• ঢাকা, বাংলাদেশ
  • মঙ্গলবার, ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০২০, ১২ ফাল্গুন ১৪২৬

মীরাবাঈ: এক কৃষ্ণপ্রেমিক নারীর গল্প

মীরাবাঈ: এক কৃষ্ণপ্রেমিক নারীর গল্প

ফিচার ডেস্ক১৬ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ০৯:৩৮এএম, ঢাকা-বাংলাদেশ।

মীরাবাঈ। একজন বিখ্যাত ঋষি ও কৃষ্ণপ্রেমিক নারী। যিনি তার পুরো জীবনকে শ্রীকৃষ্ণের জন্য উৎসর্গ করেছিলেন। নিজ পরিবার থেকে শত বাঁধা-বিপত্তি আসার পরও তিনি অত্যন্ত ধার্মিকভাবে জীবনযাপন করেছিলেন। শ্রীকৃষ্ণের প্রেমে রচনা করেছেন অসংখ্য ভজন সংগীত, যা তাকে আজও অমর করে রেখেছে।

মীরাবাঈ ষোড়শ শতাব্দীর শুরুর দিকে রাজস্থানের মার্তা এলাকার চৌকারী গ্রামে এক সম্ভ্রান্ত হিন্দু পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন। তার বাবা রতন সিং ছিলেন যোধপুরের প্রতিষ্ঠাতা রাও রাথুরের বংশধর।

তার বয়স যখন তিন বছর তখন একদিন এক সাধু তাদের বাড়িতে আসেন এবং মীরাবাঈকে শ্রীকৃষ্ণের একটি পুতুল দিলেন। তার বাবা মনে করলেন মীরাবাঈ কৃষ্ণের পূজা করতে পারবে না। সুতরাং তাকে পুতুলটি দেয়া ঠিক হবে না, কিন্তু দেখা গেল মীরাবাঈ কৃষ্ণের পুতুলটি পাওয়ার জন্য শক্ত বায়না ধরল। এমনকি সে খাওয়া-ধাওয়া বন্ধ করে দিল। এভাবে এক সময় শ্রী কৃষ্ণের প্রেমে পড়ে যায় মীরাবাঈ। শয়নে-স্বপনে সে কৃষ্ণপ্রেমে বিভোর হয়ে গেল। সে কৃষ্ণকে তার সারাজীবনের বন্ধু বানিয়ে ফেলল।

একদিন সে দেখল তার বাড়ির পাশের রাস্তা দিয়ে একটি বিয়ের বর-কনে নিয়ে যাওয়া হচ্ছে। ছোট্ট মীরাবাঈ দৌড় দিয়ে তার মায়ের কাছে গিয়ে জিজ্ঞাসা করল যে তার স্বামী কে হবে? কৃষ্ণের প্রতি মেয়ের ভক্তি দেখে তার মা বললেন যে, কৃষ্ণই হবে মীরাবাঈর স্বামী। সেই থেকে কৃষ্ণের পূজায় নিজেকে নিবেদিত করে দিলেন তিনি।

দুর্ভাগ্যক্রমে শৈশবেই তার মা মারা যান। পরে এই অল্প বয়সেই তার বাবা চিতরের রাজপুত্র ভোজরাজের সঙ্গে তার বিয়ে দিয়ে দেন। ফলে মীরাবাঈর সামাজিক মর্যাদা আরও বেড়ে যায়। কিন্তু রাজমহলের এই বিলাসী জীবন তার ভালো লাগত না। কারণ তিনি যে কৃষ্ণপ্রেমে বিভোর।

তারপরও তিনি স্বামীর যথেষ্ট সেবাযত্ন করতেন। তবে প্রতি সন্ধ্যায় তিনি শ্রীকৃষ্ণের পূজায় বসে যেতেন এবং অত্যন্ত মধুর সুরে ভক্তিমুলক ভজন সংগীত গাইতেন। জানা যায়, ভজন গাওয়ার সময় তিনি এতই ধ্যানমগ্ন হয়ে যেতেন যে, তিনি চেতনা হারিয়ে ফেলতেন এবং গভীর মোহ ও কল্পনার রাজ্যে চলে যেতেন।

এদিকে মীরাবাঈর ভজন সংগীত শুনতে তার অনেক ভক্ত বাড়িতে চলে আসেন। কিন্তু তার শ্বশুর বাড়ির লোকজন মীরাবাঈর এই কৃষ্ণভক্তির আচরণ পছন্দ করত না। এ নিয়ে স্বামী ও পরিবারের অন্যদের সঙ্গে তার দ্বন্দ্ব লেগে যায়। তারপরও সে কৃষ্ণের পূজা বন্ধ করে নি।

