• ঢাকা, বাংলাদেশ
  • বৃহস্পতিবার, ০৯ জুলাই ২০২০, ২৫ আষাঢ় ১৪২৭

রাজশাহীর কামারুজ্জামান কেন্দ্রীয় উদ্যান ও চিড়িয়াখানা

রাজশাহীর কামারুজ্জামান কেন্দ্রীয় উদ্যান ও চিড়িয়াখানা

ফিচার ডেস্ক১৪ আগস্ট ২০১৯, ১২:৩১এএম, ঢাকা-বাংলাদেশ।

রাজশাহীর অন্যতম বিনোদন কেন্দ্র শহীদ এ এইচ এম কামারুজ্জামান কেন্দ্রীয় উদ্যান ও চিড়িয়াখানা। এটি রাজশাহী শহরের অন্যতম বিনোদন কেন্দ্র এবং শিশুপার্ক হিসেবেও ব্যবহৃত হয়।

রাজশাহী শহরের পশ্চিম অংশে পদ্মার তীর ঘেঁষে গড়ে উঠেছে এই পর্যটন কেন্দ্রটি। শহর থেকে ৩ কিলোমিটার পশ্চিমে রাজপাড়া এলাকায় পর্যটন মোটেলের পশ্চিমে এবং রাজশাহী বিভাগীয় কমিশনারের কার্যালয় ও রাজশাহী পুলিশ লাইন্সের পূর্ব দিকে অবস্থিত।

১৯৭২ সালে মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম সংগঠক জাতীয় চার নেতার অন্যতম শহীদ এ এইচ এম কামারুজ্জামানের প্রচেষ্টায় ৩২ দশমিক ৭৬ একর জমির ওপর গড়ে তোলা হয় এই উদ্যান। ১৯৯৬ সালে উদ্যানটি রাজশাহী সিটি করপোরেশনের (রাসিক) আওতায় দেয়া হয়। তারপর থেকেই চিড়িয়াখানাটির রক্ষণাবেক্ষণে নিজস্ব বরাদ্দ থেকে ব্যয় করে আসছে সিটি করপোরেশন।

জানা গেছে, ব্রিটিশ আমলে ইংরেজরা আমাদের দেশে ঘোড়দৌড় বা রেস খেলার প্রচলন করে। খেলা দেখা ও বাজি ধরায় প্রচণ্ড উত্তেজনা সৃষ্টি হত। শহরাঞ্চলেই ঘোড়দৌড় মাঠ বা রেসকোর্স ছিল। রেসের নেশায় দূর-দূরান্ত থেকে মানুষ ছুটে আসতেন। অনেকে এ খেলায় সর্বস্বান্ত হয়েছে। রাজশাহী শহরের রেসকোর্স ছিল পদ্মার পাড়ে। জনপ্রিয় এই খেলা একসময় বন্ধ হয়ে যায়। এরপর দীর্ঘদিন পরিত্যক্ত ছিল রেসকোর্স ময়দান। বর্তমানে এই রেসকোর্স ময়দানেই গড়ে উঠেছে রাজশাহীর শহীদ এ এইচ এম কামারুজ্জামান কেন্দ্রীয় উদ্যান ও চিড়িয়াখানা।

এই উদ্যানে মূল্যবান গাছের চারা রোপণ, ফুল গাছের কোয়ারি ও কুঞ্জ তৈরি, লেক ও পুকুর খনন, কৃত্রিম পাহাড় তৈরি অর্থাৎ সামগ্রিক কাজ শুরু হয় ১৯৭৪-৭৫ ও ১৯৭৫-৭৬ সালে।

১৯৮৩ সালে রাজশাহীর জেলা প্রশাসক আবদুস সালাম একটি বড় ড্রামে এক জোড়া ঘড়িয়ালের বাচ্চা ছেড়ে দিয়ে চিড়িয়াখানার পত্তন করেন। ১৯৮৫ সালে জেলা প্রশাসক ও পরে বিভাগীয় কমিশনার ছৈয়দুর রহমান ও জেলা পরিষদের প্রকৌশলী আবদুর রহিম এর প্রচেষ্টায় একটি পূর্ণাঙ্গ চিড়িয়াখানায় উন্নীত হয়।

