• ঢাকা, বাংলাদেশ
  • মঙ্গলবার, ২০ অক্টোবর ২০২০, ৪ কার্তিক ১৪২৭

করোনাকে অবহেলা কেন?

করোনাকে অবহেলা কেন?

উম্মে কুলসুম শিলা২৫ সেপ্টেম্বর ২০২০, ০৩:৫৩পিএম, ঢাকা-বাংলাদেশ।

২০১৯ সালের ডিসেম্বরে চীনে করোনা ছড়ানোর পর থেকে আস্তে আস্তে পুরো পৃথিবী সংক্রমিত হয়েছে এই প্রাণঘাতী ভাইরাসে। আমাদের দেশে চলতি বছরের মার্চ মাসে করোনার সংক্রমণ শুরু হয়। মার্চের শেষের দিকে দেশব্যাপী অঘোষিত লকডাউন শুরু হয়। কিন্তু আমরা প্রথম থেকেই দেখছি, সাধারণ জনগনের মধ্যে করোনাকে সেভাবে পাত্তা না দেয়ার প্রবণতা।

কোভিড-১৯ এর প্রকোপ শুরু হতে এখন পর্যন্ত দেখা যায়, আমাদের দেশের জনগণের মধ্যে অসচেতনতা সবচেয়ে বেশি। প্রথমদিকের লকডাউনে সরকারের প্রচেষ্টায় মানুষজনকে মাস্ক পরা বাধ্যতামূলক করা হয়েছিল, কিন্তু সে সময়ও অনেকেই মাস্ক ব্যবহার করেননি। আর বর্তমান সময়ের চিত্র তো আরো ভিন্ন। বাইরে বের হলেই আশেপাশের মানুষ দেখে বোঝার উপায় নেই যে, আমাদের দেশে করোনা মহামারীর প্রকোপ চলছে। করোনার জন্য না আছে সচেতনতা, না আছে সংখ্যাগরিষ্ঠ মানুষের মুখে মাস্ক। যেখানে করোনা প্রতিরোধে আমাদের সকলেরই মাস্ক ব্যবহার করা উচিত।

সরকারি হিসেব অনুযায়ী, দেশে দৈনিক করোনায় মৃত্যুর হার বেড়েই চলেছে। আর সেই সাথে কমছে করোনার বিষয়ক সচেতনতা। যা কোনোভাবেই কাম্য নয়। এর কারণ খুঁজতে গেলে আমাদের করোনা পূর্ববর্তী চিত্র মনে করা উচিত। কেন আমাদের দেশের জনগণ করোনায় মৃত্যু কে অবহেলা করছে?

প্রথমত: এর জন্য দায়ী আমাদের অনিশ্চিত জীবন ব্যবস্থা। যেখানে আমাদের দেশে মৃত্যু অনেক সহজ বিষয় এবং সেই মৃত্যু যেকোনো ভাবেই হতে পারে। যেমন- সড়ক দুর্ঘটনা, পানিতে ডুবে, আগুনে পুড়ে, ছিনতাইকারীর ছুরিকাঘাতে, ঘরে নির্যাতনে, চিকিৎসার অভাবে, চিকিৎসকের অবহেলা ইত্যাদি। আমাদের দেশে এসব কারণে মৃত্যুর ক্ষেত্রে কারো কোনো জবাবদিহিতা নেই। যে কারণে একের পর এক দেশে সড়ক দুর্ঘটনায় মৃত্যু, আগুন লেগে মৃত্যু, চিকিৎসকের অবহেলায় মৃত্যুর সংখ্যা বাড়ছেই।

