• ঢাকা, বাংলাদেশ
  • রোববার, ০৮ ডিসেম্বর ২০১৯, ২৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৬

ঘন কুয়াশায় চালক সিগন্যাল দেখতে পাননি: রেলওয়ে মহাপরিচালক

ঘন কুয়াশায় চালক সিগন্যাল দেখতে পাননি: রেলওয়ে মহাপরিচালক

নিজস্ব প্রতিবেদক১২ নভেম্বর ২০১৯, ০৭:২৭পিএম, ঢাকা-বাংলাদেশ।

কসবার ট্রেন দুর্ঘটনা বিষয়ে বাংলাদেশ রেলওয়ের মহাপরিচালক মো. শামছুজ্জামান জানিয়েছেন, তূর্ণা নিশীথা ট্রেনটি ৬০-৬৫ কিলোমিটার গতিতে চলছিল। ঘন কুয়াশার কারণে চালক লাল সংকেত সিগন্যাল দেখতে পাননি। তূর্ণা নিশীথার চালক যখন সংকেত দেখতে পান, তখন ইর্মাজেন্সি ব্রেক করেন। ট্রেনের গতিবেগ ২০ কিলোমিটারে নেমে আসলেও পুরো গতি নিয়ন্ত্রণ করতে পারেনি। আমরা স্পিড রেকর্ডারও পরীক্ষা করে দেখেছি। ঢাকা থেকে গাড়ি নিয়ে বের হওয়ার পরও ঘন কুয়াশা দেখেছি আমি। তাই আমরা মনে করি, ঘন কুয়াশার কারণেই মূলত দুর্ঘটনাটি ঘটেছে।

দুর্ঘটনার খবর পেয়ে সকালে ঘটনাস্থল পরিদর্শনে যান রেলওয়ের মহাপরিচালক। ঘটনাস্থল পরিদর্শন ও অনুসন্ধান করে প্রাথমিকভাবে ঘন কুয়াশার কারণেই চালক সিগন্যাল দেখতে পাননি বলে জানান তিনি।

এ বিষয়ে মন্দবাগ রেল স্টেশনের মাস্টার জাকের হোসেন চৌধুরী জানিয়েছেন, আউটার ও হোম দু’জায়গাতেই তূর্ণাকে দাঁড়ানোর জন্য সিগন্যাল দেয়া হয়েছিল।

স্টেশন মাস্টারের কথা অনুযায়ী, তূর্ণা নিশীথার চালক দুটা সিগন্যালই মিস করেছেন। রেলের মহাপরিচালক হোম সিগন্যালের কথা জানিয়েছেন। যখন হোম সিগন্যাল দেখেছেন, ইঞ্জিনের গতি ৬০-৬৫ কিলোমিটার থেকে কমিয়ে ২০ কিলোমিটারে নামিয়ে আনেন চালক।

 

টাইমস/এইচইউ

দুই ট্রেনের সংঘর্ষে নিহত ১৬

দুই ট্রেনের সংঘর্ষে নিহত ১৬

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার কসবা উপজেলায় দুই ট্রেনের মধ্যে সংঘর্ষে অন্তত ১৬ জন

ট্রেন দুর্ঘটনা:  ছোট্ট ছোঁয়ামনি মর্গে,বাঁচার আশায় বাবা-মাকে আনা হলো ঢাকায়

ট্রেন দুর্ঘটনা: ছোট্ট ছোঁয়ামনি মর্গে,বাঁচার আশায় বাবা-মাকে আনা হলো ঢাকায়

শিশু ছোঁয়া মনির বাবার নাম সোহেল মিয়া, মা নাজমা বেগম।

সিগন্যাল অমান্য করায় দুর্ঘটনা, চালকসহ তিনজন বরখাস্ত

সিগন্যাল অমান্য করায় দুর্ঘটনা, চালকসহ তিনজন বরখাস্ত

ট্রেনের চালক সিগন্যাল অমান্য করে ভুল লাইনে চলে যাওয়ার কারণেই

আট ঘণ্টা পর ঢাকা-চট্টগ্রাম-সিলেটে ট্রেন চলাচল স্বাভাবিক

আট ঘণ্টা পর ঢাকা-চট্টগ্রাম-সিলেটে ট্রেন চলাচল স্বাভাবিক

প্রায় আট ঘণ্টা বন্ধ থাকার পর ঢাকা-চট্টগ্রাম ও চট্টগ্রাম-সিলেট রুটে