• ঢাকা, বাংলাদেশ
  • বুধবার, ২৩ অক্টোবর ২০১৯, ৭ কার্তিক ১৪২৬

হোসেন শহীদ সোহরাওয়ার্দী: গণতন্ত্রের মানসপুত্র

হোসেন শহীদ সোহরাওয়ার্দী: গণতন্ত্রের মানসপুত্র

ফিচার ডেস্ক১৩ ডিসেম্বর ২০১৮, ০৯:০১এএম, ঢাকা-বাংলাদেশ।

হোসেন শহীদ সোহরাওয়ার্দী। ব্রিটিশ ভারতের একজন তুখোড় রাজনীতিবিদ ও আইন প্রণেতা। তার হাত ধরেই সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ট বাঙালি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের রাজনৈতিক জীবনের হাতেখড়ি। বাংলাদেশের প্রধান রাজনৈতিক দল আওয়ামী লীগের প্রতিষ্ঠায় তার গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রয়েছে। বাংলাসহ ভারতীয় উপমহাদেশে গণতন্ত্রের মানসপুত্র হিসেবে তিনি সবচেয়ে বেশি পরিচিত।

১৮৮২ সালের ৮ সেপ্টেম্বর ভারতের পশ্চিমবঙ্গের মেদিনীপুর জেলার এক অভিজাত মুসলিম পরিবারে তিনি জন্মগ্রহণ করেন। ১৯১০ সালে সেইন্ট জেভিয়ার্স কলেজ থেকে গণিতে স্নাতক, ১৯১৩ সালে কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে আরবি সাহিত্যে স্নাতকোত্তর এবং পরে অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বিজ্ঞান ও আইনে পুনরায় স্নাতক করেছেন। ১৯১৮ সালে গ্রে’স ইন হতে বার এট-ল’ ডিগ্রি অর্জন করেন।

১৯২১ সালে তিনি মুসলিম লীগের হয়ে বঙ্গীয় আইন পরিষদ সদস্য নির্বাচিত হন। ১৯২৪ সালে দেশবন্ধু চিত্তরঞ্জন দাসের স্বরাজ পার্টিতে যোগ দেন এবং কলকাতার ডেপুটি মেয়র হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন।

১৯২৫ সালে চিত্তরঞ্জন দাস মারা গেলে তিনি মুসলিম লীগে যোগ দেন এবং মুসলমানদের ঐক্যবদ্ধ করে দ্বিজাতি-তত্ত্বের পক্ষে কাজ শুরু করেন। পরে ১৯৩৬ সালে তিনি ‘ইন্ডিপেন্ডেন্ট মুসলিম পার্টি’ নামে দল গঠন করেন। ১৯৪৩ সালে খাজা নাজিমুদ্দীনের শ্রম ও পৌর সরবরাহ মন্ত্রীর দায়িত্ব পালন করেন। ১৯৪৬ সালে বঙ্গীয় প্রাদেশিক নির্বাচনে মুসলিম লীগ থেকে বিজয়ী হয়ে অবিভক্ত বাংলার মুখ্যমন্ত্রী নির্বাচিত হন।

১৯৪৭ সালে দেশ ভাগের সময় ভারত কিংবা পাকিস্তান কারো সঙ্গে একীভূত না করে শুধু বাঙালি সংখ্যাগরিষ্ঠ অঞ্চল নিয়ে একটি পৃথক রাষ্ট্র গঠনের প্রস্তাব করেছিলেন তিনি। প্রথম দিকে মুহাম্মদ আলী জিন্নাহ এই প্রস্তাব সমর্থন করলেও দেশ ভাগের সময় তা বাস্তবায়ন করা হয়নি।

তবে পূর্ব বাংলাকে ভারতের পরিবর্তে পাকিস্তানের সঙ্গে একিভূত করতে তিনি সমর্থন দেন। দেশ ভাগের পর মুসলিম লীগের বৈষম্যমূলক আচরণে তিনি চরম মর্মাহত হন। ফলে ১৯৪৯ সালের ২৩ জুন ঢাকার রোজ গার্ডেনে মাওলানা ভাসানীর নেতৃত্বে ‘পূর্ব পাকিস্তান আওয়ামী মুসলিম লীগ’ গঠনে ভূমিকা রেখেছিলেন সোহরাওয়ার্দী। ১৯৫৩ সালে খাজা নাজিমুদ্দীনকে হঠিয়ে মুহাম্মদ আলী প্রধানমন্ত্রী হন এবং সোহরাওয়ার্দী এ সরকারের আইন ও বিচার বিষয়ক মন্ত্রীর দায়িত্ব পান।

