• ঢাকা, বাংলাদেশ
  • বৃহস্পতিবার, ১৩ আগস্ট ২০২০, ২৯ শ্রাবণ ১৪২৭

শিশুর ডেঙ্গু জ্বরে করণীয়

শিশুর ডেঙ্গু জ্বরে করণীয়

ফিচার ডেস্ক২৭ জুলাই ২০২০, ০২:৪২পিএম, ঢাকা-বাংলাদেশ।

আমাদের দেশে ব্যাপকভাবে ছড়িয়ে পড়া একটি রোগের নাম ডেঙ্গু জ্বর। প্রতিবছর জুন-জুলাই থেকে অক্টোবর-নভেম্বর পর্যন্ত ডেঙ্গুর প্রকোপ দেখা দেয়। আলোচিত এই রোগে বেশিরভাগই আক্রান্ত হয় শিশুরা। ডেঙ্গু জ্বর এডিস মশাবাহিত রোগ। এই মশা ঘরের আশেপাশে জমানো পানিতে জন্মায় এবং সাধারণত দিনের বেলা কামড়ায়। তবে শিশুদের ক্ষেত্রে ডেঙ্গু জ্বর খুব বেশি মারাত্মক হয় না। মা-বাবা, আত্মীয়-স্বজন সব সময় শিশুর জ্বর হলেই উদ্বিগ্ন হয়ে পড়েন, ডাক্তারের কাছে ছুটে যান। আবার অনেক সময় কোনো শিশু দু’তিন দিনের জ্বর নিয়ে এলে ডাক্তার ডেঙ্গু এন্টিবডি পরীক্ষা করাতে দেন, যা বেশ খরচ সাপেক্ষ এবং শিশুকে ক্লিনিক বা হাসপাতালে ভর্তি করান স্যালাইন বা রক্ত দেওয়ার জন্য। আসলে সময় মতো সঠিক চিকিৎসা ব্যবস্থা নিলে ডেঙ্গু জ্বরে শিশুর ক্ষতি হয় না বা মৃত্যুও ঘটে না।

কীভাবে বুঝবেন শিশুর ডেঙ্গু জ্বর হয়েছে:

জ্বরের লক্ষণ অনুসারে এ জ্বরকে তিনটি পর্যায়ে ভাগ করা হয়।

প্রথম পর্যায়

তিন থেকে পাঁচ দিন পর্যন্ত জ্বর স্থায়ী হতে পারে।

লক্ষণগুলো হলো-

  • তীব্র জ্বর (১০৩ ডিগ্রী থেকে ১০৫ ডিগ্রী ফারেনহাইট)।
  • তীব্র মাথাব্যথা, বিশেষ করে কপালের দিকে।
  • চোখের পেছনে ব্যথা, যা চোখের মণি ঘুরালে বাড়ে।
  • পুরো শরীর ব্যথা এবং গিঁটে ব্যথা।
  • বমিভাব বা বমি করা।

দ্বিতীয় পর্যায়

এ সময়ে জ্বর কমে যায়, কিন্তু রক্তক্ষরণ বা অজ্ঞান হয়ে যাওয়ার আশঙ্কা থাকে। যা দু’তিন দিন পর্যন্ত থাকতে পারে। কখনো কখনো শুধু হাতের তালু, পায়ের তালু বা শরীরের ত্বকের নিচে লাল হয়ে যায় এবং চুলকায়।

শরীরের ভেতর রক্তক্ষরণ হওয়া বা অজ্ঞান হয়ে যাওয়ার লক্ষণগুলো হলো-

  • তীব্র এবং একটানা পেট ব্যথা।
  • নাক-মুখ, দাঁতের মাড়ি বা ত্বকের নিচে রক্তক্ষরণ।
  • বারবার বমি এবং সঙ্গে রক্ত যাওয়া।
  • আলকাতরার মতো পায়খানা।
  • খুব বেশি পিপাসা পাওয়া বা জিহ্বা শুকিয়ে যাওয়া।
  • প্রস্রাব কমে যাওয়া।
  • জ্বরের সঙ্গে শরীরে লাল লাল দাগ দেখা যাওয়া।
  • চোখের সাদা অংশে রক্ত জমাট বেধে যাওয়া।
  • শরীর ঠাণ্ডা বা ফ্যাকাসে হয়ে যাওয়া।
  • অতিরিক্ত ঘাম হওয়া।

