• ঢাকা, বাংলাদেশ
  • শনিবার, ১৫ আগস্ট ২০২০, ৩০ শ্রাবণ ১৪২৭

দৃষ্টিনন্দন সুন্দরবনের হিরণ পয়েন্ট  

দৃষ্টিনন্দন সুন্দরবনের হিরণ পয়েন্ট   

ফিচার ডেস্ক৩০ এপ্রিল ২০১৯, ১১:৩০এএম, ঢাকা-বাংলাদেশ।

সুজলা-সুফলা শস্য শ্যামলা আমাদের এই বাংলাদেশ। এই দেশের প্রাকৃতিক সৌন্দর্য নজর কাড়ে সবার। এদেশে রয়েছে প্রাকৃতিক সৌন্দর্যমণ্ডিত বিভিন্ন মনোমুগ্ধকর স্থান। সুন্দরবনের হিরণ পয়েন্ট তার মধ্যে অন্যতম।

হিরণ পয়েন্ট সুন্দরবনের দক্ষিণাংশের একটি সংরক্ষিত অভয়ারণ্য। এর আরেক নাম নীল কমল। প্রমত্তা কুঙ্গা নদীর পশ্চিম তীরে খুলনা রেঞ্জে এর অবস্থান। হিরণ পয়েন্ট ইউনেস্কো ঘোষিত অন্যতম একটি বিশ্ব ঐতিহ্য। জায়গাটি মূলত নৌবাহিনীর অধীনে। শুরুতেই একটি রিসোর্ট রয়েছে। একটি পাড় বাঁধানো মিঠা পানির পুকুর আর রয়েছে বন বিভাগের সুন্দর অফিস। পুকুর পাড়ের পাশেই ওয়াচ টাওয়ার।

হিরণ পয়েন্ট একটি অভয়ারণ্য হওয়ায় এই স্থানে অনেক বাঘ, হরিণ, বানর, পাখি এবং সরীসৃপের নিরাপদ আবাসস্থল। সুন্দরবন এলাকায় রয়েল বেঙ্গল টাইগার দেখার অন্যতম একটি স্থান হল এই হিরণ পয়েন্ট। এখানে দেখতে পাওয়া যায় চিত্রা হরিণ, বন্য শুকর; পাখিদের মধ্যে আছে সাদাবুক মাছরাঙা, হলুদবুক মাছরাঙা, কালোমাথা মাছরাঙা, লার্জ এগ্রেট, কাঁদাখোঁচা, ধ্যানী বক প্রভৃতি। এছাড়া আছে প্রচুর কাঁকড়ার আবাস। আর আছে রঙ-বেরঙের প্রজাপতি।

হিরণ পয়েন্ট আপনাকে স্বাগতম জানাবে, কাঠের গেটে লেখা দেখবেন 'নীলকমলে স্বাগতম'। এখানকার লুকায়িত সৌন্দর্য আবিষ্কার করতে বেশি সময় লাগবে না আপনার, হাঁটতে হাঁটতে প্রায়ই চোখে পড়বে গাছের আড়ালে লুকিয়ে থাকা লজ্জাবতী কোনো হরিণের। এখানকার ট্রেইলের মাঝপথে পাবেন চমৎকার একটি শেড, বসার জায়গা। যেখানে বিশ্রাম নিয়ে আপনি আপনার ক্লান্তি কিছুটা কমিয়ে নিতে পারেন।

হাঁটার সময় ট্রেইলের দুপাশে পাবেন বেশ খোলামেলা জায়গা, এখানে কেবল বড় বড় সুন্দরী গাছ, মাটি থেকে উপরের দিকে চোখা হয়ে জেগে আছে অজস্র শ্বাসমূল। এর মাঝে দৌড়ে বেড়ায় বানরের দল। ট্রেইলটির প্রায় শেষের দিকে আছে উঁচু একটি ওয়াচ টাওয়ার, এখান থেকে তাকালেও বনের বেশ খানিকটা এক নজরে দেখে নয়নজোড়া জুড়িয়ে নেওয়া যায়। ট্রেইলটি একটি জলাশয়ের ধারে গিয়ে শেষ হয়েছে। জলাশয়টি ওখান থেকে বনের ভেতরের দিকে চলে গেছে। জলাশয়ের পাশেই রয়েছে ঘন সবুজ জঙ্গল। এখানে বসেও আপনি উপভোগ করতে পারেন বনের প্রাকৃতিক সৌন্দর্য।

হিরণ পয়েন্ট থেকে ৩ কিলোমিটার দূরে কেওড়াসুঠিতে রয়েছে একটি পর্যবেক্ষণ টাওয়ার (ওয়াচ টাওয়ার), যা থেকে আশপাশের প্রকৃতি দেখার ব্যবস্থা রয়েছে।