১৯৫৩ সালের ৪ ডিসেম্বর ভাসানীও শেরে বাংলার নেতৃত্বে যুক্তফ্রন্ট গঠনের সময়ও তিনি ভূমিকা রেখেছিলেন। ১৯৫৪ সালে যুক্তফ্রন্ট সরকার গঠন করলে তিনি স্বাস্থ্য মন্ত্রনালয়ের দায়িত্ব পান। পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী মোহাম্মদ আলীকে উৎখাত করতে ১৯৫৬ সালে মুসলিম লীগ, আওয়ামীলীগ ও রিপালিকান পার্টি মিলে কোয়ালিশন সরকার গঠন করে। এ সরকারের অধীনে তখন পাকিস্তানের ৫ম প্রধানমন্ত্রী নিযুক্ত হন সোহরাওয়ার্দী।

১৯৫৬ সালে পাকিস্তানের প্রথম সংবিধান রচনায় তার ব্যাপক ভূমিকা ছিল। এ সময় প্রেসিডেন্ট ইস্কান্দার মির্জার নিয়ন্ত্রণে আস্থাভোটের আয়োজন করতে পার্লামেন্টের অধিবেশন দেয়ার জন্য তিনি আহবান জানান। কিন্তু প্রেসিডেন্ট ইস্কান্দার মির্জা অধিবেশন দিতে অস্বীকার করায় ১৯৫৭ সালের ১৭ অক্টোবর তিনি প্রধানমন্ত্রী থেকে পদত্যাগ করেন।

সোহরাওয়ার্দী ১৯৬০ সালে রাজনীতি থেকে অবসর নেন এবং লেবানন চলে যান। ১৯৬৩ সালের ৫ ডিসেম্বর লেবাননের বৈরুতে অবস্থানকালে হার্ট অ্যাটাকে আক্রান্ত হয়ে এ মহান নেতা মারা যান।

২০০৪ সালে বিবিসি’র শ্রোতা জরিপে সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙ্গালির তালিকায় তার অবস্থান ছিল ১৯ তম।

 

টাইমস/এএইচ/জিএস

১১ দফা দাবিতে সাকিবদের পাশে আন্তর্জাতিক সংগঠন ফিকা

১১ দফা দাবিতে সাকিবদের পাশে আন্তর্জাতিক সংগঠন ফিকা

ক্রিকেটারদের আন্তর্জাতিক সংগঠন দ্য ফেডারেশন অব ইন্টারন্যাশনাল ক্রিকেটার্স অ্যাসোসিয়েশনস (ফিকা)

দেশের ক্রিকেট নিয়ে গভীর ষড়যন্ত্র চলছে: পাপন

দেশের ক্রিকেট নিয়ে গভীর ষড়যন্ত্র চলছে: পাপন

দেশের ক্রিকেট নিয়ে গভীর ষড়যন্ত্র চলছে বলে মন্তব্য করেছেন বাংলাদেশ

এমপি মোয়াজ্জেম হোসেন রতনের অবৈধ সম্পদ অনুসন্ধানে দুদক

এমপি মোয়াজ্জেম হোসেন রতনের অবৈধ সম্পদ অনুসন্ধানে দুদক

অবৈধ সম্পদ অর্জনের অভিযোগে সুনামগঞ্জ-১ আসনের সরকার দলীয় সাংসদ মোয়াজ্জেম

মতামত

মেয়েটিকে আমরা বেঁচে থাকতে দিলাম না…

মেয়েটিকে আমরা বেঁচে থাকতে দিলাম না…

বান্দরবান থানচি উপজেলার যোসেফ পাড়ার বাসিন্দা  লিয়ানা ত্রিপুরা পপি (২৩)। চার বছর আগে উচ্চ শিক্ষার জন্য ঢাকায় চলে আসেন। পড়াশুনার পাশাপাশি গুলশানের একটি বিউটি পার্লারে চাকরি করতেন তিনি। গত শুক্রবার (১৮ অক্টোবর) সকাল সাড়ে ১০টার দিকে পার্লারে যাওয়ার সময় গুলশানে একটি প্রাইভেট কারের (ঢাকা মেট্রো ঘ ১৩০৯০২) ধাক্কায় ঘটনাস্থলেই মারা যান পপি।

রাজনীতি

মেননের বক্তব্যে বিব্রত নয় ১৪ দল: নাসিম

মেননের বক্তব্যে বিব্রত নয় ১৪ দল: নাসিম

গত নির্বাচনে জনগণ ভোট দিতে পারেনি- ওয়ার্কার্স পার্টির সভাপতি রাশেদ খান মেননের এমন বক্তব্যে নিয়ে ১৪ দল বিব্রত নয় বলে জানিয়েছেন এর সমন্বয়ক মোহাম্মদ নাসিম। মঙ্গলবার দুপুরে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে ১৪ দল আয়োজিত বাংলাদেশ-ভারত সমঝোতা স্মারক শীর্ষক গোলটেবিল বৈঠক শেষে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে নাসিম এ কথা বলেন। তিনি বলেন, কোনও একক ব্যক্তির বক্তব্যে ১৪ দল বিব্রত হবে কেন? এটি মুক্তিযুদ্ধের চেতনা, অসাম্প্রদায়িকতা, গণতান্ত্রিক মূল্যবোধের ভিত্তিতে করা আদর্শিক জোট। জোটের বৈঠকে এ বিষয় নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা হবে। তারপর করণীয় ঠিক করা হবে।’

