• ঢাকা, বাংলাদেশ
  • শনিবার, ০৬ জুন ২০২০, ২৩ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭

রাজশাহীর কামারুজ্জামান কেন্দ্রীয় উদ্যান ও চিড়িয়াখানা

রাজশাহীর কামারুজ্জামান কেন্দ্রীয় উদ্যান ও চিড়িয়াখানা

ফিচার ডেস্ক১৪ আগস্ট ২০১৯, ১২:৩১এএম, ঢাকা-বাংলাদেশ।

রাজশাহীর অন্যতম বিনোদন কেন্দ্র শহীদ এ এইচ এম কামারুজ্জামান কেন্দ্রীয় উদ্যান ও চিড়িয়াখানা। এটি রাজশাহী শহরের অন্যতম বিনোদন কেন্দ্র এবং শিশুপার্ক হিসেবেও ব্যবহৃত হয়।

রাজশাহী শহরের পশ্চিম অংশে পদ্মার তীর ঘেঁষে গড়ে উঠেছে এই পর্যটন কেন্দ্রটি। শহর থেকে ৩ কিলোমিটার পশ্চিমে রাজপাড়া এলাকায় পর্যটন মোটেলের পশ্চিমে এবং রাজশাহী বিভাগীয় কমিশনারের কার্যালয় ও রাজশাহী পুলিশ লাইন্সের পূর্ব দিকে অবস্থিত।

১৯৭২ সালে মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম সংগঠক জাতীয় চার নেতার অন্যতম শহীদ এ এইচ এম কামারুজ্জামানের প্রচেষ্টায় ৩২ দশমিক ৭৬ একর জমির ওপর গড়ে তোলা হয় এই উদ্যান। ১৯৯৬ সালে উদ্যানটি রাজশাহী সিটি করপোরেশনের (রাসিক) আওতায় দেয়া হয়। তারপর থেকেই চিড়িয়াখানাটির রক্ষণাবেক্ষণে নিজস্ব বরাদ্দ থেকে ব্যয় করে আসছে সিটি করপোরেশন।

জানা গেছে, ব্রিটিশ আমলে ইংরেজরা আমাদের দেশে ঘোড়দৌড় বা রেস খেলার প্রচলন করে। খেলা দেখা ও বাজি ধরায় প্রচণ্ড উত্তেজনা সৃষ্টি হত। শহরাঞ্চলেই ঘোড়দৌড় মাঠ বা রেসকোর্স ছিল। রেসের নেশায় দূর-দূরান্ত থেকে মানুষ ছুটে আসতেন। অনেকে এ খেলায় সর্বস্বান্ত হয়েছে। রাজশাহী শহরের রেসকোর্স ছিল পদ্মার পাড়ে। জনপ্রিয় এই খেলা একসময় বন্ধ হয়ে যায়। এরপর দীর্ঘদিন পরিত্যক্ত ছিল রেসকোর্স ময়দান। বর্তমানে এই রেসকোর্স ময়দানেই গড়ে উঠেছে রাজশাহীর শহীদ এ এইচ এম কামারুজ্জামান কেন্দ্রীয় উদ্যান ও চিড়িয়াখানা।

এই উদ্যানে মূল্যবান গাছের চারা রোপণ, ফুল গাছের কোয়ারি ও কুঞ্জ তৈরি, লেক ও পুকুর খনন, কৃত্রিম পাহাড় তৈরি অর্থাৎ সামগ্রিক কাজ শুরু হয় ১৯৭৪-৭৫ ও ১৯৭৫-৭৬ সালে।

১৯৮৩ সালে রাজশাহীর জেলা প্রশাসক আবদুস সালাম একটি বড় ড্রামে এক জোড়া ঘড়িয়ালের বাচ্চা ছেড়ে দিয়ে চিড়িয়াখানার পত্তন করেন। ১৯৮৫ সালে জেলা প্রশাসক ও পরে বিভাগীয় কমিশনার ছৈয়দুর রহমান ও জেলা পরিষদের প্রকৌশলী আবদুর রহিম এর প্রচেষ্টায় একটি পূর্ণাঙ্গ চিড়িয়াখানায় উন্নীত হয়।

রাজশাহী কেন্দ্রীয় উদ্যান ও চিড়িয়াখানায় সবচেয়ে বেশি আছে কবুতর ও রাজহাঁস। এর বাইরে রয়েছে মেছোবাঘ, বেবুন, গন্ধগোকুল, গিনিপিগ, চীনা মুরগি, বাজ, টিয়া ও চিল। পশু-পাখির মধ্যে আরও রয়েছে ওয়াক, বাজরিকা, বালিহাঁস, ঘুঘু, ঘোড়া, হরিণ, ভালুক, উদবিড়াল, হনুমান, বানর, খরগোশ, মাছমুরাল, নলবক, হাড়গিলা, পেলিক্যান, সাদা বক, ধূসর বক, পেলিক্যান, গাধা, মাছমুরাল ও কালিম পাখি। এছাড়া রয়েছে দুটি করে ঘড়িয়াল ও কচ্ছপ আর একটি অজগর।

