• ঢাকা, বাংলাদেশ
  • বুধবার, ২৩ অক্টোবর ২০১৯, ৭ কার্তিক ১৪২৬

কিশোর মুয়াবিয়া: যার কারণে সিরিয়া যুদ্ধের শুরু

কিশোর মুয়াবিয়া: যার কারণে সিরিয়া যুদ্ধের শুরু

ফিচার ডেস্ক২১ ডিসেম্বর ২০১৮, ০৯:৪৩এএম, ঢাকা-বাংলাদেশ।

স্বৈরশাসক বাশার আল-আসাদের নির্মম ও নিষ্ঠুর দুঃশাসনে অতিষ্ট সিরিয়ার জনগণ। তাদের বুকে তীব্র যন্ত্রণা, মনে চাপা ক্ষোভ। প্রকাশ্যে তার বিরুদ্ধে কথা বলতে পারে না কেউ। যেই প্রতিবাদ করতে গেছে, সেই তার হিংস্র থাবায় নিঃশেষ হয়েছে। কিন্তু এভাবে আর কত দিন?

২০১১ সালের ফেব্রুয়ারি মাস। ছেলেটির নাম মুয়াবিয়া সিয়াসেহে। তখন তার বয়স মাত্র ১৪ বছর। সিরিয়ার দারা শহরে সে বাস করত। একদিন সে ও তার বন্ধুরা মিলে স্থানীয় একটি স্কুলের দেয়ালে আসাদ সরকারবিরোধী স্লোগান লিখে ছড়িয়ে দেয়। এটা ছিল তার নিছক মনের চাপা ক্ষোভের একটি বহিঃপ্রকাশ। তখন সে কল্পনাও করতে পারেনি যে, তার এই একটি ছোটখাটো কাজ, একটি পূর্ণাঙ্গ গৃহযুদ্ধ ছড়িয়ে দেবে।

সম্প্রতি আল-জাজিরার একটি ডকুমেন্টারি ফিল্মে সেই কিশোরের গল্প তুলে ধরা হয়েছে। যেখানে দেখা গেছে যে, কিশোর মুয়াবিয়ার সেই ছোট উদ্যোগ থেকে ধীরে ধীরে আসাদবিরোধী প্রতিবাদ-বিক্ষোভ ছড়িয়ে পড়তে থাকে। আর সে বিক্ষোভ থেকেই একপর্যায়ে গৃহযুদ্ধের সূচনা হয়। যে গৃহ যুদ্ধ আজও অব্যাহত রয়েছে। আর কেউ এটাও জানেনা যে এর শেষ কোথায়?

তখন মধ্যপ্রাচ্যে আরব বসন্তের জোয়ার বইছে। স্বৈরতন্ত্রের অবসান ও গণতন্ত্রের দাবিতে উত্তাল হয়ে ওঠে তিউনিসিয়া, মিশর, লিবিয়া, ইয়মেন। এক সময় সে জোয়ারের ঢেউ লাগে সিরিয়ায়। সেদিন মুয়াবিয়া ও তার সঙ্গে এ কাজে সহযোগিতাকারী আরও তিনজন বন্ধু ছিল। তারা স্থানীয় একটি স্কুলের দেয়ালে আরবিতে লিখে- ‘It’s your turn, Doctor (Basher al-Assad).’

তারা জানায়, সেদিন কোন যুদ্ধ কিংবা আন্দোলন সংগ্রামের অংশ হিসেবে তারা এটা লিখেনি। কারণ সে সময় আসাদ সরকারের সম্পর্কে তাদের ভাল ধারণাও ছিল না। তারা তখনও জানত না যে, দশকের পর দশক বিরোধী মতাবলম্বীদের নির্মমভাবে নির্যাতন, গুম ও বিচারবহির্ভুতভাবে হত্যা করে আসছে আসাদ সরকারের গোপন পুলিশ বাহিনী। অপহরণ, ধর্ষণ ও হত্যার ভয়ে দশকের পর দশক তাদের মা-বোনেরা রাস্তা-ঘাটে একা বের হতে পারে না। সেই সময় তারা টিভিতে আরব বসন্তের সংবাদগুলো দেখে।