যাওয়ার উপায়:

ঢাকার গাবতলী কিংবা সায়েদাবাদ বাস টার্মিনাল থেকে মেঘনা পরিবহন (০১৭১৭১৭৩৮৮৫৫৩), পর্যটক পরিবহন (০১৭১১১৩১০৭৮) সাকুরা পরিবহন (০১৭১১০১০৪৫০), সোহাগ পরিবহন (০১৭১৮৬৭৯৩০২) ইত্যাদি বাসে খুলনা বা বাগেরহাট যেতে হবে।

খুলনা লঞ্চঘাট বা বাগেরহাটের মংলা বন্দর থেকে লঞ্চযোগে হিরণ পয়েন্ট যাওয়া যাবে। রাতে ও সকালে লঞ্চ রয়েছে। এছাড়াও বাগেরহাটের মংলা, মোরেলগঞ্জ, শরণখোলা থেকে পাবেন সুন্দরবন যাওয়ার নৌযান।

এছাড়া ঢাকার সায়দাবাদ বাস স্টেশন থেকে সরাসরি মংলা যায় সুন্দরবন ও পর্যটক সার্ভিসের বাস। ভাড়া ৪শ’ থেকে সাড়ে ৪শ’ টাকা।

কোথায় থাকবেন:

সুন্দরবনে রাত কাটাতে চাইলে পর্যটন জাহাজে রাত কাটানো যায়। জাহাজে তিনদিনের ভ্রমণে গেলে থাকা খাওয়ার সব সুব্যবস্থা জাহাজেই থাকে। এছাড়া হিরণপয়েন্টের নীলকমল, টাইগার পয়েন্টের কচিখালী এবং কাটকায় বন বিভাগের রেস্ট হাউজে রাত্রিযাপন করা যাবে। নীলকমল ও কচিখালীতে কক্ষ প্রতি ৩০০০ টাকা ভাড়া দিতে হয়। তবে কচিখালীতে ৪ কক্ষ ভাড়া নিলে ১০,০০০ টাকায় থাকা যাবে। কটকা রেস্ট হাউজে রুম নিতে লাগে ২০০০ টাকা। বিদেশি ভ্রমণকারীদের এই সব রেস্ট হাউজে রাত কাটাতে রুম প্রতি ৫০০০ টাকা দিতে হয়।

এছাড়া সারাদিন ঘুরাঘুরি করে রাতে এসে থাকতে পারেন বন্দর শহর মংলায়। এখানে আছে বাংলাদেশ পর্যটন করপোরেশনের মোটেল পশুর (০৪৬৬২-৭৫১০০)। রুম (ডাবল) প্রতি ভাড়া পড়বে ৮শ’ থেকে ২ হাজার টাকা (নন এসি/এসি)। ইকনোমি বেড ৬শ’ টাকা।

খুলনা ফিরে এলে বিভিন্ন মানের আবাসিক হোটেল পাওয়া যাবে থাকার জন্যে। খুলনার কয়েকটি আবাসিক হোটেল হলো- সিএসএস রেস্ট হাউজ (০৪১-৭২২৩৫৫), হোটেল ক্যাসেল সালাম (০৪১-৭৩০৭২৫), হোটেল রয়্যাল ইন্টারন্যাশনাল (০৪১-৮১৩০৬৭-৯), প্ল্যাটিনাম জুট মিলস লিমিটেড রেস্ট হাউজ (০৪১-৭৬২৩৩৫), এলজিইডি রেস্ট হাউজ (০৪১৭২৩১৮৩)।

আরও পড়ুন...

সুন্দরবনের করমজল পর্যটন কেন্দ্র

 

টাইমস/এসআর/এইচইউ

কাতার প্রবাসীদের সুখবর : রিটার্ণ পারমিট জরিমানা মওকুফ

কাতার প্রবাসীদের সুখবর : রিটার্ণ পারমিট জরিমানা মওকুফ

করোনার কারণে ছুটিতে থাকা অভিবাসী ও প্রবাসী বাংলাদেশিদের রিটার্ন পারমিটের

চট্টগ্রামে বস্তিতে ভয়াবহ অগ্নিকান্ড : দুই লাশ উদ্ধার

চট্টগ্রামে বস্তিতে ভয়াবহ অগ্নিকান্ড : দুই লাশ উদ্ধার

চট্টগ্রাম নগরীর পাহাড়তলী এলাকার ইস্পাহানি গেট সংলগ্ন আজমনগর বস্তিতে অগ্নিকান্ডের

ইন্টার্ণ চিকিৎসক নেতার ওপর হামলা : চমেকে কর্মবিরতি-বিক্ষোভ

ইন্টার্ণ চিকিৎসক নেতার ওপর হামলা : চমেকে কর্মবিরতি-বিক্ষোভ

অনির্দিষ্টকালের কর্মবিরতি ও বিক্ষোভ কর্মসূচি পালন করছেন চট্টগ্রাম মেডিকেলের (চমেক)