পরিসখ্যান বলছে, ২০১৯ সালে মোট ৪৭০২ টি সড়ক দুর্ঘটনায় দেশে মোট ৫২২৭ জন নিহত হয়েছে। গত এক দশকে আগুন লেগে দেশে প্রায় ২ হাজার মানুষের মৃত্যু হয়েছে। কাজেই এ দেশে স্বাভাবিক মৃত্যু চেয়ে অস্বাভাবিক মৃত্যু বেশি হওয়ায় মানুষের মাঝে মৃত্যু নিয়ে তেমন উৎকণ্ঠা নেই। নিশ্চিত জীবনের নিশ্চয়তা না থাকায় তাই মানুষ করোনা মহামারীকেও মানুষ স্বাভাবিকভাবে নিয়েছে।

দ্বিতীয়তঃ দরিদ্রতা মানুষকে করোনার ভয়াবহতা ভুলিয়ে দিয়েছে। আমাদের দেশে ২০ শতাংশ মানুষ দারিদ্র্য সীমার নিচে বাস করে। যার প্রায় ১০ শতাংশ মানুষ অতিদারিদ্র্য সীমার নিচে বাস করছে। সে হিসেবে আমাদের ১৬ কোটি মানুষের সোয়া তিন কোটি মানুষই দারিদ্র্যসীমার নিচে বাস করে। এই গরীব দেশের মানুষদের জীবনে বেঁচে থাকার জন্য প্রতিদিন কাজ করা অতীব জরুরী। একদিন কাজ না করলে এই সোয়া তিন কোটি মানুষের পেটে খাবার যায় না। তাই এসব মানুষ করোনাকে পাত্তা না দিয়ে জীবন বাঁচানোর তাগিদে কাজে নামতে বাধ্য হয়েছে।

আরেকটি পর্যবেক্ষণে দেখা গেছে, অনেক গবেষক মনে করেন যুক্তরাষ্ট্রে করোনায় মৃত্যুহার বেশি হওয়ার অন্যতম কারণ করোনাকে অবহেলা ও ইচ্ছাকৃত অসচেতনতা। আমরা যুক্তরাষ্ট্রের অবস্থা দেখছি, করোনা কি ভয়াবহ অবস্থা রুপ নিয়েছে সেখানে। যুক্তরাষ্ট্রের মতো আমাদের দেশেও মানুষ ইচ্ছাকৃত অসচেতনতাকে প্রাধান্য দিয়ে করোনাকে কিছু মনেই করছেন না। এটা অত্যন্ত ভয়ঙ্কর পরিস্থিতি ডেকে আনতে পারে। তাই করোনায় বাংলাদেশে মৃত্যুহার কমানোর জন্য আমাদের উচিত আরও স্বাস্থ্য সচেতন হওয়া এবং স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলতে বাধ্য করার ব্যাপারে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণ করা। কারণ করোনায় একটি একটি করে মৃতের সংখ্যা বাড়লেও আমাদের জীবন থেকে একজন একজন করে আপনজন হারিয়ে যাচ্ছে। একটি পরিবারের উপার্জনক্ষম মানুষ হারিয়ে যাচ্ছে। যার পরিণতি ভবিষ্যতে আমাদের ভোগ করতেই হবে। লেখক- উম্মে কুলসুম শিলা, শিক্ষার্থী, জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়।

 

টাইমস/এসএন

প্রাথমিকে সাড়ে ৩২ হাজার শিক্ষক নিয়োগের বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ

প্রাথমিকে সাড়ে ৩২ হাজার শিক্ষক নিয়োগের বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ

সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে সাড়ে ৩২ হাজার শিক্ষক নিয়োগের বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ

উপসর্গ নিয়ে করোনা ইউনিটে ভর্তি ঢাবির অনশনরত সেই ছাত্রী

উপসর্গ নিয়ে করোনা ইউনিটে ভর্তি ঢাবির অনশনরত সেই ছাত্রী

এবার উপসর্গ নিয়ে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের করোনা ইউনিটে ভর্তি

মাস্ক ব্যবহার নিশ্চিত করতে কঠোর হবে সরকার

মাস্ক ব্যবহার নিশ্চিত করতে কঠোর হবে সরকার

করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাব বেড়ে যাওয়ার আশঙ্কায় সবাইকে মাস্ক ব্যবহারে বাধ্য করতে