আর কৌতূহল থেকেই তারা স্কুলের দেয়ালে আসাদের বিরুদ্ধে এই শ্লোগানটি লিখে। পরে পুলিশ মুয়াবিয়াসহ ২৩ জন কিশোরকে গ্রেফতার করে নিয়ে যায়। ৪৫ দিন তারা আটক ছিল। তাদের প্রতি অত্যন্ত নির্মমভাবে অত্যাচার-নির্যাতন চালানো হয়। তাদের মুক্তির দাবিতে সেদিন হাজার হাজার লোক দারা শহরের রাস্তায় নেমে আসে। পুলিশের গুলিতে কয়েকজন মারা যায়। একপর্যায়ে প্রতিবাদের স্ফুলিঙ্গ ছড়িয়ে পড়ে সমগ্র সিরিয়ায়। সেই থেকে যুদ্ধ শুরু। দীর্ঘ সাত বছর হতে চলেছে।আজও সে যুদ্ধ থামে নি।

২০১১ সাল থেকে চলা এই গৃহযুদ্ধে ইতোমধ্যে ৬-৭ লাখ লোক মারা গেছে। প্রায় ৭৬ লাখ লোক বাস্তুচ্যুত হয়েছে। ৫১ লাখ লোক শরণার্থী হিসেবে আশ্রয় নিয়েছে, যার অর্ধেকই শিশু। ৭ লাখ লোক এখনও অবরুদ্ধ হয়ে আছে। ৩ লাখের চেয়েও বেশি শিশু শরণার্থী হিসেবে জন্ম নিয়েছে। ২০ লাখেরও বেশি শিশু এখনও কোনো মানবিক সহায়তা পাচ্ছে না।

কিশোর মুয়াবিয়া আজ তরুণ। সে নিজেও আজ ‘ফ্রি সিরিয়ান আর্মির’ একজন যোদ্ধা হিসেবে আসাদ সরকারের বিরুদ্ধে লড়াই করছে। অথচ একসময় সে আইএসআইএল, আল-নুসরা কিংবা অন্য কোন সন্ত্রাসী দলের সদস্য ছিল না। সে ভয়াবহ যুদ্ধের কারণে আজ তার প্রিয় দারা শহরের রাস্তা-ঘাট, ঘর-বাড়ি তছনছ হয়ে গেছে। চরম মূল্য দিতে হয়েছে তার পরিবারকে।

২০১৩ সালে বিমান হামলায় সে তার বাবাকে হারিয়েছে। এক সাক্ষাতকারে সে আল-জাজিরাকে জানিয়েছে, এ ভয়াবহ যুদ্ধের কথা সে
কল্পনাও করেনি। আর লাখ লাখ মানুষের মৃত্যু এবং এই ভয়াবহ পরিণতির জন্য সে অনুতপ্ত। তারা এটা কখনও চায়নি। এরকম পরিণতি ঘটবে জানলে সে কখনো এটা লিখত না। সেই লিখাটা ছিল তার একটা মারাত্মক ভুল। এখন তাদের একটাই চাওয়া, সিরিয়ায় পরিবর্তন ও শান্তি।

 

টাইমস/এএইচ/জিএস

১১ দফা দাবিতে সাকিবদের পাশে আন্তর্জাতিক সংগঠন ফিকা

১১ দফা দাবিতে সাকিবদের পাশে আন্তর্জাতিক সংগঠন ফিকা

ক্রিকেটারদের আন্তর্জাতিক সংগঠন দ্য ফেডারেশন অব ইন্টারন্যাশনাল ক্রিকেটার্স অ্যাসোসিয়েশনস (ফিকা)

