ছে ‘পাবলিক ইনটিউশন টেস্ট’। যত দিন না এই বিতর্ক মিটছে, তত দিন এ দেশের ভোট মূলত কাগজের ব্যালটেই।

সুইজারল্যান্ডে গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল ভারতবর্ষের বহু আগে, সেই ১৮৪৮ সালে। তবে নারীদের ভোটাধিকারের ক্ষেত্রে সুইজারল্যান্ড অনেকটাই পিছিয়ে। ১৯৭১ সালে সুইজারল্যান্ডের নারীরা প্রথম ভোটাধিকার পান। ইন্দিরা গান্ধী তখন ভারতের প্রধানমন্ত্রী।

সুইজারল্যান্ডও যুক্তরাষ্ট্রীয় কাঠামোর দেশ। তবে প্রদেশগুলোর হাতে ক্ষমতা অনেকটাই বেশি। প্রত্যেক প্রদেশেরই আছে নিজস্ব সংবিধান, আইনসভা, আদালত, এমনকি পতাকাও। কেন্দ্রীয় সরকারের নীতি প্রণয়নের ক্ষমতা মূলত মুদ্রানীতি, পররাষ্ট্রনীতি, প্রতিরক্ষা, সামাজিক  নিরাপত্তার মতো বিষয়গুলোতে সীমাবদ্ধ।

 সুইজারল্যান্ডের নির্বাচনী পদ্ধতি

প্রতি চার বছর অন্তর হয় কেন্দ্রীয় নির্বাচন। যেখানে জনগণ বেছে নেন ২৪৬ জন জনপ্রতিনিধিকে। তারা নির্বাচন করেন সাত সদস্যের এক কেন্দ্রীয় মন্ত্রিসভা। আর এই কেন্দ্রীয় মন্ত্রিসভার সদস্যদের মধ্যে প্রত্যেক বছর একজন করে সামলান প্রেসিডেন্ট অর্থাৎ আলঙ্কারিক রাষ্ট্রনেতা পদটির দায়িত্ব। এ দেশে ভিআইপি সংস্কৃতি নেই। ফলে নেতাদের বিশেষ কোনো কনভয় নেই। কেউই নিরাপত্তারক্ষী নিয়ে চলাফেরা করেন না। ট্রেনে বা বাসে কেন্দ্রীয় মন্ত্রিসভার সদস্যদের সঙ্গে দেখা হয়ে যাওয়াটা এ দেশে অস্বাভাবিক নয়।

সুইজারল্যান্ডের আরও একটি অভিনব বিষয় হচ্ছে— ‘ডিরেক্ট ডেমোক্র্যাসি’ অর্থাৎ প্রত্যক্ষ গণতন্ত্র। যে কোনো নীতি প্রণয়নের ক্ষেত্রে জনগণের অনুমোদন বাধ্যতামূলক। অর্থাৎ গণভোট আবশ্যিক। সরকার প্রণোদিত নীতির বিরুদ্ধে যদি ১০০ দিনের মধ্যে ৫০ হাজার স্বাক্ষর সংগ্রহ হয়, তা হলেই গণভোট হবে। স্বাভাবিকভাবেই ভোটের বিষয়েরও অভাব নেই এই দেশে। ধর্মস্থানে গম্বুজ থাকবে কি না, বোরকা পরা যাবে কি না, ঘরে বন্দুক রাখা যাবে কি না, রেস্তোরাঁয় সিগারেট খাওয়া যাবে কি না, রবিবার দোকান খোলা থাকবে কি না— ইত্যাদি হরেক রকম বিষয়।

গতবছর এ রকমই একটি আপাত অদ্ভুত এক প্রস্তাব নিয়ে ভোট হলো। যেসব কৃষকের শিং-ওয়ালা গবাদি পশু আছে, তাদের সরকারের তরফ থেকে ভর্তুকি দিতে হবে। ৪৫ শতাংশ ভোট পেয়ে হেরে যান প্রস্তাবকারীরা।

এত বিষয়, এত ভোট, অথচ নির্বাচনের কোনো উত্তাপ নেই। মিছিল, মিটিং, সমাবেশ, দেয়াল লিখন, মাইক লাগিয়ে জনসভা প্রায় নেই বললেই চলে। সাধারণ নির্বাচন মানে, হোর্ডিংয়ে প্রার্থীর নাম ও পরিচিতি, টেলিভিশন বিতর্ক, পোস্টবক্সে বিভিন্ন দলের লিফলেট, জনবহুল এলাকায় ছোটখাটো সভা, ওইটুকুই। বিজয় মিছিলও দেখা যায় না। না বোঝা যায়, জেতার উচ্ছ্বাস, না ধরা পড়ে হারের হতাশা।

 

সূত্র: আনন্দবাজার

 

টাইমস/এসআই

সীমান্তে বিএসএফ জওয়ান নিহতের ঘটনা অনাকাঙ্ক্ষিত: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

সীমান্তে বিএসএফ জওয়ান নিহতের ঘটনা অনাকাঙ্ক্ষিত: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

রাজশাহীর চরঘাট সীমান্তে  বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি) ও ভারতীয় সীমান্তরক্ষী...

সাঈদকে কাউন্সিলর পদ থেকে অপসারণ

সাঈদকে কাউন্সিলর পদ থেকে অপসারণ

ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের (ডিএসসিসি) ৯ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর মমিনুল...

পদ্মা সেতুর ৮৪ শতাংশ কাজ সম্পন্ন: ওবায়দুল কাদের

পদ্মা সেতুর ৮৪ শতাংশ কাজ সম্পন্ন: ওবায়দুল কাদের

সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, পদ্মা সেতুর বাস্তব...