রাজশাহী কেন্দ্রীয় উদ্যান ও চিড়িয়াখানায় সবচেয়ে বেশি আছে কবুতর ও রাজহাঁস। এর বাইরে রয়েছে মেছোবাঘ, বেবুন, গন্ধগোকুল, গিনিপিগ, চীনা মুরগি, বাজ, টিয়া ও চিল। পশু-পাখির মধ্যে আরও রয়েছে ওয়াক, বাজরিকা, বালিহাঁস, ঘুঘু, ঘোড়া, হরিণ, ভালুক, উদবিড়াল, হনুমান, বানর, খরগোশ, মাছমুরাল, নলবক, হাড়গিলা, পেলিক্যান, সাদা বক, ধূসর বক, পেলিক্যান, গাধা, মাছমুরাল ও কালিম পাখি। এছাড়া রয়েছে দুটি করে ঘড়িয়াল ও কচ্ছপ আর একটি অজগর।

এখানে ১৯৯৭ সালে ঢাকা চিড়িয়াখানা থেকে প্রায় সাড়ে ছয় বছর বয়সী একটি বাঘ আনা হয় রাজশাহীতে। সম্রাট নামের ওই বাঘটি ১২ বছর নিঃসঙ্গ জীবন কাটিয়ে ২০০৮ সালের ২৯ নভেম্বর মারা যায়। আগে চিড়িয়াখানায় একজোড়া সিংহ-সিংহী ছিল। ২০১৩ সালে ১৪ বছর বয়সে সিংহীটি মারা যায়। ওই বছর সিংহটিও মৃত্যুবরণ করে। এরপর চিড়িয়াখানায় আর কোনো সিংহ আনা হয়নি।

যাওয়ার উপায়:

ঢাকা থেকে রাজশাহী: ঢাকা থেকে সড়ক, রেল ও আকাশ পথে রাজশাহী যাওয়া যায়। সড়কপথে ঢাকার গাবতলী ও কল্যাণপুর থেকে বাসে উঠতে হবে। এজন্য গ্রিন লাইন, দেশ ট্রাভেলস, শ্যামলী ও হানিফসহ বেশ কয়েকটি বাস সার্ভিস রয়েছে। শ্রেণিভেদে ভাড়া পড়বে ৪শ থেকে ১ হাজার টাকা।

রেলপথে যাওয়ার জন্য রয়েছে সিল্কসিটি এক্সপ্রেস ও পদ্মা এক্সপ্রেস নামে দুটি ট্রেন। রোববার ব্যতীত প্রতিদিন দুপুর ২টা ৪০ মিনিটে সিল্কসিটি এক্সপ্রেস এবং মঙ্গলবার ব্যতীত প্রতিদিন রাত ১১টা ১০ মিনিটে কমলাপুর থেকে রাজশাহীর উদ্দেশ্যে ছেড়ে যায়। ভাড়া শ্রেণিভেদে ৩৫০ থেকে ১ হাজার ৮১ টাকা পর্যন্ত।

এছাড়া আকাশ পথে ঢাকার শাহজালাল (র.) আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর থেকে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্স, ইউনাইটেড এয়ার ও ইউএস-বাংলা এয়ারের বিমানে রাজশাহী যাওয়া যায়।

রাজশাহী শহর থেকে রিক্সা বা অটোতে যাওয়া যায় উদ্যানে।

কোথায় থাকবেন: রাজশাহীতে থাকার জন্য রয়েছে বাংলাদেশ পর্যটন করপোরেশন মোটেল (০৭২১-৭৭৫২৩৭)

হোটেল হক্স ইন (০৭২১-৮১০৪২০)

নাইস ইন্টারন্যাশনাল(০৭২১-৭৭৬১৮৮)

মুক্তা ইন্টারন্যাশনাল (০৭২১-৭৭১১০০)

ডালাস ইন্টারন্যাশনাল (০৭২১-৮১১৪৭০)

হোটেল শুকরান (০৭২১-৭৭১৮১৭)

এসব হোটেলে ৫শ’ থেকে ৩ হাজার ৫শ’ টাকায় রুম পাওয়া যাবে।

 

 

