প্রাথমিকে শিক্ষক নিয়োগে ১০ হাজার পদ বাড়ছে

প্রাথমিকে সহকারী শিক্ষক নিয়োগে বাড়ানো হচ্ছে পদের সংখ্যা। যদিও বিজ্ঞপ্তিতে ৩২ হাজার ৫৭৭ জনের নিয়োগের কথা জানানো হয়েছিল কিন্তু বর্তমানে শূন্যপদের সংখ্যা বিবেচনায় এই সংখ্যা আরো প্রায় ১০ হাজার বাড়ানোর বিষয়ে ইতিবাচক সিদ্ধান্ত নিতে যাচ্ছে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়। সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে সহকারী শিক্ষক নিয়োগে পদ সংখ্যা বাড়ানোর বিষয়ে ইতোমধ্যে ইতিবাচক সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। মূলত সে কারণেই গত সপ্তাহে এই নিয়োগ পরীক্ষার চূড়ান্ত ফল প্রকাশ না করে আর দুই সপ্তাহ সময় নেয়া হয়েছে। আশা করা হচ্ছে আগামী ১৪ ডিসেম্বর পদের সংখ্যা বাড়িয়ে চূড়ান্ত ফল প্রকাশ করা হবে।

সূত্র জানায়, প্রাথমিকে নিয়োগ বিজ্ঞপ্তিতে উল্লেখিত ৩২ হাজার ৫৭৭টি পদের সঙ্গে আরো ১০ হাজার পদ যুক্ত করা হতে পারে। সে জন্যই সহকারী শিক্ষক নিয়োগের চূড়ান্ত ফল আগামী ১৪ ডিসেম্বর প্রকাশের সময় নির্ধারণ করা হয়েছে বলে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয় থেকে জানা গেছে।

এ বিষয়ে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সচিব ফরিদ আহাম্মদ জানান, আমরা স্টাডি করছি, কত সংখ্যক সহকারী শিক্ষকের পদ শূন্য রয়েছে। তার ভিত্তিতে বিজ্ঞপ্তিতে উল্লেখিত পদের চাইতে এ সংখ্যা বাড়ানো হবে। তিনি আরো জানান, এ নিয়োগ পরিচালনায় গত দুই বছর সময় পার হয়েছে। শিক্ষক পদে নিয়োগের জন্য আবেদন করা অনেকে বিভিন্ন জায়গায় ভালো চাকরি করছেন। সবগুলো বিষয় নিয়ে আমরা পর্যালোচনা করছি। দেশের সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের শূন্য পদের সংখ্যা নির্ণয় করে শিক্ষক নিয়োগে পদ সংখ্যা বাড়াতে কাজ করা হচ্ছে।

সর্বশেষ শূন্য সব পদে নিয়োগ দেয়া হবে কি না জানতে চাইলে সচিব বলেন, এ বিষয়ে আমরা স্টাডি করছি। আমরা শূন্য পদ ধরবো, না কী চলতি বছরের ২২ জুন ধরবো, নাকি জানুয়ারি পর্যন্ত ধরবো তা নিয়ে পর্যবেক্ষণ করা হচ্ছে। এর ওপরে সুবিধাবঞ্চিত এলাকায় কত সংখ্যক শিক্ষক পদ শূন্য রয়েছে এগুলো নিয়ে কাজ করছি। আগামী ১৪ ডিসেম্বরের মধ্যে আমাদের কাজ শেষ হবে। ১৪ ডিসেম্বর শিক্ষক নিয়োগের ফলাফল প্রকাশ করা হবে।

এ দিকে প্রাথমিক শিক্ষা অধিদফতর (ডিপিই) সূত্রে জানা যায়, সহকারী শিক্ষকের পদসংখ্যা বাড়িয়ে ৪৫ হাজার শিক্ষক নিয়োগের ঘোষণা দেন প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়। পরে এ সংখ্যা কমিয়ে বিজ্ঞপ্তিতে উল্লেখিত ৩২ হাজার ৫৭৭টি পদে নিয়োগ দেয়ার সিদ্ধান্ত নেয় মন্ত্রণালয়। সে কারণে নিয়োগ পরীক্ষায় আবেদন করা প্রার্থীরা আন্দোলনে নামে। দফায় দফায় তারা প্রাথমিক শিক্ষা অধিদফতর ঘেরাও করে আন্দোলন চালিয়ে যায়। পরে এ বিষয়ে প্রধানমন্ত্রীর দফতর থেকে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়কে সব শূন্য পদে নিয়োগ দিতে বলা হয়। তার ভিত্তিতে মন্ত্রণালয় শিক্ষক নিয়োগের জন্য পদ বাড়ানো সিদ্ধান্ত নিয়ে ফলাফল প্রকাশের সময় পিছিয়ে দেয়।

Share this news on:

সর্বশেষ

img
বিএনপি নেতা আসিফ নিখোঁজ নাকি আত্মগোপনে? Jan 30, 2023
img
‘গণতান্ত্রিক ধারা অব্যাহত আছে বলেই দেশ স্যাটেলাইট যুগে ঢুকেছে’ Jan 30, 2023
img
মেক্সিকোর নাইটক্লাবে এলোপাতাড়ি গুলি, নিহত ৮ Jan 30, 2023
img
পাঠ্যপুস্তকে ভুল সংশোধন ও গাফিলতি ধরতে দুই কমিটি Jan 30, 2023
img
আইএমএফ ৪.৫ বিলিয়ন ডলার ঋণ অনুমোদন দিতে পারে আজ Jan 30, 2023
img
শর্ত সাপেক্ষে হিন্দি সিনেমা আমদানির পক্ষে: নিপুণ Jan 29, 2023
img
‘যুক্তরাষ্ট্র, চীন ও ভারতের সাথে সম্পর্ক রেখে চলাই চ্যালেঞ্জ’ Jan 29, 2023
img
পুলিশের গুলিতে আহত ওডিশার স্বাস্থ্যমন্ত্রীর মৃত্যু Jan 29, 2023
img
রেলের ২৮১৭ একর জমি বেদখলে: সংসদে রেলমন্ত্রী Jan 29, 2023
img
বিদ্যুৎ-গ্যাস-তেলের দাম সমন্বয়ের ক্ষমতা সরকারের হাতে রেখে বিল পাস Jan 29, 2023