• ঢাকা, বাংলাদেশ
  • বৃহস্পতিবার, ০৯ এপ্রিল ২০২০, ২৬ চৈত্র ১৪২৬

স্বাস্থ্য

করোনায় আক্রান্তদের মধ্যে যাদের ভেন্টিলেটর প্রয়োজন

করোনায় আক্রান্তদের মধ্যে যাদের ভেন্টিলেটর প্রয়োজন

বিশ্বব্যাপী মহামারি আকারে ছড়িয়ে পড়েছে করোনাভাইরাস। প্রতিদিন মানুষের মৃত্যুর ঘটনা ঘটছে। রাশ টানা যাচ্ছে না এ মহামারির। সাধারণত শুষ্ক কাশি ও জ্বরের মাধ্যমেই শুরু হয় করোনাভাইরাসের উপসর্গ, পরে শ্বাস প্রশ্বাসে সমস্যা দেখা দেয়। এই ভাইরাস জনিত কোভিড-১৯ রোগে আক্রান্তদের ভেন্টিলেটরের (কৃত্রিমভাবে স্বাস্থ্য প্রশ্বাস নেয়ার যন্ত্র) মাধ্যমে চিকিৎসা দেয়ার কথা বলছেন চিকিৎসকরা। চিকিৎসকদের মতে, যেসব রোগীর শ্বাস-প্রশ্বাসে সমস্যা হয়, গলাব্যথা, নিউনোমিয়ার প্রকোপ

হৃদপিণ্ডের স্বাস্থ্য রক্ষায় অলিভ ওয়েল

হৃদপিণ্ডের স্বাস্থ্য রক্ষায় অলিভ ওয়েল

প্রতিদিনের খাদ্যাভ্যাসে অলিভ ওয়েল কিংবা ভেজিটেবল ওয়েল যুক্ত হলে তা সুস্থ রাখবে আপনার হৃদপিণ্ডটিকে। নতুন একটি গবেষণায় পাওয়া তথ্য অনুযায়ী প্রতিদিন গড়ে এক চামচ অলিভ ওয়েল খেলে তা হৃদপিণ্ডের স্বাস্থ্য বজায় রাখতে সহায়তা করবে। গবেষকরা মার্চের প্রথম সপ্তাহে আমেরিকান হার্ট অ্যাসোসিয়েশন আয়োজিত লাইফস্টাইল অ্যান্ড কার্ডিওমেটাবোলিক হেলথ সেশনে তাদের গবেষণালব্ধ এসব তথ্য তুলে ধরেন। ১৯৯০ সাল থেকে দীর্ঘ সময় ধরে গবেষকরা এসব বিষয়ে তথ্য উপাত্ত সংগ্রহ করেছেন।

চোখের মাধ্যমে যেভাবে করোনা আক্রমণ করে

চোখের মাধ্যমে যেভাবে করোনা আক্রমণ করে

করোনাভাইরাসের কারণে এখন সারা বিশ্বে আতঙ্ক বিরাজ করছে। এই ভাইরাসজনিত কোভিড-১৯ রোগের গতি প্রকৃতি নিয়েও চলছে নানা গবেষণা। সংক্রামক রোগ বিশেষজ্ঞদের মতে, এই ভাইরাসে আক্রান্ত ব্যক্তির হাঁচি-কাশির ড্রপলেট বায়ুতে ঘুরে বেড়ায়। এই ড্রপলেট রোগীর কাছাকাছি থাকা সুস্থ মানুষের নাক, মুখ ও চোখের মাধ্যমে তার শরীরে প্রবেশ করে।

কেবিন ফিভার বা গৃহবন্দীর উপসর্গ থেকে মুক্তির উপায়

কেবিন ফিভার বা গৃহবন্দীর উপসর্গ থেকে মুক্তির উপায়

সাধারণত টানা বৃষ্টির সময় বা প্রচণ্ড ঠাণ্ডার সময় ঘরে আটকে থাকার সঙ্গে কেবিন ফিভার বা গৃহবন্দীর উপসর্গের একটি সম্পর্ক রয়েছে। তবে বাস্তবতা হলো- বাইরের পৃথিবী থেকে দীর্ঘদিন বিচ্ছিন্ন থাকলে যে কোনো সময় এটি দেখা দিতে পারে। কেবিন ফিভার বা গৃহবন্দীর উপসর্গ হলো- লম্বা সময়ের জন্য ঘরে আটকে থাকার ফলে দেখা দেয়া নানা উপসর্গ বা আবেগের সমষ্টি। এটি ঝড়-বৃষ্টি, প্রাকৃতিক দুর্যোগ, কিংবা কোভিড-১৯ সহ বিভিন্ন কারণে ঘরে আটকে পড়ার ফলে হতে পারে।

‘জুনোটিক ডিজিজ’ কেন মানব সম্প্রদায়ের জন্য মারাত্মক হুমকি?

‘জুনোটিক ডিজিজ’ কেন মানব সম্প্রদায়ের জন্য মারাত্মক হুমকি?

বেশ কিছু রোগ প্রাণীদেহ থেকে মানবদেহে সংক্রমিত হয়, এগুলিকে চিকিৎসা বিজ্ঞানের ভাষায় জুনোটিক ডিজিজ বলা হয়ে থাকে। বর্তমান সময়ে মহামারীর আকার ধারণ করা কোভিড-১৯ একটি জুনোটিক রোগ। কোভিড-১৯ এর সংক্রমণের পূর্বেও বহু রোগ প্রাণীদেহ থেকে মানবদেহে ছড়িয়ে মারাত্মক মহামারীর সূচনা ঘটিয়েছিল। এসব জুনোটিক রোগের মধ্যে ডেঙ্গু, ম্যালেরিয়া, বার্ড ফ্লু, সোয়াইন ফ্লু, প্লেগ, অ্যানথ্রাক্স, ইবোলা প্রভৃতি উল্লেখযোগ্য।

করোনায় সংক্রমণ কমাবে ভিটামিন-ডি

করোনায় সংক্রমণ কমাবে ভিটামিন-ডি

করোনাভাইরাস মহামারীতে অচল গোটা বিশ্ব। হু হু করে বাড়ছে আক্রান্ত রোগী ও মৃতের সংখ্যা। এই অবস্থায় করোনার প্রাদুর্ভাব ঠেকাতে এর উৎস, বিস্তার ও প্রতিরোধ নিয়ে বিভিন্ন দেশের বিশেষজ্ঞরা গবেষণা চালিয়ে যাচ্ছেন। ইতিমধ্যে, আয়ারল্যান্ডের দুটি বৈজ্ঞানিক গবেষণায় বলা হয়েছে ভিটামিন-ডি করোনাভাইরাসের বিরুদ্ধে প্রতিরোধ গড়ে তুলতে সহায়তা করে। এমন দাবি করা প্রতিষ্ঠান দুটি হলো- টেকনোলজিক্যাল ইউনিভার্সিটি ডাবলিন এবং ট্রিনিটি কলেজ ডাবলিন।