• ঢাকা, বাংলাদেশ
  • বুধবার, ২৯ জানুয়ারি ২০২০, ১৬ মাঘ ১৪২৬

আবরারকে নিয়ে কলকাতার তনুশ্রীর পোস্ট ভাইরাল

আবরারকে নিয়ে কলকাতার তনুশ্রীর পোস্ট ভাইরাল

নিজস্ব প্রতিবেদক০৮ অক্টোবর ২০১৯, ০৭:৪৭পিএম, ঢাকা-বাংলাদেশ।

আবরার ফাহাদ বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) তড়িৎ ও ইলেকট্রনিক প্রকৌশল বিভাগের দ্বিতীয় বর্ষের (১৭তম ব্যাচ) ছাত্র ছিলেন। তিনি থাকতেন বুয়েটের শেরেবাংলা হলের নিচতলায় ১০১১ নম্বর কক্ষে। সম্প্রতি ভারত ও বাংলাদেশের মধ্যে হওয়া বিভিন্ন চুক্তি নিয়ে ফেসবুকে দেয়া পোস্টের জের ধরে রোববার রাতে আবরারকে পিটিয়ে হত্যা করেন বুয়েট ছাত্রলীগের একদল নেতা-কর্মী।

এই ঘটনা বাংলাদেশ এখন তুমুল আলোচিত। বিশেষ করে সোশ্যাল মিডিয়াতে অনেকেই তীব্র প্রতিক্রিয়া জানাচ্ছেন আবরার হত্যার প্রতিবাদে। ভারত থেকেও অনেকেই এই ঘটনায় সংহতি প্রকাশ করছেন। তাদেরই একজন কলকাতার তনুশ্রী রায়। তিনি যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়াশুনা করছেন।

আবরারকে নিয়ে সোমবার রাতে তিনি ফেসবুকে একটি পোস্ট দিয়েছেন। যা ইতোমধ্যে ভাইরাল হয়েছে। অনেক বাংলাদেশিই তার পোস্টে কমেন্ট করেছেন।

তনুশ্রী রায় তার ফেসবুক পোস্টে লিখেছেন, ‘যদিও আমি ভারতীয় তারপরও বাংলাদেশের প্রতি আমার আলাদা একটা টান রয়েছে। কারণ আমার পূর্বপুরুষ বাংলাদেশেরই মানুষ ছিলেন ৪৭'র দেশভাগের পর ভারতে চলে আসেন। বাংলাদেশের মানুষ ভালো থাকুক এটা আমি সবসময় চাই।’

‘শুনলাম ভারত-বাংলাদেশের চুক্তি নিয়ে স্ট্যাটাস দেয়ায় একজন বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রকে হত্যা করা হয়েছে। স্ট্যাটাসটা আমি পড়লাম, নিজের দেশের স্বার্থ নিয়ে লিখার জন্য কিভাবে নিজের দেশেরই লোক একটা ছেলেকে এভাবে পিটিয়ে হত্যা করে ফেলে এটা আমার কাছে আশ্চর্য লাগছে।সামান্য ফেসবুক স্ট্যাটাসের কারণে মানুষ খুন করে ফেলা হচ্ছে বাংলাদেশে। কিভাবে এমন একটা দেশে মানুষ বাস করে!’

তনুশ্রীর পোস্টে বিভিন্ন জনের মন্তব্য

আরএন শাওন এ নামে একজন মন্তব্য করেছেন, ‘ভুল দেশে জন্ম আমাদের যেখানে বাক স্বাধীনতা নেই। আপনারা বেঁচে গেছেন এ দেশ ত্যাগ করে।’

আরেকজন লিখেছেন, ‘জন্মদান থেকে বুয়েট পর্যন্ত! চিন্তায় কত রাত নির্ঘুম কাটিয়েছে মা, ছেঁড়া শার্ট আর পুরনো স্যান্ডেলের আড়ালে জমিয়ে রাখা বাবার কত স্বপ্ন। এবার নিশ্চিন্তে ঘুমাও মা, কেড়ে নেয়ার মত কিছুই নেই যে তোমার আর। আজ একটি পিতা অকারণে নিজের কাঁধে বইছেন পুত্রের মৃত লাশ। আজ একটি মা সন্তান হারানোর হাহাকারে বিক্ষত। আমরা আবরারের মৃত্যুর দুর্বল সাক্ষী!’

