• ঢাকা, বাংলাদেশ
  • বৃহস্পতিবার, ১৪ নভেম্বর ২০১৯, ২৯ কার্তিক ১৪২৬
হাইকোর্টের নির্দেশ অমান্য

ভেঙে ফেলা ‘জাহাজবাড়ি’ স্থাপনায় নতুন নকশা অনুমোদন না দিতে রাজউককে সরকারের চিঠি  

ভেঙে ফেলা ‘জাহাজবাড়ি’ স্থাপনায় নতুন নকশা অনুমোদন না দিতে রাজউককে সরকারের চিঠি   

তানভীর রায়হান১৯ জুন ২০১৯, ০৯:৪১পিএম, ঢাকা-বাংলাদেশ।

হাইকোর্টের নির্দেশ অমান্য করে ভেঙে ফেলা পুরান ঢাকার ঐতিহ্যবাহী জাহাজবাড়ি স্থাপনায় নতুন নকশা অনুমোদন না দিতে রাজধানী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষকে (রাজউক) চিঠি দিয়েছে সরকার।

গত ১০ এপ্রিল রাজউক চেয়ারম্যান বরাবর চিঠিটি পাঠায় বাংলাদেশ ওয়াক্ফ প্রশাসন। ওই চিঠির একটি কপি বাংলাদেশ টাইমসের হাতে এসেছে।  

ওয়াকফ্ প্রশাসক (অতিরিক্ত সচিব) মো. শহীদুল ইসলাম স্বাক্ষরিত চিঠিতে বলা হয়েছে,  ‘ঢাকা জেলার সাবেক লালবাগ হালে চকবাজার থানাধীন চক সার্কুলার রোডস্থ ২ ও ৩ নম্বর হোল্ডিং চকবাজার, ঢাকা এর সম্পত্তি ওয়াক্ফ সম্পত্তি। উক্ত ওয়াক্ফ সম্পত্তিতে অবস্থিত পুরাতন বিল্ডিং ভেঙে নতুন বিল্ডিং নির্মাণের জন্য অবৈধ কার্যক্রম হচ্ছে মর্মে ২ নং সূত্রোক্ত তদন্ত প্রতিবেদন হতে জানা যায় (ছায়ালিপি সংযুক্ত)। 

চকবাজারের ঐতিহ্যবাহী ‘জাহাজবাড়ি’ না ভাঙতে জিডি

এমতাবস্থায় উক্ত ওয়াক্ফ সম্পত্তিতে অবস্থিত পুরাতন বিল্ডিং ভেঙে নতুন বিল্ডিং নির্মাণের নিমিত্ত সরকারের অনুমতি ব্যতিত নকশা অনুমোদন না করার জন্য অনুরোধ করা হলো।’

২০১৮ সালের ১৩ আগস্ট আরবান স্টাডি গ্রুপের (ইউএসজি) করা এক রিট আবেদনের রায়ে ঢাকার ঐতিহ্যবাহী ২২শ ভবন না ভাঙতে নির্দেশ দিয়েছিলেন হাইকোর্ট।

এমনকি এসব স্থাপনা/ভবনের মালিকরাও এতে কোনো ধরনের পরিবর্তন ও পরিবর্ধন করতে পারবেন না বলে রায়ে উল্লেখ করা হয়।

কিন্তু আাদালতের নির্দেশ অমান্য করে পুরান ঢাকার ঐতিহ্যবাহী জাহাজবাড়িটি ঈদুল ফিতরের (৫ জুন) রাতে বুলডোজার দিয়ে ভাঙা শুরু একটি প্রভাবশালী মহল।

ভবন ভাঙা বন্ধে পরদিন ৬ জুন চকবাজার থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করেন আরবান স্ট্যাডি গ্রুপের প্রধান নির্বাহী তাইমুর ইসলাম। কিন্তু তাতেও লাভ হয়নি। পুরো ভবনটি ভেঙে গুড়িয়ে দেয়া হয়েছে।

এর আগেও গত মার্চ মাসের শেষ দিকে প্রভাবশালী ওই মহলটি জাহাজবাড়িটি ভাঙার কাজ শুরু করেছিল। কিন্তু তখনও আরবান স্ট্যাডি গ্রুপ থানায় জিডি করায় ভবনটি ভাঙা স্থগিত করা হয়।

এ ব্যাপারে আরবান স্ট্যাডি গ্রুপের নির্বাহী তাইমুর ইসলাম বাংলাদেশ টাইমস’কে বলেন, জাহাজবাড়িটি গুরুত্বপূর্ণ ঐতিহ্যবাহী স্থাপনার (গ্রেড নম্বর ১) মধ্যে অন্তর্ভুক্ত। কিন্তু কোর্টের নির্দেশ অমান্য করে ঈদের দিন রাতে ওই ভবনটি পুরোটাই ভেঙে ফেলা হয়েছে।