বিশেষ লক্ষণগুলো হলো-

  • ঘুম ঘুম ভাব।
  • একটানা কান্না।
  • শ্বাসকষ্ট।

এসব লক্ষণের যে কোনো একটি দেখা গেলেই শিশুকে দ্রুত ডাক্তার দেখান বা হাসপাতালে নিয়ে যান।

তৃতীয় পর্যায়

অল্প ক’দিনের মধ্যে শিশু ভালো হয়ে যায়। যদিও শরীরে দুর্বল ভাবটা থেকেই যায় তারপরেও রোগী খেতে পারে, চলাফেরা করতে পারে। সব মিলিয়ে পুরো অসুস্থতার সময়টা ৭ থেকে ১০ দিন পর্যন্ত থাকতে পারে।

আপনার করণীয়

  • শরীরের তাপমাত্রা ১০১ ডিগ্রী ফারেনহাইটের নিচে রাখতে চেষ্টা করুন এবং জ্বর কমানোর জন্য শুধু প্যারাসিটামল ব্যবহার করুন (দিনে চার বারের বেশি নয়)। বারবার কাপড় ভিজিয়ে শরীর মুছে দিন। আইবুপ্রুফেন, এসপিরিন, ডাইক্লোফেন জাতীয় ওষুধ ব্যবহার করবেন না। এগুলো রক্তক্ষরণ বাড়িয়ে দেয়।
  • সব জ্বরে বিশেষ করে ডেঙ্গু জ্বর সন্দেহ হলে শিশুকে বেশি করে পানি বা পানি জাতীয় খাবার দিন, যেমন- খাবার স্যালাইন, ডাব, স্যুপ, দুধ, ফলের রস এবং এসবের সঙ্গে অন্যান্য খাবার দিন।
  • বারবার বমি হলে হাসপাতালে নিয়ে যান।
  • রক্তক্ষরণজনিত কোনো সমস্যা দেখা দিলে সঙ্গে সঙ্গে হাসপাতালে নিন।
  • রক্ত পরীক্ষা, যার মাধ্যমে ডেঙ্গু এন্টিবডি দেখা যায় সেগুলো ব্যয় সাপেক্ষ এবং শিশুর চিকিৎসার জন্য দরকার নেই, তা না করে সাধারণ প্লেটলেট কাউন্ট এবং পিসিভি পরীক্ষা করাই যথেষ্ট।
  • মা-বাবা বা অভিভাবক হিসেবে নিজে ঘাবড়ে যাবেন না বা শিশুর সামনে তা প্রকাশ করবেন না।
  • মশা কামড়ালেই ডেঙ্গু রোগ হয় না।
  • সব জ্বর বিশেষ করে তীব্র জ্বরই ডেঙ্গু নয়, যে কোনো ভাইরাস জ্বরে তীব্র জ্বর হতে পারে। 
  • সাধারণত ডেঙ্গু জ্বরে সর্দি-কাশি থাকে না।
  • সব ডেঙ্গু জ্বরে স্যালাইন বা রক্ত দেওয়ার প্রয়োজন নেই।

 

টাইমস/এসই/এইচইউ

করোনায় দেশে আরও ৪৪ জনের মৃত্যু

করোনায় দেশে আরও ৪৪ জনের মৃত্যু

করোনায় দেশে আরও ৪৪ জনের মৃত্যুগত ২৪ ঘণ্টায় দেশে করোনাভাইরাসে

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক হলেন সেব্রিনা ফ্লোরা

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক হলেন সেব্রিনা ফ্লোরা

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক (প্রশাসন) হিসেবে নিয়োগ পেয়েছেন অধ্যাপক ডা.

ট্রেনে একজনের টিকিটে অন্যজন ভ্রমণে দণ্ড-জরিমানা

ট্রেনে একজনের টিকিটে অন্যজন ভ্রমণে দণ্ড-জরিমানা

কোনো ব্যক্তি ট্রেনে ভ্রমণের নিজ টিকিট, রিটার্ন টিকিট অথবা নির্দিষ্ট

জাতীয়

ব্রিফিং বন্ধের ব্যাখ্যা দিলেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী

ব্রিফিং বন্ধের ব্যাখ্যা দিলেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী

করোনাভাইরাসের বিষয়ে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের নিয়মিত অনলাইন বুলেটিন বন্ধ করার ব্যাখ্যা দিয়েছেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক। তিনি জানিয়েছেন, করোনা সংক্রমণ ও মৃত্যুহার কমে আসার কারণেই সরাসরি ব্রিফিং না করে, প্রেস বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে এ সংক্রান্ত তথ্য জানানোর ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে।