দেশের ক্রিকেট নিয়ে গভীর ষড়যন্ত্র চলছে: পাপন

দেশের ক্রিকেট নিয়ে গভীর ষড়যন্ত্র চলছে: পাপন

দেশের ক্রিকেট নিয়ে গভীর ষড়যন্ত্র চলছে বলে মন্তব্য করেছেন বাংলাদেশ

এমপি মোয়াজ্জেম হোসেন রতনের অবৈধ সম্পদ অনুসন্ধানে দুদক

এমপি মোয়াজ্জেম হোসেন রতনের অবৈধ সম্পদ অনুসন্ধানে দুদক

অবৈধ সম্পদ অর্জনের অভিযোগে সুনামগঞ্জ-১ আসনের সরকার দলীয় সাংসদ মোয়াজ্জেম

মতামত

মেয়েটিকে আমরা বেঁচে থাকতে দিলাম না…

মেয়েটিকে আমরা বেঁচে থাকতে দিলাম না…

বান্দরবান থানচি উপজেলার যোসেফ পাড়ার বাসিন্দা  লিয়ানা ত্রিপুরা পপি (২৩)। চার বছর আগে উচ্চ শিক্ষার জন্য ঢাকায় চলে আসেন। পড়াশুনার পাশাপাশি গুলশানের একটি বিউটি পার্লারে চাকরি করতেন তিনি। গত শুক্রবার (১৮ অক্টোবর) সকাল সাড়ে ১০টার দিকে পার্লারে যাওয়ার সময় গুলশানে একটি প্রাইভেট কারের (ঢাকা মেট্রো ঘ ১৩০৯০২) ধাক্কায় ঘটনাস্থলেই মারা যান পপি।

রাজনীতি

মেননের বক্তব্যে বিব্রত নয় ১৪ দল: নাসিম

মেননের বক্তব্যে বিব্রত নয় ১৪ দল: নাসিম

গত নির্বাচনে জনগণ ভোট দিতে পারেনি- ওয়ার্কার্স পার্টির সভাপতি রাশেদ খান মেননের এমন বক্তব্যে নিয়ে ১৪ দল বিব্রত নয় বলে জানিয়েছেন এর সমন্বয়ক মোহাম্মদ নাসিম। মঙ্গলবার দুপুরে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে ১৪ দল আয়োজিত বাংলাদেশ-ভারত সমঝোতা স্মারক শীর্ষক গোলটেবিল বৈঠক শেষে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে নাসিম এ কথা বলেন। তিনি বলেন, কোনও একক ব্যক্তির বক্তব্যে ১৪ দল বিব্রত হবে কেন? এটি মুক্তিযুদ্ধের চেতনা, অসাম্প্রদায়িকতা, গণতান্ত্রিক মূল্যবোধের ভিত্তিতে করা আদর্শিক জোট। জোটের বৈঠকে এ বিষয় নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা হবে। তারপর করণীয় ঠিক করা হবে।’

জাতীয়

কুমিল্লায় ছেলের হাতে মার খেয়ে মায়ের আত্মহত্যা

কুমিল্লায় ছেলের হাতে মার খেয়ে মায়ের আত্মহত্যা

জমিজমা নিয়ে মায়ের সঙ্গে ঝামেলা চলছিল কুমিল্লার তিতাস উপজেলার কড়িকান্দি ইউনিয়নের বন্দরামপুর গ্রামের বাসিন্দা মো. শাকিলের(৩৭)।  এ নিয়ে পারিবারিক কলহ সৃষ্টি হয় পরিবারে। সোমবার ছেলের হাতে দুই দফা মার খান মা লতিফা বেগম (৫৭)। ক্ষোভে অভিমানে মঙ্গলবার সকালে লতিফা বেগম বিষ পান করে আত্মহত্যা করেছেন বলে অভিযোগ উঠেছে। ঘটনার পর থেকে ছেলে শাকিল পলাতক। এ ঘটনায় আত্মহত্যায় প্ররোচনার অভিযোগে শাকিল ও তার স্ত্রী জেসমিন আক্তারকে আসামি করে লতিফার স্বামী আবুল কাশেম তিতাস থানায় মামলা করেছেন। পুলিশ জেসমিনকে আটক করেছে।