একদিন তার এক ননদ অপপ্রচার চালায় যে, মীরাবাঈ বিভিন্ন পরপুরুষকে ঘরে নিয়ে আসেন। এতে মীরাবাঈর স্বামী রাগান্বিত হয়ে তরবারি নিয়ে তার ঘরে ঢুকেন। তখন তিনি দেখতে পান কোনো পুরুষ নয়, বরং শ্রীকৃষ্ণের একটি পুতুল নিয়ে মীরাবাঈ খেলা করছেন। সেদিন থেকে সমালোচনা প্রশংসা দুটিই মীরাবাঈর সঙ্গী হয়ে যায়।

ধীরে ধীরে মীরাবাঈর কৃষ্ণভক্তি ও ভজন সংগীতের প্রশংসা চারদিকে ছড়িয়ে পড়ে। এক সময় তার সেই ভজন সংগীতের প্রেমে পড়ে যান মোগল সম্রাট আকবর। কিন্তু মীরাবাঈর পরিবারের সঙ্গে আকবরের চরম শত্রুতা। তাই তিনি তানসেনকে সঙ্গে নিয়ে ছদ্মবেশে মীরাবাঈর বাড়িতে যান। তার ভজন সংগীত শুনে তিনি মীরাবাঈর চরণে এক অমূল্য মালা উপহার দেন। একজন মুসলমানের কাছ থেকে এমন উপহার নেয়ায় তাকে আত্মহত্যা করার কথা বলেন তার স্বামী।

স্বামীর আদেশ পালন করতে মীরাবাঈ নদীতে ঝাঁপ দিতে যান। এমন সময় তিনি অনুধাবন করতে পারেন যে, কৃষ্ণ তার কাছে এসে আত্মহত্যা না করতে বলছেন। বরং কৃষ্ণের নির্দেশে তিনি বৃন্দাবনে চলে যান এবং কৃষ্ণের পূজা করতে থাকেন। এক সময় তার স্বামী নিজের ভুল বুঝতে পেরে মীরাবাঈকে বাড়িতে নিয়ে আসেন।

কিছুদিন পর সম্রাট আকবরের সঙ্গে এক যুদ্ধে তার স্বামী মারা যান। এই সুযোগে সতীদাহ প্রথার অজুহাতে তার শ্বশুর চিতায় পুড়ে মরার জন্য মীরাবাঈকে আদেশ করেন। কিন্তু তিনি জানালেন, তিনি চিতায় পুড়ে মরতে পারবেন না। কারণ তার প্রকৃত স্বামী শ্রী কৃষ্ণ। যিনি কখনো মরতে পারেন না।

এরপর তিনি তার কিছু ভক্তকে নিয়ে আবার বৃন্দাবনে চলে যান। সেখানে তার অনুসারীদের নিয়ে তিনি অত্যন্ত গভীর ভক্তির সঙ্গে কৃষ্ণের চরণে ভজন সংগীত গাইতেন। কল্পনার রাজ্যে তিনি কৃষ্ণের সঙ্গে মনের ভাব প্রকাশ করতেন। এক সময় বিখ্যাত সাধক হিসেবে বিশ্বজুড়ে তার খ্যাতি ছড়িয়ে পড়ে। মৃত্যুর আগ পর্যন্ত তিনি সেখানে শ্রীকৃষ্ণের সাধনা করেছিলেন।

এভাবে তিনি আমাদেরকে দেখিয়ে গেছেন যে, স্রষ্টার জন্য সত্যিকার প্রেম-ভক্তি থাকলে কোনো কিছুই তার পূজা করতে বাঁধা দিতে পারে না। তাই স্রষ্টাপূজারী ধার্মিকদের জন্য এক উজ্জ্বল দৃষ্টান্ত মীরাবাঈ।

 

