• ঢাকা, বাংলাদেশ
  • বৃহস্পতিবার, ০১ অক্টোবর ২০২০, ১৬ আশ্বিন ১৪২৭

মতামত

গার্লফ্রেন্ডের জন্য বিশ্ববিদ্যালয়ের হলে ৩৮ বছর ধরে অপেক্ষা!

গার্লফ্রেন্ডের জন্য বিশ্ববিদ্যালয়ের হলে ৩৮ বছর ধরে অপেক্ষা!

ছবির লোকটাকে দেখে প্রথমেই কী ধারণা আসছে আপনার মনে? রাস্তা থেকে ধরে ছবি তুলছি মনে হয়? নাকি প্রান্তিক শ্রেণির কর্মজীবী মনে হয়? নাকি অন্যকিছু? যদি মনে হয়ে থাকে তবে একটা চমক দেই আপনাকে। এখন ২০২০ সাল চলছে। ১৯৮২ থেকে ২০২০ কত বছর হয়? ৩৮ বছর। ছবিতে আমি অধম যার পাশে দাড়িয়ে আছি সেই ভদ্রলোক (সরু ভাই) ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী ছিলেন। ১৯৮২

করোনাকে অবহেলা কেন?

করোনাকে অবহেলা কেন?

করোনায় বাংলাদেশে মৃত্যুহার কমানোর জন্য আমাদের উচিত আরও স্বাস্থ্য সচেতন হওয়া এবং স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলতে বাধ্য করার ব্যাপারে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণ করা। কারণ করোনায় একটি একটি করে মৃতের সংখ্যা বাড়লেও আমাদের জীবন থেকে একজন একজন করে আপনজন হারিয়ে যাচ্ছে। একটি পরিবারের উপার্জনক্ষম মানুষ হারিয়ে যাচ্ছে। যার পরিণতি ভবিষ্যতে আমাদের ভোগ করতেই হবে।

ভারতের পেঁয়াজ নিয়ে খেলা : নেপথ্যে কী রাজনীতি?

ভারতের পেঁয়াজ নিয়ে খেলা : নেপথ্যে কী রাজনীতি?

সুযোগ পেয়ে এই পেঁয়াজ নিয়েই বারবার নোংরা বাণিজ্য খেলা করে চলেছে ভারত। ন্যূনতম বাণিজ্যিক শিষ্ঠাচার জানা থাকলে ভারত এ আচরণ করতে পারতো না। ভারতের ভাবসাব দেখে মনে হয়, বাংলাদেশ তাদের কাছ থেকে পেঁয়াজ অনুদান হিসেবে নিয়ে থাকে। কিন্তু এই ধারণা মোটেও ঠিক নয়। গাটের টাকা খরচ করে ভারত থেকে পেঁয়াজ আমদানি করে বাংলাদেশ।

পালিয়ে যাওয়া সেই ছেলেটি এখন নটরডেমের জনপ্রিয় শিক্ষক!

পালিয়ে যাওয়া সেই ছেলেটি এখন নটরডেমের জনপ্রিয় শিক্ষক!

একদিন বাবার সাথে অভিমান করে বাড়ি থেকে চলে যাই। দূরের একটা বাড়িতে থাকতাম। ওই বাড়ির কয়েকটা ছোট বাচ্চা পড়াতাম। খাওয়া দাওয়া ওখানেই ছিল। মাই বয়, আমার এখনো মনে পড়ে আমি একবার ১৫ দিন দাঁত ব্রাশ করি নি। টুথপেস্ট কেনার মত টাকাও ছিল না আমার।

বাংলাদেশ-চীন ভ্যাকসিন কূটনীতিতে ছিটকে পড়েছে ভারত

বাংলাদেশ-চীন ভ্যাকসিন কূটনীতিতে ছিটকে পড়েছে ভারত

ভারতীয় গণমাধ্যম বলছে, বাংলাদেশি কূটনৈতিক মহলের কেউ কেউ বিষয়টাকে শ্রিংলার ঢাকায় নিয়ে আসা 'ভ্যাকসিন ডিপ্লোম্যাসি'র ব্যর্থতা হিসেবে দেখছেন।

করোনার বিষয়ে ঠিক কতটা পূর্বাভাস আমরা পেয়েছি?

করোনার বিষয়ে ঠিক কতটা পূর্বাভাস আমরা পেয়েছি?

এই নিবন্ধের শুরুতে যেমনটি বলা হয়েছে, করোনাভাইরাসের মতো একটি মহামারী যে আসতে পারে তা বহু আগেই ধারণা করা হয়েছিল। পরিস্থিতি মোকাবিলায় সময়ও পর্যাপ্ত ছিল না। গত দুই দশক ধরে পূর্বের প্রকোপ এবং তার সময়সীমা বিশ্লেষণ করে গবেষকরা বিশ্বব্যাপী রাজনৈতিক নেতাদের এবং সরকারগুলোকে এই সতর্কবার্তাটি গুরুত্বের সাথে নেয়ার জন্য হুশিয়ার করছিলেন।