জাতীয়

১৫তম শিক্ষক নিবন্ধনের চূড়ান্ত ফল প্রকাশ

১৫তম শিক্ষক নিবন্ধনের চূড়ান্ত ফল প্রকাশ

১৫তম শিক্ষক নিবন্ধন পরীক্ষার চূড়ান্ত ফলাফল প্রকাশিত হয়েছে।  মঙ্গলবার বেসরকারি শিক্ষক নিবন্ধন ও প্রত্যয়ন কর্তৃপক্ষের (এনটিআরসিএ) ওয়েবসাইটে ফলাফল প্রকাশ করা হয়। ১৩ হাজার ৩৪৫ জন প্রার্থী পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হয়েছেন। স্কুল পর্যায়ে ১০ হাজার ৯৬৮ জন, স্কুল-২ পর্যায়ে ৭৭০ জন এবং কলেজ পর্যায়ে ১ হাজার ৬০৭ জন উত্তীর্ণ হয়েছেন। লিখিত পরীক্ষায় উত্তীর্ণদের মৌখিক পরীক্ষার সূচি পরবর্তী সময়ে বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে জানিয়ে দেয়া হবে।

জাতীয়

গৃহবধূকে ধর্ষণের পর হত্যা: জয়পুরহাটে ৭ জনের মৃত্যুদণ্ড

গৃহবধূকে ধর্ষণের পর হত্যা: জয়পুরহাটে ৭ জনের মৃত্যুদণ্ড

জয়পুরহাটের আক্কেলপুর উপজেলার দেওড়া গ্রামে এক গৃহবধূকে ধর্ষণের পর হত্যার দায়ে সাতজনের মৃত্যুদণ্ড দিয়েছেন আদালত। মঙ্গলবার দুপুরে জয়পুরহাট নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালের বিচারক এ বি এম মাহমুদুল হাসান এ রায় দেন।

বিনোদন

পুনমের সাথে সন্ধ্যা কাটাতে চাইলে...

পুনমের সাথে সন্ধ্যা কাটাতে চাইলে...

ভারতীয় মডেল পুনম পাণ্ডে। আলোচনায় থাকার জন্য মাঝে মাঝে অদ্ভুদ সব কাণ্ড ঘটিয়ে বসেন তিনি। কখনো কাপড় খুলে, আবার কখনো শরীর দেখিয়ে সংবাদমাধ্যমে খবরের খোরাক হন এই মডেল। তবে পুনম ভক্তদের এমন চমক দেন, যা অন্যদের পক্ষে বলাই কঠিন। প্রায়ই ভক্তদের সামনে রীতিমতো নিজেকে উন্মোচন করে আলোচনায় থাকেন তিনি। চমক দিতে গিয়ে কখনো গায়ে একটা সুতোও থাকে না তার। নগ্নতা নিয়ে তো লজ্জা নেইই বরং পুরুষমনে সুড়সুড়ি কীভাবে দিতে হয়, তা ভালোই জানেন পুনম। এদিকে দীপাবলির আগে অনুরাগীদের আনন্দ দিতে নতুন উপহার নিয়ে হাজির হলেন পুনম পাণ্ডে। তবে এবারের উপহার সম্পূর্ণ আলাদা। এবার কোনো কাপড় খোলার ব্যাপার নেই, এমনকি নগ্ন হওয়ার বিষয়ও নেই। এবার নতুন এক প্রতিযোগিতার আয়োজন করেছেন পুনম। এই প্রতিযোগিতা তার ‘বেটাইম স্টোরিজ’ নিয়ে।