• ঢাকা, বাংলাদেশ
  • শুক্রবার, ১০ জুলাই ২০২০, ২৬ আষাঢ় ১৪২৭

রোহিঙ্গা গ্রাম বলে কিছুই অবশিষ্ট নেই!

রোহিঙ্গা গ্রাম বলে কিছুই অবশিষ্ট নেই!

আন্তর্জাতিক ডেস্ক১০ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ০৪:৩২পিএম, ঢাকা-বাংলাদেশ।

মিয়ানমারের আরাকান রাজ্য থেকে রোহিঙ্গাদের বিতাড়নের পর সেখানে ব্যাপকভাবে উন্নয়ন প্রকল্প বাস্তবায়ন করেছে দেশটির সরকার। গ্রামগুলোতে পুলিশ ব্যারাক, সরকারি ভবন ও শরণার্থী ক্যাম্প নির্মাণ করা হয়েছে। ফলে রোহিঙ্গাদের পুরনো গ্রাম বলে কিছুই এখন আর অবশিষ্ট নেই।

সম্প্রতি স্যাটেলাইটের ছবি ও রিপোর্টারদের সরেজমিন প্রতিবেদনের বরাত দিয়ে এমনটি দাবি করেছে আন্তর্জাতিক সংবাদ মাধ্যম বিবিসি।

স্যাটেলাইট চিত্র থেকে বিবিসি জানায়, কমপক্ষে চারটি রোহিঙ্গা গ্রামকে পুরোপুরি সরকারি অবকাঠামোতে রূপান্তর করা হয়েছে।

এর আগে মার্কিন সংবাদ মাধ্যম ইউরো এশিয়া রিভিউ ২০১৮ সালের মার্চের শুরুতে জানায়,২০১৭ সালের শেষ থেকে মিয়ানমার সরকার ভারী যন্ত্রপাতি ব্যবহার করে কমপক্ষে ৪৫৫টি গ্রামের সব অবকাঠামো ও ফসলের ক্ষেত ধ্বংস করে দেয়।

চলতি বছরের জানুয়ারিতে অ্যামনেস্টির সবশেষ গবেষণায় রাখাইনে রোহিঙ্গাদের বহু  গ্রাম জ্বালিয়ে ও  বুলডোজারে  গুড়িয়ে দেওয়ার আলামত উঠে আসে। ফেব্রুয়ারিতে মানবাধিকার সংস্থা হিউম্যান রাইটস ওয়াচ দাবি করে, মিয়ানমার সেনাবাহিনী অর্ধশতাধিক গ্রাম বুলডোজার দিয়ে গুঁড়িয়ে দিয়েছে। ওই বছর মার্চের শুরুতে নতুন করে অ্যামনেস্টির দেওয়া বিবৃতি থেকে অন্তত  ৩টি সামরিক ঘাঁটি ও রাস্তাঘাট নির্মাণ চলমান থাকার কথা জানা যায়। এবার বিবিসির প্রতিবেদনেও গ্রাম নিশ্চিহ্ন করে সরকারি অবকাঠামো নির্মাণের প্রমাণ উঠে এলো।

বিবিসির খবরে বলা হয়, রাখাইন রাজ্যে প্রবেশাধিকার কঠোরভাবে নিয়ন্ত্রিত।সরকারি একটি গাড়ি বহরে করে সংবাদকর্মীদের সেখানে নিয়ে যাওয়া হয়।তবে তাদের কেউই পুলিশের অনুপস্থিতিতে কোনো ভিডিও ধারণ বা সাক্ষাৎকার গ্রহণ করতে পারেননি।যদিও সবাই খালি চোখেই দেখতে পারছিলেন কিভাবে রোহিঙ্গা বসতিগুলো থেকে তাদের চিহ্ন মুছে ফেলা হয়েছে।

মিয়ানমারের সরকারি কর্তৃপক্ষ হ্লা পো কং নামের একটি ট্রানজিট ক্যাম্পে নিয়ে যায় সংবাদকর্মীদের।সেখানে ২৫ হাজার রোহিঙ্গাকে রাখার পরিকল্পনা রয়েছে বলে জানিয়েছে মিয়ানমার।নিজ এলাকায় ফেরত যাওয়ার আগে দুই মাস এখানে কাটাতে হবে রোহিঙ্গাদের।এক বছর আগে বানানো এই ক্যাম্পটির অবস্থা এখনই শোচনীয়।কমিউনিটি টয়লেটগুলো এরই মধ্যে ভেঙে পড়েছে।হো রি তু লার এবং থার জায় কোন নামের দুইটি রোহিঙ্গা গ্রাম সম্পূর্ণ ধ্বংস করে এই ক্যাম্পটি তৈরি করা হয়।