জাতীয়

কুমিল্লায় ছেলের হাতে মার খেয়ে মায়ের আত্মহত্যা

কুমিল্লায় ছেলের হাতে মার খেয়ে মায়ের আত্মহত্যা

জমিজমা নিয়ে মায়ের সঙ্গে ঝামেলা চলছিল কুমিল্লার তিতাস উপজেলার কড়িকান্দি ইউনিয়নের বন্দরামপুর গ্রামের বাসিন্দা মো. শাকিলের(৩৭)।  এ নিয়ে পারিবারিক কলহ সৃষ্টি হয় পরিবারে। সোমবার ছেলের হাতে দুই দফা মার খান মা লতিফা বেগম (৫৭)। ক্ষোভে অভিমানে মঙ্গলবার সকালে লতিফা বেগম বিষ পান করে আত্মহত্যা করেছেন বলে অভিযোগ উঠেছে। ঘটনার পর থেকে ছেলে শাকিল পলাতক। এ ঘটনায় আত্মহত্যায় প্ররোচনার অভিযোগে শাকিল ও তার স্ত্রী জেসমিন আক্তারকে আসামি করে লতিফার স্বামী আবুল কাশেম তিতাস থানায় মামলা করেছেন। পুলিশ জেসমিনকে আটক করেছে।

জাতীয়

১৫তম শিক্ষক নিবন্ধনের চূড়ান্ত ফল প্রকাশ

১৫তম শিক্ষক নিবন্ধনের চূড়ান্ত ফল প্রকাশ

১৫তম শিক্ষক নিবন্ধন পরীক্ষার চূড়ান্ত ফলাফল প্রকাশিত হয়েছে।  মঙ্গলবার বেসরকারি শিক্ষক নিবন্ধন ও প্রত্যয়ন কর্তৃপক্ষের (এনটিআরসিএ) ওয়েবসাইটে ফলাফল প্রকাশ করা হয়। ১৩ হাজার ৩৪৫ জন প্রার্থী পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হয়েছেন। স্কুল পর্যায়ে ১০ হাজার ৯৬৮ জন, স্কুল-২ পর্যায়ে ৭৭০ জন এবং কলেজ পর্যায়ে ১ হাজার ৬০৭ জন উত্তীর্ণ হয়েছেন। লিখিত পরীক্ষায় উত্তীর্ণদের মৌখিক পরীক্ষার সূচি পরবর্তী সময়ে বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে জানিয়ে দেয়া হবে।

জাতীয়

গৃহবধূকে ধর্ষণের পর হত্যা: জয়পুরহাটে ৭ জনের মৃত্যুদণ্ড

গৃহবধূকে ধর্ষণের পর হত্যা: জয়পুরহাটে ৭ জনের মৃত্যুদণ্ড

জয়পুরহাটের আক্কেলপুর উপজেলার দেওড়া গ্রামে এক গৃহবধূকে ধর্ষণের পর হত্যার দায়ে সাতজনের মৃত্যুদণ্ড দিয়েছেন আদালত। মঙ্গলবার দুপুরে জয়পুরহাট নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালের বিচারক এ বি এম মাহমুদুল হাসান এ রায় দেন।

বিনোদন

পুনমের সাথে সন্ধ্যা কাটাতে চাইলে...

পুনমের সাথে সন্ধ্যা কাটাতে চাইলে...

ভারতীয় মডেল পুনম পাণ্ডে। আলোচনায় থাকার জন্য মাঝে মাঝে অদ্ভুদ সব কাণ্ড ঘটিয়ে বসেন তিনি। কখনো কাপড় খুলে, আবার কখনো শরীর দেখিয়ে সংবাদমাধ্যমে খবরের খোরাক হন এই মডেল। তবে পুনম ভক্তদের এমন চমক দেন, যা অন্যদের পক্ষে বলাই কঠিন। প্রায়ই ভক্তদের সামনে রীতিমতো নিজেকে উন্মোচন করে আলোচনায় থাকেন তিনি। চমক দিতে গিয়ে কখনো গায়ে একটা সুতোও থাকে না তার। নগ্নতা নিয়ে তো লজ্জা নেইই বরং পুরুষমনে সুড়সুড়ি কীভাবে দিতে হয়, তা ভালোই জানেন পুনম। এদিকে দীপাবলির আগে অনুরাগীদের আনন্দ দিতে নতুন উপহার নিয়ে হাজির হলেন পুনম পাণ্ডে। তবে এবারের উপহার সম্পূর্ণ আলাদা। এবার কোনো কাপড় খোলার ব্যাপার নেই, এমনকি নগ্ন হওয়ার বিষয়ও নেই। এবার নতুন এক প্রতিযোগিতার আয়োজন করেছেন পুনম। এই প্রতিযোগিতা তার ‘বেটাইম স্টোরিজ’ নিয়ে।