আন্তর্জাতিক

বিজিবি-বিএসএফ সংঘর্ষে ভারতীয় সীমান্তরক্ষী নিহত

বিজিবি-বিএসএফ সংঘর্ষে ভারতীয় সীমান্তরক্ষী নিহত

ভারতের মুর্শিদাবাদ সীমান্তে বিএসএফ ও বিজিবির মধ্যে গুলিবিনিময়ের ঘটনায় একজন বিসিএফ সদস্য নিহত হয়েছে বলে ভারত দাবি করেছে। খবর বিবিসির। বিএসএফের দক্ষিণবঙ্গ সীমান্ত অঞ্চলের ডিআইজি এসএস গুলেরিয়া বলেন, বিজিবির গুলিতে এক বিএসএফ সদস্য নিহত হয়েছেন। 

খেলাধুলা

বাংলাদেশের ফুটবলের উন্নয়নে পাশে থাকবে ফিফা

বাংলাদেশের ফুটবলের উন্নয়নে পাশে থাকবে ফিফা

বাংলাদেশ সফরে এসে ফেডারেশন ইন্টারন্যাশনাল ডি ফুটবল অ্যাসোসিয়েশন (ফিফা)’র সভাপতি জিয়ান্নি ইনফান্তিনো বলেছেন, বাংলাদেশের ফুটবলের উন্নয়নে আমরা আমাদের সমর্থন এবং সহযোগিতা অব্যাহত রাখব। বৃহস্পতিবার সকালে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে ফিফা সভাপতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে সৌজন্য সাক্ষাতে এসে এ কথা বলেন। বৈঠকের পরে প্রধানমন্ত্রীর প্রেস সচিব ইহসানুল করিম সাংবাদিকদের ব্রিফ করেন।

অর্থনীতি

গ্রামীণফোনের কাছে বিটিআরসির পাওনা আদায়ে হাইকোর্টের নিষেধাজ্ঞা

গ্রামীণফোনের কাছে বিটিআরসির পাওনা আদায়ে হাইকোর্টের নিষেধাজ্ঞা

মোবাইল অপারেটর কোম্পানি গ্রামীণফোনের কাছে বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশনের (বিটিআরসি) দাবি করা ১২ হাজার ৫৮০ কোটি টাকা আদায়ের ওপর দুই মাসের স্থগিতাদেশ দিয়েছেন হাইকোর্ট। একই সঙ্গে আদালত আগামী ৫ নভেম্বর আপিল শুনানির জন্য দিন ধার্য করেছেন। বৃহস্পতিবার বিচারপতি এ কে এম আবদুল হাকিম ও ফাতেমা নজীবের সমন্বয়ে গঠিত বেঞ্চ অন্তর্বর্তীকালীন এই আদেশ দেন।

বিনোদন

মৌসুমী-মিশার পাল্টাপাল্টি অভিযোগ, নির্বাচন কমিশনার যা বললেন

মৌসুমী-মিশার পাল্টাপাল্টি অভিযোগ, নির্বাচন কমিশনার যা বললেন

দেশের জাতীয় নির্বাচনের মত শিল্পী সমিতির নির্বাচনেও বাড়ছে দিন দিন উত্তেজনা। একে অন্যের দিকে অভিযোগের আঙুল তুলছেন বেশ জোরেশোরে। কেউ বলছেন, অমুখ আমাকে ধাক্কা দিয়ে বিএফডিসি থেকে বের করে দিয়েছেন, আবার কেউ বলছেন, বহিরাগতদের নিয়ে বিএফডিসিতে মিছিল করছেন।

জাতীয়

ডিসির কাছে ঘুষ দাবি, বরখাস্ত হলেন ভূমি কর্মকর্তা

ডিসির কাছে ঘুষ দাবি, বরখাস্ত হলেন ভূমি কর্মকর্তা

জমির নামজারি করতে অতিরিক্ত টাকা দাবি করায় সাতক্ষীরা সদর উপজেলার ধুলিহর ইউনিয়ন ভূমি অফিসের এক কর্মকর্তাকে সাময়িক বরখাস্ত করেছেন জেলা প্রশাসক এসএম মোস্তফা কামাল। বৃহস্পতিবার বিকালে মোকলেস আলী নামে ওই ভূমি কর্মকর্তাকে বরখাস্ত করা হয়। জানা যায়, ফাহাদ হোসেন নামে স্থানীয় এক ব্যক্তি বৃহস্পতিবার দুপুরে নিজের জমির নামজারি করাতে কাগজপত্র নিয়ে ভূমি অফিসে যান। অফিসে গেলেই কাগজপত্র দেখে পাঁচ হাজার টাকা ঘুষ চেয়ে বসেন ভূমি কর্মকর্তা মোকলেস আলী।

বিনোদন

একটি নোটিশের ব্যাপারেও জানেন না সদ্য বিলুপ্ত কমিটির সদস্যরা!

একটি নোটিশের ব্যাপারেও জানেন না সদ্য বিলুপ্ত কমিটির সদস্যরা!

সামনে শিল্পী সমিতির নির্বাচন। একে ঘিরে এরই মধ্যে শোরগোল চলছে বিএফডিসিতে। পক্ষ-বিপক্ষ দল একে-অপরের বিরুদ্ধে নানা অভিযোগ আনছেন। তবে এই নির্বাচনকে ঘিরে একটি অভিযোগ আসছে চতুর্দিক থেকে।