বিবিসির পক্ষ থেকে ওই ক্যাম্পের প্রশাসকের কাছে গ্রামগুলো ধ্বংসের ব্যাপারে জানতে চাওয়া হয়েছিল।তিনি দাবি করেন, কোনো গ্রাম ধ্বংস করা হয়নি।কৃত্রিম উপগ্রহের ছবি দেখানোর পর তিনি বলেন, এই চাকরিতে তিনি নতুন।তাই সব তথ্য তিনি জানেন না।

এরপর সংবাদকর্মীদের নিয়ে যাওয়া হয় কেইন চং নামের একটি স্থানান্তর ক্যাম্পে।যেখানে জাপান ও ভারত সরকারের অর্থায়নে ফেরত আসা রোহিঙ্গাদের জন্য স্থায়ী আবাসন তৈরি করা হয়েছে।কৃত্রিম উপগ্রহের ছবি বিশ্লেষণ করে দেখা যায়, ম্যার জিন নামের একটি রোহিঙ্গা গ্রাম সম্পূর্ণ গুঁড়িয়ে দিয়ে স্থানান্তর ক্যাম্পটি তৈরি করা হয়েছে।এই গ্রামটি মিয়ানমারের বর্ডার গার্ড পুলিশের একটি ব্যারাকের খুব কাছাকাছি।নাম প্রকাশ না করার শর্তে কয়েকজন পুলিশ ম্যার জিন গ্রামটি ধ্বংসের কথা স্বীকার করেছেন।

মং ডু শহরের খুব কাছেই ম্যেও থু জি নামের অন্য একটি গ্রামে প্রায় ৮ হাজার রোহিঙ্গা বসতি ছিল।২০১৭ সালে গ্রামটিতে ব্যাপকভাবে আগুন লাগিয়ে দেওয়া হয়, জ্বালিয়ে দেওয়া হয় রোহিঙ্গাদের ঘরবাড়ি।আবার রাখাইনের গ্রামগুলো ঐতিহ্যগতভাবেই গাছের প্রাচুর্য থাকে।এবার ম্যেও থু জি পাশ কাটিয়ে যাওয়ার সময় কোনো গাছের অস্তিত্বই পাওয়া যায়নি।তবে সেখানে পুলিশ ব্যারাক আর বিশাল বিশাল সরকারি কমপ্লেক্স গড়ে উঠেছে।

এরপর ইন ডিন গ্রামে নিয়ে যাওয়া হয় সংবাদকর্মীদের।এই গ্রামে ১০ জন রোহিঙ্গাকে নির্যাতনের বিষয়টি স্বীকার করেছিল মিয়ানমারের সেনাবাহিনী।গ্রামটির এক-চতুর্থাংশ অধিবাসী রোহিঙ্গা মুসলমান এবং বাকিরা ছিল বৌদ্ধ।কিন্তু বর্তমানে সেখানে রোহিঙ্গা মুসলমানদের কোনো অস্তিত্বই খুঁজে পাননি সাংবাদিকরা।রোহিঙ্গাদের বাড়ির আশেপাশে যে জায়গাগুলোতে আগে গাছ ছিল, সেখানে এখন নতুন করে কাঁটাতারের বেড়া দেখা গেছে।স্থানীয় বৌদ্ধরা জানিয়েছেন, তারা কোনোভাবেই রোহিঙ্গা মুসলমানদের তাদের আশেপাশে বসবাস করতে দেবেন না।

 

টাইমস/এমএস 

 

সাবেক স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী সাহারা খাতুন মারা গেছেন

সাবেক স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী সাহারা খাতুন মারা গেছেন

আওয়ামী লীগের সভাপতিমন্ডলীর সদস্য ও সাবেক স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অ্যাডভোকেট সাহারা খাতুন

বন্যার আশঙ্কা, ২৩ জেলায় আশ্রয়কেন্দ্র প্রস্তুত রাখার নির্দেশ

বন্যার আশঙ্কা, ২৩ জেলায় আশ্রয়কেন্দ্র প্রস্তুত রাখার নির্দেশ

দেশের ২৩টি জেলায় আশ্রয়কেন্দ্র প্রস্তুত করতে জেলা প্রশাসকদের (ডিসি) নির্দেশ

তিন পাহাড়ি কন্যার স্বপ্নজয়

তিন পাহাড়ি কন্যার স্বপ্নজয়

পাহাড়েই তাদের শৈশব কেটেছে। শৈশব পেরিয়ে কৈশোরে তাদের স্বপ্নগুলো বড়

জাতীয়

এবার গরুর ধাক্কায় বিকল কুড়িগ্রাম এক্সপ্রেস ট্রেন!

