• ঢাকা, বাংলাদেশ
  • মঙ্গলবার, ১২ নভেম্বর ২০১৯, ২৮ কার্তিক ১৪২৬

ডাক্তার বনাম শাবানার ঠেলাগাড়ি

ডাক্তার বনাম শাবানার ঠেলাগাড়ি

অতিথি লেখক৩০ এপ্রিল ২০১৯, ০৯:৪৫এএম, ঢাকা-বাংলাদেশ।

রোগীর অবস্থা খুবই খারাপ। দ্রুত অপারেশন করতে হবে, নয়তো বাঁচবেন না। তাকে বাঁচাতে হলে ২৪ ঘণ্টার মধ্যে ৫০ হাজার টাকা জমা দিতে হবে। অন্যথায় অপারেশন হবে না বলে রোগীর স্বজন শাবানাকে জানাল ডাক্তার। এর পরের দৃশ্য শাবানা ঝড়-তুফানের মধ্যে ঠেলাগাড়িতে করে স্বজনের লাশ নিয়ে বাড়ি ফিরছেন। তখন তার মাথায় ঢুকল ডাক্তার একটা ‘জানোয়ার’।

সিনেমায় দেখা যায়, নায়ক ডাক্তারের কলার ধরে বলছে “ওই কুত্তার বাচ্চা আমার ভাইয়ের যদি কিছু হয়, তোরে মাইরা ফালামু, অই-অই-অই ডাক্তারের বাচ্চা তোরে কইয়া দিলাম।” সিনেমার এমন ডায়লগে আমরা ধরে নিলাম- ডাক্তারকে এভাবে না বললে হয়ত কাজ হয় না।

এভাবেই ডাক্তারের ইমেজটাকে আমাদের সামনে বিভিন্ন দিক থেকে এমনভাবে উপস্থাপন করা হয়েছে যে তাতে সাধারণ মানুষের মগজে ঢুকে গেছে ডাক্তার মানেই একজন ‘কসাই’।

মজার ব্যাপার হচ্ছে পুলিশ বা প্রশাসনে কারও বিরুদ্ধে অভিযোগ এনে তাদের হেনস্তা বা পেটানোর সাহস কারও হয়না। কারণ একজনের আছে বন্দুক, অপরজনের আছে ক্ষমতা। এমনকি ডাক্তার পেটানো নায়কও সিনেমার দৃশ্যে অনেক সময় পুলিশ দেখে পালায়।

এখন প্রশ্ন হচ্ছে- কোনো পেশাকে ঢালাও ভাবে খারাপ বলা বা টার্গেট করা কতটুকু যুক্তিযুক্ত? খারাপ হয় মানুষ, সে যেকোনো পেশায় থাকতে পারে। সেজন্য কেউ অপরাধ করলে তার বিচার হবে। কিন্তু আমরা ডাক্তারদের যেভাবে গণহারে ভিলেন বানাচ্ছি, তাতে প্রকারান্তরে ক্ষতিটা কার হচ্ছে?

ডাক্তাররা যদি ঠিকমতো চিকিৎসা নাই দেন, তাহলে সরকারী হাসপাতালগুলোতে হাজার হাজার রোগী কি বেড়াতে যায়? একেকটি হাসপাতাল সক্ষমতার তিন-চারগুণ বেশি রোগীকে চিকিৎসা দেয়। স্থান সংকুলান না হওয়ায় অনেক হাসপাতালের বারান্দায় রোগীদের পড়ে থাকতে দেখা যায়। ডাক্তারদের ভিলেন বানানোর আগে এসব পরিস্থিতির উন্নয়নে আমরা কি পদক্ষেপ নিয়েছি?

সম্মানিত সংসদ সদস্যদের প্রতি পরামর্শ। আপনারা নিজ নিজ এলাকার হাসপাতালগুলোতে যে পরিমাণ রোগী ভর্তি রয়েছে, তাদের প্রত্যেকের শয্যার ব্যবস্থা, রোগের পরীক্ষা-নিরীক্ষাসহ হাসপাতালে প্রয়োজনীয় জনবল নিয়োগ ও ওষুধের ব্যবস্থা করুন। মূল সমস্যা এটাই।