টাইমস/এএইচ/জিএস

সমন্বিত ভর্তি পরীক্ষায় অংশ নেবে না ঢাবি

সমন্বিত ভর্তি পরীক্ষায় অংশ নেবে না ঢাবি

বুয়েটের পর এবার ইউজিসির প্রস্তাবিত সমন্বিত ভর্তি পরীক্ষায় অংশগ্রহণ না

যেসব কারণে আত্মহত্যার পথ বেছে নেন সালমান শাহ

যেসব কারণে আত্মহত্যার পথ বেছে নেন সালমান শাহ

জনপ্রিয় নায়ক সালমান শাহ’র আত্মহত্যার পাঁচ কারণ জানালেন পুলিশ ব্যুরো

পাপিয়ার সঙ্গে সংশ্লিষ্টদেরও বিচার করা হবে : কাদের

পাপিয়ার সঙ্গে সংশ্লিষ্টদেরও বিচার করা হবে : কাদের

সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, পাপিয়ার অপরাধের জন্য

জাতীয়

অপরাধের দায় নেবে না দল: ১৫ দিনের রিমান্ডে পাপিয়া

অপরাধের দায় নেবে না দল: ১৫ দিনের রিমান্ডে পাপিয়া

অস্ত্র ও মাদক আইনের মামলায় গ্রেপ্তার নরসিংদী জেলা যুব মহিলা লীগের সাধারণ সম্পাদক শামিমা নুর পাপিয়ার অপরাধ কর্মের দায় তার ব্যক্তিগত। পাপিয়ার এসব অপকর্মের দায় কোনো ভাবেই দল নেবে না বলে জানিয়েছেন যুব মহিলা লীগের কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক অপু উকিল।

আন্তর্জাতিক

সিএএ বিরোধী বিক্ষোভে উত্তাল দিল্লি: এক পুলিশ নিহত

সিএএ বিরোধী বিক্ষোভে উত্তাল দিল্লি: এক পুলিশ নিহত

ভারতের সংশোধিত নাগরিকত্ব আইন (সিএএ) নিয়ে ফের উত্তপ্ত হয়ে উঠেছে রাজধানী দিল্লি। সোমবার রাজধানীর উত্তর-পূর্ব জাফরাবাদের গোকুলপুরি, মৌজপুর এবং ভজনপুরা এলাকায় সিএএ বিরোধী বিক্ষোভ শুরু হয়। বিক্ষোভকারীদের সঙ্গে সংঘর্ষে পুলিশের এক কনস্টেবল নিহত হয়েছেন।

বিনোদন

হত্যা নয়, আত্মহত্যা করেছিলেন সালমান শাহ: পিবিআই

হত্যা নয়, আত্মহত্যা করেছিলেন সালমান শাহ: পিবিআই

ঢালিউডের জনপ্রিয় চিত্রনায়ক সালমান শাহ’র মৃত্যুর ঘটনাটি হত্যা নয়। তিনি আত্মহত্যা করেছিলেন। পারিবারিক কলহের জেরে এই পথ বেছে নিয়েছিলেন সালমান শাহ।

আন্তর্জাতিক

গুঞ্জনের মধ্যেই মাহাথিরের পদত্যাগ

গুঞ্জনের মধ্যেই মাহাথিরের পদত্যাগ

মালয়েশিয়ায় নতুন সরকারি জোট গঠন করা হবে এমন গুঞ্জনের মধ্যেই পদত্যাগ করলেন দেশটির প্রধানমন্ত্রী মাহাথির মোহাম্মদ।

জাতীয়

রংপুরে মহাসড়কের ওপর পড়ে ছিল যুবকের বিবস্ত্র লাশ   

রংপুরে মহাসড়কের ওপর পড়ে ছিল যুবকের বিবস্ত্র লাশ  

রংপুরে মহাসড়কের ওপর থেকে বিবস্ত্র অবস্থায় অজ্ঞাত এক যুবকের মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ। সোমবার সকালে নগরীর উত্তম পুরাতন বেতারপাড়া সংলগ্ন রংপুর-দিনাজপুর মহাসড়কের ওপর থেকে মরদেহটি উদ্ধার করা হয়।

স্বাস্থ্য

ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে পর্যাপ্ত ঘুম অপরিহার্য

ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে পর্যাপ্ত ঘুম অপরিহার্য

সুস্বাস্থ্যের জন্য ঘুম অপরিহার্য। আর অপর্যাপ্ত ঘুম বেশ কয়েকটি স্বাস্থ্য সমস্যার কারণ। কিন্তু আপনি কি জানেন যে, অপর্যাপ্ত ঘুম আপনার দেহের গ্লুকোজ নিয়ন্ত্রণ ও বিপাকীয়করণের ক্ষমতাকেও প্রভাবিত করতে পারে? সাধারণত যারা রাতে ঠিকমতো ঘুমায় না তাদের বেশিরভাগের রক্তে শর্করার মাত্রা বেড়ে যায়।