তিনি বলেন, ভবন ভাঙা বন্ধে থানায় জিডিও করেছিলাম। কিন্তু তাতেও লাভ হয়নি। প্রভাবশালী একটি মহল ভবনটি ভেঙে ফেলেছে। তবে কারা ভেঙেছে সেটা তো মিডিয়ায় চলে এসেছে।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে বাংলাদেশ ওয়াকফ্ প্রশাসক (অতিরিক্ত সচিব) মো. শহীদুল ইসলাম বাংলাদেশ টাইমস’কে বলেন, ‘চকবাজারের ঐতিহ্যবাহী জাহাজবাড়ি শেখ লালু মিয়ার আবেদনের প্রেক্ষিতে ১৯৪০ সালের জুলাই মাসের ১৯ তারিখে মতিউল্লাহ ওরফে মতিজান ব্যাপারী ওয়াক্ফ স্টেট নামে ওয়াকফ্ প্রশাসকের কার্যালয়ে ভূমি তালিকাভুক্ত করেন।’ 

‘যার নথি নম্বর ছিল ২২৫। আর ভূমিটি হচ্ছে চকবাজারের রোডের ৩ নম্বর হোল্ডিংয়ের ০২৪১ অজুতাংশ বা ১০৬ ফুট জায়গা। এই স্থানের বর্তমান মোতাওয়াল্লি হচ্ছেন আব্দুল হক।’ 

তিনি বলেন, ঐতিহ্যবাহী জাহাজবাড়ি ভাঙার বিষয়ে ওয়াক্ফ কার্যালয়ের ঢাকা অঞ্চল-১ পরিদর্শক মুহাম্মদ আবুল কাসেম তদন্ত করে জানিয়েছেন যে, ভবনটি কে বা কারা ভেঙে ফেলেছে। কিন্তু এই বিষয়ে মোতাওয়াল্লি আবদুল হক আমাদের অবহিত করেননি। 

অতিরিক্ত সচিব শহীদুল ইসলাম বলেন, ওয়াকফ্ পরিদর্শকের প্রতিবেদনের ভিত্তিতে গত ১০ এপ্রিল রাজউককে চিঠি দিয়েছি। ওই স্থানে যাতে কোনো নতুন ভবন নির্মাণের প্ল্যান না দেয়া হয় সেজন্য রাজউক চেয়ারম্যানকে চিঠিতে অনুরোধ করা হয়েছে।

জাহাজবাড়ির জমির সর্বশেষ প্রকাশিত সিটি জরিপে জনৈক বদরুল হকের (আবদুল হকের বাবা) নামে রেকর্ডভুক্ত হওয়ায় ওই রেকর্ড সংশোধনে মামলা করার জন্য ঢাকা অঞ্চল-১ পরিদর্শক মুহাম্মদ আবুল কাসেমকে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে বলে জানান ওয়াক্ফ প্রশাসক। 

এ বিষয়ে জানতে জাহাজবাড়ির বর্তমান মোতাওয়াল্লি আব্দুল হকের ইমো আইডিতে কল করা হয়। কিন্তু সাংবাদিক পরিচয় জানতে পেরে কোনো কথা না বলে তিনি মোবাইলটি তার কর্মচারীকে ধরিয়ে দেন।

পরে তার কর্মচারী এ প্রতিবেদককে জানান, ‘তিনি বাইরে আছেন।’

 

টাইমস/টিআর/জেডটি

‘আমি সবার কাছে করজোড়ে ক্ষমা চাচ্ছি’: রাঙ্গা

‘আমি সবার কাছে করজোড়ে ক্ষমা চাচ্ছি’: রাঙ্গা

বুধবার সন্ধ্যায় জাতীয় সংসদে দাঁড়িয়ে তিনি বলেন, আমি সবার কাছে

ঠাকুরগাঁওয়ে ভুয়া প্রকল্পে চাল আত্মসাত, দুদকের হাতে ধরা ৬ কর্মকর্তা

ঠাকুরগাঁওয়ে ভুয়া প্রকল্পে চাল আত্মসাত, দুদকের হাতে ধরা ৬ কর্মকর্তা

আটককৃতরা পরস্পর যোগসাজশ ও জালিয়াতিমূলকভাবে কাগজপত্র তৈরি করে অসৎ উদ্দেশে

দুই হাজারে টেবিল কিনে ২৫ হাজার টাকার বিল নেন স্বাস্থ্য কর্মকর্তা

দুই হাজারে টেবিল কিনে ২৫ হাজার টাকার বিল নেন স্বাস্থ্য কর্মকর্তা

এ বিষয়ে ডা. খায়রুল ইসলাম বলেন, আমি কর্মস্থলে একেবারেই নতুন,

জাতীয়

আবরার হত্যাকাণ্ড: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বললেন, চার্জশীট ‘নির্ভুল’