এখানে ১৯৯৭ সালে ঢাকা চিড়িয়াখানা থেকে প্রায় সাড়ে ছয় বছর বয়সী একটি বাঘ আনা হয় রাজশাহীতে। সম্রাট নামের ওই বাঘটি ১২ বছর নিঃসঙ্গ জীবন কাটিয়ে ২০০৮ সালের ২৯ নভেম্বর মারা যায়। আগে চিড়িয়াখানায় একজোড়া সিংহ-সিংহী ছিল। ২০১৩ সালে ১৪ বছর বয়সে সিংহীটি মারা যায়। ওই বছর সিংহটিও মৃত্যুবরণ করে। এরপর চিড়িয়াখানায় আর কোনো সিংহ আনা হয়নি।

যাওয়ার উপায়:

ঢাকা থেকে রাজশাহী: ঢাকা থেকে সড়ক, রেল ও আকাশ পথে রাজশাহী যাওয়া যায়। সড়কপথে ঢাকার গাবতলী ও কল্যাণপুর থেকে বাসে উঠতে হবে। এজন্য গ্রিন লাইন, দেশ ট্রাভেলস, শ্যামলী ও হানিফসহ বেশ কয়েকটি বাস সার্ভিস রয়েছে। শ্রেণিভেদে ভাড়া পড়বে ৪শ থেকে ১ হাজার টাকা।

রেলপথে যাওয়ার জন্য রয়েছে সিল্কসিটি এক্সপ্রেস ও পদ্মা এক্সপ্রেস নামে দুটি ট্রেন। রোববার ব্যতীত প্রতিদিন দুপুর ২টা ৪০ মিনিটে সিল্কসিটি এক্সপ্রেস এবং মঙ্গলবার ব্যতীত প্রতিদিন রাত ১১টা ১০ মিনিটে কমলাপুর থেকে রাজশাহীর উদ্দেশ্যে ছেড়ে যায়। ভাড়া শ্রেণিভেদে ৩৫০ থেকে ১ হাজার ৮১ টাকা পর্যন্ত।

এছাড়া আকাশ পথে ঢাকার শাহজালাল (র.) আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর থেকে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্স, ইউনাইটেড এয়ার ও ইউএস-বাংলা এয়ারের বিমানে রাজশাহী যাওয়া যায়।

রাজশাহী শহর থেকে রিক্সা বা অটোতে যাওয়া যায় উদ্যানে।

কোথায় থাকবেন: রাজশাহীতে থাকার জন্য রয়েছে বাংলাদেশ পর্যটন করপোরেশন মোটেল (০৭২১-৭৭৫২৩৭)

হোটেল হক্স ইন (০৭২১-৮১০৪২০)

নাইস ইন্টারন্যাশনাল(০৭২১-৭৭৬১৮৮)

মুক্তা ইন্টারন্যাশনাল (০৭২১-৭৭১১০০)

ডালাস ইন্টারন্যাশনাল (০৭২১-৮১১৪৭০)

হোটেল শুকরান (০৭২১-৭৭১৮১৭)

এসব হোটেলে ৫শ’ থেকে ৩ হাজার ৫শ’ টাকায় রুম পাওয়া যাবে।

 

 

টাইমস/এইচইউ/এসআই

করোনার ‘হটস্পট’ ভিত্তিক লকডাউন আসছে

করোনার ‘হটস্পট’ ভিত্তিক লকডাউন আসছে

এবার নতুন করে করোনা সংক্রমণের ‘হটস্পট’ বা এলাকা ভিত্তিক লকডাউনের

বিশ্ববিদ্যালয়ে ফেল করা সেই ছেলেটি পাঠাওয়ের সফল টিম লিডার!

বিশ্ববিদ্যালয়ে ফেল করা সেই ছেলেটি পাঠাওয়ের সফল টিম লিডার!

শুধুমাত্র একাডেমিক পড়াশোনা দিয়ে কিছু হয়না সেটি আরেকবার প্রমাণ করলেন

মানুষের পাশে থেকে করোনায় আক্রান্ত বিসিএস ক্যাডার!

মানুষের পাশে থেকে করোনায় আক্রান্ত বিসিএস ক্যাডার!