জাতীয়

বঙ্গবন্ধুর স্বপ্ন পুরণে মানুষের ভাগ্য পরিবর্তন করতে চাই -প্রধানমন্ত্রী

বঙ্গবন্ধুর স্বপ্ন পুরণে মানুষের ভাগ্য পরিবর্তন করতে চাই -প্রধানমন্ত্রী

শেখ হাসিনা বলেন, আমি এ দেশের মানুষের ভাগ্য পরিবর্তন করতে চাই। কাজেই আমার যতটুকু সাধ্য, সেইটুকু আমরা করে দিয়ে যাব। যেন তার (বঙ্গবন্ধু) আত্মাটা শান্তি পায় এবং এই রক্ত যেন বৃথা না যায়। তিনি আরও বলেন, যে স্বপ্ন বুকে নিয়ে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান জীবন দিয়েছেন, সেই স্বপ্নপূরণে সাধ্যের সবটুকু উজাড় করে দেশের মানুষের কল্যাণে কাজ করে যাবো।

জাতীয়

করোনায় দেশে আরও ৩৪ জনের মৃত্যু

করোনায় দেশে আরও ৩৪ জনের মৃত্যু

দেশে করোনায় গত ২৪ ঘন্টায় আরও ৩৪ জনের মৃত্যু হয়েছে। এ নিয়ে দেশে করোনায় আক্রান্ত হয়ে মৃতের মোট সংখ্যা দাড়াল ৩ হাজার ৫৯১ জন।

জাতীয়

বশেমুরবিপ্রবির চুরি যাওয়া ৩৪ কম্পিউটার উদ্ধার, আটক ২

বশেমুরবিপ্রবির চুরি যাওয়া ৩৪ কম্পিউটার উদ্ধার, আটক ২

গোপালগঞ্জের বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (বশেমুরবিপ্রবি) কেন্দ্রীয় লাইব্রেরি থেকে হারিয়ে যাওয়া ৩৪টি কম্পিউটার উদ্ধার করা হয়েছে। রাজধানীর বনানীর নতুন এয়ারপোর্ট রোডের হোটেল ক্রিস্টাল থেকে এসব কম্পিউটার উদ্ধার করা হয়।

জাতীয়

ঝিনাইদহে পুকুর থেকে দুই ছাত্রের লাশ উদ্ধার

ঝিনাইদহে পুকুর থেকে দুই ছাত্রের লাশ উদ্ধার

ঝিনাইদহের কোটচাঁদপুর উপজেলার একটি পুকুর থেকে দুই মাদ্রাসা ছাত্রের লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। নিহত দুই শিশু হলো- কোটচাঁদপুর উপজলোর বলুহর গ্রামের ঢালীপাড়ার বাহাদুর আলীর ছেলে জাকির হোসেন চঞ্চল (১০) ও কালীগঞ্জ উপজলোর মল্লকিপুর গ্রামের ফোরকান আলীর ছেলে মহসিন আলী (১০)।

জাতীয়

সাভারে মাছের খামারে শত্রুতার বিষ  : সর্বস্বান্ত ৫ ভাই

সাভারে মাছের খামারে শত্রুতার বিষ : সর্বস্বান্ত ৫ ভাই

এ কেমন শত্রুতা! ঢাকার সাভারের আশুলিয়ায় প্রতিহিংসার নগ্ন থাবায় নিঃস্ব হয়ে গেছেন মাছচাষি পাঁচ ভাই। বৃহস্পতিবার দিবাগত মধ্যরাতে আশুলিয়ার জিরাবো এলাকার বেপারীবাড়ির পাঁচ ভাইয়ের ৪০ বিঘা পুকুরে বিষ প্রয়োগ করেছে দুর্বৃত্তরা। এতে অন্তত ১০ টন মাছ মারা গেছে।

ইতিহাস

হিটলারের পরমাণু বিজ্ঞানীদের ধরতে পরিচালিত হয় যে গোপন মিশন

হিটলারের পরমাণু বিজ্ঞানীদের ধরতে পরিচালিত হয় যে গোপন মিশন

১৯৩৮ সালে, জার্মান বিজ্ঞানীরা পারমাণবিক রি-অ্যাকটর তৈরি করতে সক্ষম হয়েছিলেন। ইউরেনিয়ামের মজুদ জোগাড় করে পারমাণবিক অস্ত্র তৈরির জন্য কোয়ান্টাম পদার্থবিদ ওয়ার্নার কার্ল হেইসেনবার্গের নেতৃত্বে গঠন করা হয়েছিল একটি বিশেষ বৈজ্ঞানিক ইউনিট।