জাতীয়

প্রেম নিয়ে কটুক্তি করায় ভাবিকে শায়েস্তা করতে ভাতিজিকে শ্বাসরোধে হত্যা

প্রেম নিয়ে কটুক্তি করায় ভাবিকে শায়েস্তা করতে ভাতিজিকে শ্বাসরোধে হত্যা

প্রেম নিয়ে কটুক্তি করায় ভাবিকে শায়েস্তা করতে ৬ বছর বয়সী ভাতিজিকে শ্বাসরোধে হত্যা করেছে পাষণ্ড ফুফু। লোমহর্ষক এ ঘটনাটি ঘটেছে কুষ্টিয়া সদর উপজেলার হরিনারায়ণপুর গ্রামে।

রাজনীতি

মহিলা শ্রমিক লীগের পূর্ণাঙ্গ কমিটিতে পদ পেলেন যারা

মহিলা শ্রমিক লীগের পূর্ণাঙ্গ কমিটিতে পদ পেলেন যারা

মহিলা শ্রমিক লীগের ৩৫ সদস্য বিশিষ্ট কেন্দ্রীয় পূর্ণাঙ্গ কমিটির অনুমোদন দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। সোমবার (১৯ অক্টোবর) অনুমোদনপ্রাপ্ত কমিটি কেন্দ্রীয় সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের হাতে পূর্ণাঙ্গ কমিটির সদস্যদের তালিকা তুলে দেয়া হয়।

আন্তর্জাতিক

ইমরান খান বিরোধী বিক্ষোভে উত্তাল পাকিস্তান

ইমরান খান বিরোধী বিক্ষোভে উত্তাল পাকিস্তান

পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানের পদত্যাগের দাবিতে দেশটিতে ব্যাপক বিক্ষোভ শুরু হয়েছে। রোববার (১৮ অক্টোবর) পাকিস্তানের করাচি শহরে ব্যাপক বিক্ষোভ করেন বিরোধী দলগুলোর হাজার হাজার নেতাকর্মী। সোমবারও চলছে বিক্ষোভ।

জাতীয়

চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষককে ফেসবুকে হত্যার হুমকি : থানায় জিডি

চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষককে ফেসবুকে হত্যার হুমকি : থানায় জিডি

ফেসবুক মেসেঞ্জারে হত্যা এবং হিন্দু সম্প্রদায়কে নিশ্চিহ্ন করে দেয়ার হুমকির ঘটনায় চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের সংস্কৃত বিভাগের সহকারী অধ্যাপক কুশল বরণ চক্রবর্তী সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করেছেন।

জাতীয়

শিক্ষার্থীদের আন্দোলনে উত্তাল নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয় : জরুরি বৈঠকে ভিসি

শিক্ষার্থীদের আন্দোলনে উত্তাল নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয় : জরুরি বৈঠকে ভিসি

২০ শতাংশ টিউশন ফি ছাড় ও অর্থনৈতিক ভাবে অস্বচ্ছল শিক্ষার্থীদের শতভাগ ওয়েভার প্রদানসহ ৬ দফা দাবিতে আন্দোলন করছেন নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা।

বিনোদন

গাঙচিলের শুটিংয়ে ফের অসুস্থ পূর্ণিমা

গাঙচিলের শুটিংয়ে ফের অসুস্থ পূর্ণিমা

‘গাঙচিল’ সিনেমার শুটিং করার সময় হঠাৎ অসুস্থ হয়ে পড়েছেন চিত্রনায়িকা পূর্ণিমা। একই ছবির শুটিং করতে গিয়ে এর আগে নোয়াখালীতে মোটরসাইকেল দুর্ঘটনার শিকার হয়েছিলেন এই নায়িকা। এরপর বেশ কিছুদিন তিনি ‘গাঙচিল’ এর শুটিং থেকে দুরে ছিলেন।