আবরার হত্যাকাণ্ড: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বললেন, চার্জশীট ‘নির্ভুল’

আবরার হত্যা মামলার পলাতক আসামিদের গ্রেফতার প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‌'পলাতকদের গ্রেফতারের প্রচেষ্টা চলছে। আমাদের কাছে তথ্য থাকলে তাদের ধরে ফেলতাম। তবে বাইরে বের হওয়ার কোন সুযোগ নেই। ঘরের কোথাও আশ্রয়ে প্রশ্রয়ে হয়তো আছে, আমরা ধরে ফেলব'।

রাজনীতি

জামিন পেলে উন্নত চিকিৎসার জন্য বিদেশ যেতে চান খালেদা জিয়া

জামিন পেলে উন্নত চিকিৎসার জন্য বিদেশ যেতে চান খালেদা জিয়া

শরীরে অসম্ভব ব্যথা অনুভব করছে। উঠে দাঁড়াতে পারছে না, সোজা হয়ে বসতে পারছে না এই অবস্থা তার। সে নিজে তুলে খেতে পারছেন না, নিজে চলাফেরা করতে পারছেন না। তিনি বলেন, চিকিৎসকরা নিয়মিত আসছেন। কিন্তু তার চিকিৎসার কোনো উন্নতি হয়নি। তার শরীরের অবস্থার আরো অবনতি হয়েছে। আমরা তার শারিরীক অবস্থা নিয়ে শঙ্কিত। তার উন্নত চিকিৎসা দরকার।

জাতীয়

‘আবরার হত্যাকাণ্ড: উচ্ছৃঙ্খলতার চরম বহি:প্রকাশ’

‘আবরার হত্যাকাণ্ড: উচ্ছৃঙ্খলতার চরম বহি:প্রকাশ’

তিনি জানান, বুয়েটের ওই হলের ২০১১ নম্বর কক্ষে সরাসরি মারপিটে অংশ নিয়েছিল ১১ জন। বাকী ১৪ জন ঘটনাস্থলে না থেকেও ভূমিকা রেখেছে। তারা হত্যায় মদদ দিয়েছে, নির্দেশনা দিয়েছে এবং পরিকল্পনা করেছে। ভিডিও ফুটেজ, প্রযুক্তিগত সহায়তা, হলের স্টাফ, নাইটগার্ড ও অন্যান্য শিক্ষার্থীদের জিজ্ঞাসাবাদে এসব তথ্য উঠে এসেছে।

আইন আদালত

আবরার হত্যার বিচার হবে দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনালে: আইনমন্ত্রী

আবরার হত্যার বিচার হবে দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনালে: আইনমন্ত্রী

আইনমন্ত্রী বলেন, যে কারণেই এই হত্যাকাণ্ড ঘটানো হোক না কেন এটা হত্যাকাণ্ড। এরকম হত্যাকাণ্ড ঘটানো উচিত নয়। সমাজ এটাকে মেনে নেবে না, আমরা এটাকে মেনে নেবো না। এটার উচিত বিচার হতে হবে, শুধু উচিত বিচার এ কারণে না যে একটা হত্যাকাণ্ড হয়ে গেছে। এটার মতো আর কোনোদিন যাতে পুনরাবৃত্তি না ঘটে সেটা আমাদের নিশ্চিত করতে হবে।

আইন আদালত

বিপুল সম্পদের মালিক উপজেলা আ.লীগ নেতা, দুদকে অভিযোগ

বিপুল সম্পদের মালিক উপজেলা আ.লীগ নেতা, দুদকে অভিযোগ

তিনি অবৈধ পথে উপার্জিত টাকায় সুনামগঞ্জ সদর উপজেলার বাঁধনপাড়া এলাকায় বহুতল বিশিষ্ট ভবনের মালিক হয়েছেন। যার বাজার মূল্য ৮ কোটি টাকা। অমল কর কানাডাতেও বাড়ি ক্রয় করেছেন। তিনি তার অবৈধ অর্থ কানাডাতে পাচার করেছেন। তার স্ত্রী ও সন্তান বর্তমানে কানাডাতে বসবাস করছেন। গেল অক্টোবর মাসে অমল কর কানাডায় তার পরিবারের সঙ্গে ছিলেন।

বিনোদন

চুমুর বিষয়ে অনড় তামান্না ভাটিয়া!

চুমুর বিষয়ে অনড় তামান্না ভাটিয়া!

নায়িকা তামান্না ভাটিয়া। ২০০৫ সালে ‘চাঁদ সা রোশন চেহরা’ সিনেমায় অভিনয়ের মধ্য দিয়ে চলচ্চিত্রে তার অভিষেক হয়। ওই ছবির পর ১৪ বছর কেটে গেছে। এখনো অনস্ক্রিনে কাউকে চুম্বন দৃশ্যে দেখা যায়নি এই অভিনেত্রীকে।