টাইমস/এইচইউ/এসআই

উত্তরার পর রিজেন্ট হাসপাতালের মিরপুর শাখাও সিলগালা

উত্তরার পর রিজেন্ট হাসপাতালের মিরপুর শাখাও সিলগালা

নমুনা পরীক্ষা ছাড়াই করোনার ভুয়া রিপোর্ট দেওয়া, লাইসেন্সের মেয়াদ না

করোনায় আরও ৪৬ জনের মৃত্যু, আক্রান্ত ৩৪৮৯

করোনায় আরও ৪৬ জনের মৃত্যু, আক্রান্ত ৩৪৮৯

দেশে করোনাভাইরাসে গত ২৪ ঘন্টায় আরও ৪৬ জনের মৃত্যু হয়েছে।

ভারতের জনপ্রিয় আরেক অভিনেতার আত্মহত্যা

ভারতের জনপ্রিয় আরেক অভিনেতার আত্মহত্যা

বলিউডের সুপার স্টার সুশান্ত রাজপুতের মৃত্যুর রেশ কাটতে না কাটতেই

জাতীয়

কুয়েতের নাগরিক হলে এমপি থাকবেন না পাপুল -প্রধানমন্ত্রী

কুয়েতের নাগরিক হলে এমপি থাকবেন না পাপুল -প্রধানমন্ত্রী

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, লক্ষ্মীপুর-২ আসনের সংসদ সদস্য মোহাম্মদ শহীদুল হোসেন পাপুল কুয়েতের নাগরিক হয়ে থাকলে তার সংসদ সদস্য পদ থাকবে না। ওই পদ শূন্য হবে।

জাতীয়

ঝিনাইদহে নদীর পাড়ে মিলল ব্যাগ ভর্তি সরকারি ঔষধ

ঝিনাইদহে নদীর পাড়ে মিলল ব্যাগ ভর্তি সরকারি ঔষধ

ঝিনাইদহ জেলা শহরের গাজুরা গ্রামের নবগঙ্গা নদীর পাড় থেকে এ্যাসেনশিয়াল ড্রাগস কোম্পানির (ইডিসিএল) প্রস্তুত করা বিপুল পরিমাণ ঔষধ উদ্ধার করেছে পুলিশ। বুধবার দুপুরে ঝিনাইদহ সদর থানার ওসি মিজানুর রহমান এ খবর নিশ্চিত করেছেন।

জাতীয়

স্বামীকে গলাকেটে হত্যার পর ঘরে লাশ রেখে কাজে গেলেন স্ত্রী!

স্বামীকে গলাকেটে হত্যার পর ঘরে লাশ রেখে কাজে গেলেন স্ত্রী!

গাজীপুর মহানগরীর টঙ্গীতে দাম্পত্য কলহের জের ধরে স্ত্রীর বিরুদ্ধে স্বামীকে গলাকেটে হত্যার অভিযোগ পাওয়া গেছে। বুধবার সকালে টঙ্গীর হিমারদীঘি এলাকার জনৈক আ. কুদ্দুসের বাড়িতে এ ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় চার সন্তানের জননী নিহতের স্ত্রী বিউটি আক্তারকে (৪০) আটক করেছে পুলিশ।

জাতীয়

করোনার জাল স্বাস্থ্যসনদ বিক্রি, রিজেন্টের ৭ কর্মকর্তা রিমান্ডে

করোনার জাল স্বাস্থ্যসনদ বিক্রি, রিজেন্টের ৭ কর্মকর্তা রিমান্ডে

নমুনা পরীক্ষা ছাড়াই করোনা সংক্রান্ত জাল সনদ প্রদানসহ বিভিন্ন অপরাধের অভিযোগে রাজধানীর রিজেন্ট হাসপাতালের ৭ কর্মকর্তাকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। গ্রেপ্তার ৭ আসামিকে আদালতের মাধ্যমে পাঁচ দিনের রিমান্ডে নেয়া হয়েছে।

জাতীয়

স্বর্ণপদকপ্রাপ্ত চেয়ারম্যানের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার, খুন নাকি আত্মহত্যা!

স্বর্ণপদকপ্রাপ্ত চেয়ারম্যানের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার, খুন নাকি আত্মহত্যা!

মৌলভীবাজার সদর উপজেলার ২ নম্বর মনুমুখ ইউনিয়নের স্বর্ণপদকপ্রাপ্ত সাবেক চেয়ারম্যান সুজন মিয়ার ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। তবে এটি হত্যা নাকি আত্মহত্যা তা নিশ্চিত হতে পারেনি পুলিশ।

স্বাস্থ্য

ঠান্ডা পানি পানে হতে পারে বড় বিপদ!

ঠান্ডা পানি পানে হতে পারে বড় বিপদ!

গরমের দিনে আমরা অনেকেই ঠান্ডা পানি পান করে থাকি। আবার অনেকে বাইরে থেকে বাড়িতে ঢুকেই ঢক ঢক করে কয়েক গ্লাস ঠান্ডা পানি পান করেন। তারপরই যেন মিলে স্বস্তি। তীব্র গরমে ফ্রিজের ঠান্ডা পানিই যেন একমাত্র মহৌষধ। কিন্ত এ স্বস্তিই একদিন আপনার কাল হতে পারে। বিপন্ন করে তুলতে পারে জীবনকে। কারণ ঠান্ডা পানি পান স্বাস্থ্যের জন্য মোটেও ভালো নয়। তাই ঠান্ডা পানি পানের অভ্যাস থাকলে এখনই বদলে ফেলুন।