মো. ফয়সাল আহমেদ নামে একজন মন্তব্য করেছেন, ‘সাগর-রুনি, বিশ্বজিৎ, নুসরাত- কারো হত্যার বিচারই এ দেশে হয়নি। হয়তো আবরার হত্যার বিচারও আমরা পাব না। ফলস্বরূপ একসময় আমাকে এবং আরো অনেককেই এভাবে হত্যার শিকার হতে হবে। আর খুনিরা তাদের আধিপত্য বজায় রাখবে। প্রতিষ্ঠিত হবে স্বপ্নের সোনার বাংলাদেশ।’

 

টাইমস/এসআই

 

গৌরীপুরে বাসচাপায় মা-ছেলেসহ চারজন নিহত

গৌরীপুরে বাসচাপায় মা-ছেলেসহ চারজন নিহত

ময়মনসিংহের গৌরীপুরে যাত্রীবাহী বাসচাপায় মা-ছেলেসহ অটোরিকশার চার যাত্রী নিহত হয়েছেন।

চীনে করোনাভাইরাসে মৃতের সংখ্যা বেড়ে ১৩২

চীনে করোনাভাইরাসে মৃতের সংখ্যা বেড়ে ১৩২

চীনে প্রাণঘাতী করোনাভাইরাসে মৃতের সংখ্যা বেড়ে ১৩২ জনে দাঁড়িয়েছে। সব

যশোরে পৃথক সড়ক দুর্ঘটনায় দুজনের প্রাণহানি

যশোরে পৃথক সড়ক দুর্ঘটনায় দুজনের প্রাণহানি

যশোরে পৃথক সড়ক দুর্ঘটনায় দুজন নিহত হয়েছেন। বুধবার ভোরে যশোর-মাগুরা

জাতীয়

বেগমগঞ্জে দর্জির দোকানে স্কুলছাত্রীকে ধর্ষণ

বেগমগঞ্জে দর্জির দোকানে স্কুলছাত্রীকে ধর্ষণ

নোয়াখালীর বেগমগঞ্জে তৃতীয় শ্রেণির এক স্কুলছাত্রীকে (৮) ধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে। এ ঘটনায় অভিযুক্ত আবুল খায়েরকে (৪৫) আটক করে পুলিশ।

জাতীয়

কলমাকান্দায় আটক ভারতীয় ৬০ গরু ২৮ লাখ টাকায় বিক্রি

কলমাকান্দায় আটক ভারতীয় ৬০ গরু ২৮ লাখ টাকায় বিক্রি

নেত্রকোনার কলমাকান্দায় আটক করা ৬০টি ভারতীয় গরু প্রকাশ্যে নিলামে বিক্রি করা হয়েছে। নিলামে গরুগুলোর মূল্য হয় ২৭ লাখ ৯৪ হাজার ৫০০ টাকা।

বিনোদন

আসিফের টার্গেট ১৫০

আসিফের টার্গেট ১৫০

জনপ্রিয় সংগীতশিল্পী আসিফ আকবর। গত বছর ১০০ গান প্রকাশ করেছেন তিনি। তবে এবার তার টার্গেট ১৫০! এ বছর তিনি ১৫০ গানের মিশনে নেমেছেন। এর মধ্যে ইসলামী সংগীত গাওয়ারও পরিকল্পনা রয়েছে শিল্পীর।

যা কিছু প্রথম

১৮৯৫ সালে নিজের নামে পুরস্কার ঘোষণা দেন আলফ্রেড নোবেল

১৮৯৫ সালে নিজের নামে পুরস্কার ঘোষণা দেন আলফ্রেড নোবেল

ধ্বংসাত্মক ডিনামাইনের আবিষ্কারক আলফ্রেড নোবেল ঊনবিংশ শতাব্দীতে বিশ্বের কাছে নন্দিত হলেও অন্যদের মহান আবিষ্কারকে স্বীকৃতি প্রদানে তার অবদান বিংশ শতাব্দীতে তাকে বিখ্যাত করে তোলে। তার ইচ্ছানুসারে ‘নোবেল পুরস্কার’ প্রবর্তন করা হয়। যাকে বিশ্বের সবচেয়ে সম্মানজনক পুরস্কার হিসেবে বিবেচনা করা হয়।

কৃষি কথা

ছাগল পালন করে স্বাবলম্বী হোন

ছাগল পালন করে স্বাবলম্বী হোন

ক্রমবর্ধমান জনসংখ্যার সঙ্গে তালমিলিয়ে দেশে পোলট্রি ও মৎস্য উৎপাদন দ্রুত বাড়লেও প্রযুক্তিগত জ্ঞানের অভাবে প্রাণিসম্পদ বিশেষ করে ছাগলের উৎপাদন আশানুরূপ বাড়েনি। অথচ ছাগল বাংলাদেশে অন্যতম গৃহপালিত পশু। যা অল্প পুঁজিতে বাড়ির আঙিনার পালন করা যায়। ছাগল পালনে গরু-মহিষের মতো উন্নতমানের খাদ্য আবাসন বা অন্যান্য বিশেষ যত্নের প্রয়োজন হয় না।

স্বাস্থ্য

ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে জলপাইয়ের পাতা

ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে জলপাইয়ের পাতা

আমরা অনেকেই জানি যে, জলপাই এবং জলপাই তেল খাদ্যতালিকায় যুক্ত করলে স্বাস্থ্যের জন্য তা অনেক উপকার বয়ে আনে। উচ্চ অ্যান্টিঅক্সিড্যান্ট সমৃদ্ধ এবং স্বাস্থ্যকর চর্বির পাশাপাশি এগুলি ডায়েটারি ফাইবার বা খাদ্য আঁশে পরিপূর্ণ। নতুন গবেষণায় দেখা যাচ্ছে যে, জলপাইয়ের পাতাও স্বাস্থ্যের জন্য উপকারী।