আন্তর্জাতিক

চিকিৎসায় সাড়া দিচ্ছেন না প্রণব মুখার্জি, রাখা হয়েছে ভেন্টিলেশনে

চিকিৎসায় সাড়া দিচ্ছেন না প্রণব মুখার্জি, রাখা হয়েছে ভেন্টিলেশনে

মস্তিষ্কে অস্ত্রোপচারের পর দুদিন পেরিয়ে গেলেও ভারতের সাবেক রাষ্ট্রপতি প্রণব মুখার্জির শারীরিক অবস্থার উন্নতি হয়নি। চিকিৎসায় সাড়া দিচ্ছেন না তিনি। গভীর কোমায় আচ্ছন্ন অবস্থায় তাকে ভেন্টিলেটরে রাখা হয়েছে। ভারতের সাবেক এই রাষ্ট্রপতির স্বাস্থ্যের উন্নতি না হওয়ায় তাকে নিয়ে শঙ্কিত ডাক্তাররা।

কৃষি কথা

খাদ্য নিরাপত্তা নিশ্চিত করবে আউশের চার নতুন জাত

খাদ্য নিরাপত্তা নিশ্চিত করবে আউশের চার নতুন জাত

আউশ মৌসুমে রেকর্ড পরিমাণ ফলন দিয়েছে উচ্চ ফলনশীল স্বল্প জীবনকাল সম্পন্ন খরা সহিষ্ণু আউশ ধানের নতুন ৪টি জাত। জাতগুলো হেক্টর প্রতি বোরো মৌসুমের মতো ফলন দিতে সক্ষম। এ জাত ছড়িয়ে দিয়ে আউশ মৌসুমে ধানের উৎপাদন বৃদ্ধি করে খাদ্য নিরাপত্তা নিশ্চিত করা সম্ভব বলে জানিয়েছেন বাংলাদেশ ধান গবেষণা ইনস্টিটিউট (ব্রি) গোপালগঞ্জ আঞ্চলিক কার্যালয় ও কৃষি সম্প্রসারণের পদস্থ কর্মকর্তারা।

জাতীয়

করোনা উপসর্গে কুমিল্লা মেডিকেলে আরও ছয়জনের মৃত্যু

করোনা উপসর্গে কুমিল্লা মেডিকেলে আরও ছয়জনের মৃত্যু

করোনাভাইরাসের উপসর্গ নিয়ে কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে গত ২৪ ঘণ্টায় আরও ছয়জনের মৃত্যু হয়েছে। এদের মধ্যে তিনজন পুরুষ ও তিনজন নারী। হাসপাতালের করোনা ইউনিটে এখন পর্যন্ত করোনা পজিটিভ ও উপসর্গ নিয়ে ৩৩৯ জন মারা গেছেন।

খেলাধুলা

২৩ সেপ্টেম্বর শুরু টাইগারদের শ্রীলঙ্কা সফর

২৩ সেপ্টেম্বর শুরু টাইগারদের শ্রীলঙ্কা সফর

দীর্ঘ বিরতি শেষে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে ফিরতে যাচ্ছে বাংলাদেশ ক্রিকেট দল। পরিস্থিতি অনুকূলে থাকলে আগামী ২৩ সেপ্টেম্বর শ্রীলঙ্কা সফরে যাবে জাতীয় ও এইচপি (হাইপারফরম্যান্স) দল। শ্রীলঙ্কায় ৩ টেস্ট ও ৩ টি-টোয়েন্টির সিরিজ খেলবে জাতীয় দল। ২৪ অক্টোবর শুরু হবে প্রথম টেস্ট।

স্বাস্থ্য

থাইরয়েড সমস্যা সমাধানে সহায়তা করবে যেসব খাবার

থাইরয়েড সমস্যা সমাধানে সহায়তা করবে যেসব খাবার

থাইরয়েড হচ্ছে গলার গোঁড়ায় প্রজাপতি আকৃতির একটি ছোট গ্রন্থি, এটি মূলত আমাদের শরীরে থাইরয়েড হরমোন নিঃসরণ ঘটিয়ে থাকে। এই হরমোন দেহের বিপাকীয় হারকেও প্রভাবিত করে এবং শক্তি উত্পাদনে ভূমিকা রাখে।