এবার গরুর ধাক্কায় বিকল কুড়িগ্রাম এক্সপ্রেস ট্রেন!

নাটোরে গরুর সাথে ধাক্কা খেয়ে বিকল হয়ে গেছে কুড়িগ্রাম থেকে ছেড়ে আসা ঢাকাগামী ৭৯৮ আন্তনগর কুড়িগ্রাম এক্সপ্রেস ট্রেনটি। বৃহস্পতিবার বেলা

জাতীয়

প্রসব ব্যথায় কাতর স্ত্রীকে অজ্ঞান করে সড়কে রেখে পালালো স্বামী!

প্রসব ব্যথায় কাতর স্ত্রীকে অজ্ঞান করে সড়কে রেখে পালালো স্বামী!

বৃহস্পতিবার সকালে এ মর্মান্তিক ঘটনাটি ঘটেছে ঈশ্বরগঞ্জ উপজেলার কানুরামপুর-ত্রিশাল সড়কের মধুপুর বাজারে একটি মাদরাসার সামনে। রূপার বরাত দিয়ে স্থানীয় মগটুলা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আবু সালেহ মো. বদরুজ্জামান মামুন এসব তথ্য জানান।

জাতীয়

ডা. জাফরুল্লাহকে সংবাদমাধ্যমসহ কারও সঙ্গে কথা না বলার পরামর্শ

ডা. জাফরুল্লাহকে সংবাদমাধ্যমসহ কারও সঙ্গে কথা না বলার পরামর্শ

গলার ব্যথা এখনও ভালো না হওয়ায় গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের প্রতিষ্ঠাতা ও ট্রাস্টি ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরীকে সংবাদমাধ্যমসহ কারও সঙ্গে কথা না বলার পরামর্শ দিয়েছেন তার চিকিৎসকরা।

জাতীয়

করোনা: আক্রান্ত ছাড়াল পৌনে দুই লাখ, মৃত্যু ২২০০

করোনা: আক্রান্ত ছাড়াল পৌনে দুই লাখ, মৃত্যু ২২০০

দেশে গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন করে আরও ৩ হাজার ৩৬০ জনের করোনাভাইরাস শনাক্ত হয়েছে। এ নিয়ে দেশে শনাক্ত রোগীর সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ১ লাখ ৭৫ হাজার ৪৯৪ জনে। এছাড়া একদিনে আরও ৪১ জনের মৃত্যু হয়েছে। এ নিয়ে ভাইরাসটিতে আক্রান্ত হয়ে মোট দুই হাজার ২৩৮ জন মারা গেলেন।

জাতীয়

এমপি পাপুল কুয়েতের নাগরিক নন

এমপি পাপুল কুয়েতের নাগরিক নন

অর্থ ও মানবপাচারের অভিযোগে গ্রেপ্তার এমপি শহিদ ইসলাম পাপুল কুয়েতের নাগরিকত্ব পাননি বলে দেশটির স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়। বৃহস্পতিবার এক বিবৃতিতে এ তথ্য জানিয়েছে দেশটি।

শিল্প ও সাহিত্য

ঘরে বসে মহামারী সম্পর্কিত যেসব মুভি দেখতে পারেন

ঘরে বসে মহামারী সম্পর্কিত যেসব মুভি দেখতে পারেন

বিশ্বজুড়ে ছড়িয়ে পড়া কোভিড-১৯ মহামারীর ফলে ইতিমধ্যে প্রাণ হারিয়েছেন বহু লোক, সংক্রমণের সংখ্যাও প্রতিদিন বেড়েই চলেছে। যুক্তরাষ্ট্রসহ বহু দেশে দেখা দিয়েছে দ্বিতীয় পর্যায়ের মহামারী। দীর্ঘ দিনের লকডাউন, স্কুল-কলেজ বন্ধ থাকা, ব্যবসায় ধস, ক্যারিয়ার নিয়ে শঙ্কা প্রভৃতি নানা কারণে সাধারণ মানুষের দিন কাটছে আতঙ্ক আর উদ্বেগের মধ্য দিয়ে।