মামুনুর রশীদ ওরফে আল মামুন। এই বিসিএস ক্যাডার ঢাকা জেলা

জাতীয়

করোনায় আরও ৩৫ জনের মৃত্যু, আক্রান্ত বাড়ছেই

করোনায় আরও ৩৫ জনের মৃত্যু, আক্রান্ত বাড়ছেই

প্রাণঘাতী করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে দেশে গত ২৪ ঘন্টায় আরও ৩৫ জনের মৃত্যু হয়েছে। এ নিয়ে এখন পর্যন্ত মোট মৃত্যুর সংখ্যা দাড়াল ৮৪৬ জন।

আন্তর্জাতিক

ক্লাসে তাচ্ছিল্যের শিকার সেই ছাত্রী এখন বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি!

ক্লাসে তাচ্ছিল্যের শিকার সেই ছাত্রী এখন বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি!

ক্লাসে বহুবার তিনি তাচ্ছিল্যের শিকার হয়েছেন। শিক্ষকরা তাকে তুচ্ছ-তাচ্ছিল্য করে বলতেন তোমার দ্বারা কিছু হবে। তাচ্ছিল্যের শিকার সেই ছাত্রীটিই

জাতীয়

পাঁচ কিলোমিটার সড়কে বৃক্ষরোপণ করে করোনায় মৃতদের স্মরণ

পাঁচ কিলোমিটার সড়কে বৃক্ষরোপণ করে করোনায় মৃতদের স্মরণ

প্রাণঘাতী করোনাভাইরাসের সংক্রমণে বিপর্যস্ত পুরো বিশ্ব। ভাইরাসটিতে আক্রান্ত হয়ে সারা বিশ্বে প্রতিদিনই প্রাণ হারাচ্ছে সহস্রাধিক মানুষ। এবার করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে মৃতদের স্মরণে এক ব্যতিক্রম উদ্যোগ হাতে নেওয়া হয়েছে বরিশালের গৌরনদী উপজেলার মাহিলাড়া ইউনিয়নে। মৃতদের স্মরণে পাঁচ কিলোমিটার সড়কের পাশে বৃক্ষরোপণ করা হয়েছে।

জাতীয়

গণস্বাস্থ্যের করোনা কিটের পরীক্ষা শেষ, প্রতিবেদন বুধবার

গণস্বাস্থ্যের করোনা কিটের পরীক্ষা শেষ, প্রতিবেদন বুধবার

গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের উদ্ভাবিত করোনার অ্যান্টিবডি কিটের কার্যকারিতা পরীক্ষা শেষ করেছে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় (বিএসএমএমইউ)। কিটের কার্যকারিতা পরীক্ষার প্রতিবেদন আগামী বুধবারের মধ্যে ওষুধ প্রশাসনে জমা দেয়া হবে।

আন্তর্জাতিক

বর্ণবাদ বিরোধী বিক্ষোভে হাঁটু গেড়ে সংহতি জানালেন জাস্টিন ট্রুডো

বর্ণবাদ বিরোধী বিক্ষোভে হাঁটু গেড়ে সংহতি জানালেন জাস্টিন ট্রুডো

বর্ণবাদ বিরোধী বৈশ্বিক আন্দোলনে সংহতি জানিয়েছেন কানাডার প্রধানমন্ত্রী ও বিশ্ব নেতৃত্বের আইকন জাস্টিন ট্রুডো। সম্প্রতি কানাডার রাজধানী অটোয়ায় পার্লামেন্ট হিলে প্রাঙ্গণে অনুষ্ঠিত বর্ণবাদ বিরোধী বিক্ষোভে কালো মাস্ক পরে হাজির হন তিনি।

স্বাস্থ্য

কিছু মানুষকে আক্রান্ত করার ক্ষমতা নেই করোনার

কিছু মানুষকে আক্রান্ত করার ক্ষমতা নেই করোনার

বিশ্বজুড়ে করোনাভাইরাসের আক্রান্তের সংখ্যা বেড়েই চলছে। একই সঙ্গে প্রতিদিনই পাল্লা দিয়ে বাড়ছে মৃত্যুর সংখ্যারও। তবে এ মহামারীর মধ্যেও কিছু মানুষ কখনও করোনায় আক্রান্ত হবেন না। সম্প্রতি সেল জার্নালে প্রকাশিত এক নতুন গবেষণায় এমন দাবি করা হয়েছে। গবেষণায় বলা হয়, সব মানুষের শরীরে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ ঘটানোর সক্ষমতা নেই। কিছু মানুষের শরীরে এমন ধরনের ‘টি সেল’ (এর টিকা নিউজের শেষে দেয়া আছে) রয়েছে, যার কারণে তারা কখনও এই ভাইরাসে আক্রান্ত হবেন না।