আমাদের দেশের বাজেট বরাদ্দের বড় অংশ যায় স্বাস্থ্য আর শিক্ষা খাতে। এতো টাকা কই যায়, একটু সরেজমিনে দেখবেন? এসব একটু ভাইরাল করবেন? আমি বলছি না ডাক্তার সবাই ধোয়া তুলশী পাতা। ‘বদের হাড্ডি’ সব পেশাতেই আছে। যারা এমন তাদের জন্য একটা আইন করেন। যেখানে পাবলিকের হাতে বিচার তুলে দিয়ে নয়, বরং যথাযথ মাধ্যমে তদন্ত করে ডাক্তারের অনুপস্থিতি, অবহেলা ও ভুলের প্রমাণ হলে কঠোর থেকে কঠোর শাস্তি নিশ্চিত হয়।

আবার অনেক সময় দেখা গেছে- এক ডাক্তারের রোগী অন্য ডাক্তারের কাছে গেলে তিনি বলেন, “আরে আপনাকে খামাখা এসব টেস্ট করিয়েছে কেন? অথবা এ রোগের জন্য-তো অপারেশন লাগবে না, ওই ডাক্তার কেন এসব বলল বুঝলাম না।” রোগীকে এসব বলার ফলাফল কি দাড়ায়?

ডাক্তার সাহেবদের সংগঠনগুলো কেন বর্তমান পরিস্থিতি উন্নয়নে এগিয়ে আসেন না, তাও বুঝে আসে না। সে জন্য বলা যায়- রোগী ও ডাক্তার উভয় পক্ষেরই আস্থার সংকট রয়েছে। তাই আপনাদের এগিয়ে আসা উচিত, নাকি?

হাসপাতাল ও ডাক্তার সবকিছু ঠিক হলেও পরিস্থিতির কতটুকু উন্নতি হবে জানি না। কারণ, আমরা সাধারণ পাবলিক এতো ইনটেলিজেন্ট, যে সাধারণ সর্দি-কাশি হলে এফসিপিএস খুঁজি, আর টিউমার-ক্যান্সারের চিকিৎসায় হোমিওপ্যাথী খাই। এছাড়া সব মৃত্যুর পেছনে কাউকে না কাউকে দোষ দেই, যেমন হার্টএ্যাটাক বা স্ট্রোক হলে আগে বলতাম ‘শয়তানের বাতাস’ লেগে মারা গেছে এখন বলি ‘ডাক্তার মারছে’।

লেখক: হোসাইন শাহিদ, ব্যুরো প্রধান, যমুনা টিভি, ময়মনসিংহ। 

 

টাইমস/জিএস

ফেনীতে ফাঁসির মঞ্চ নেই, কুমিল্লা ও চট্টগ্রামে যাচ্ছে নুসরাতের খুনিরা

ফেনীতে ফাঁসির মঞ্চ নেই, কুমিল্লা ও চট্টগ্রামে যাচ্ছে নুসরাতের খুনিরা

মৃত্যুদণ্ডাদেশপ্রাপ্ত সোনাগাজী ইসলামিয়া সিনিয়র ফাজিল মাদরাসার সাবেক অধ্যক্ষ এস এম

তুরিনের অভিযোগ: ‘আত্মপক্ষ সমর্থনের সুযোগ দেওয়া হয়নি’

তুরিনের অভিযোগ: ‘আত্মপক্ষ সমর্থনের সুযোগ দেওয়া হয়নি’

তুরিন আফরোজ বলেন, ‘আমাকে কোনো তদন্তের ভেতর দিয়ে নিয়ে যাওয়া

চবিতে অন্ধ ছাত্রকে ছাত্রলীগ কর্মীর বেধড়ক পিটুনি

চবিতে অন্ধ ছাত্রকে ছাত্রলীগ কর্মীর বেধড়ক পিটুনি

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, রোববার (১০ নভেম্বর) রাত সাড়ে ৮টার দিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের

জাতীয়

শতভাগ নিরবচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ তিন চার বছরের মধ্যে: প্রতিমন্ত্রী

শতভাগ নিরবচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ তিন চার বছরের মধ্যে: প্রতিমন্ত্রী

‘দক্ষিণ কোরিয়া তাদের দেশে নিরবচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ নিশ্চিত করতে সময় নিয়েছে ৫০ বছর। আমাদের অতটা সময় লাগবে না। আমি কখনোই বলিনি যে সারা দেশে নিরবচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ সরবরাহ করতে পেরেছি। তবে আমরা ৩ থেকে ৪ বছরের মধ্যে নিরবচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ সরবরাহ করতে পারব’।

রাজনীতি

সব স্তরের দুর্নীতিবাজদের বিরুদ্ধে শুদ্ধি অভিযান: কাদের

সব স্তরের দুর্নীতিবাজদের বিরুদ্ধে শুদ্ধি অভিযান: কাদের

দলের পাশাপাশি রাষ্ট্র ও সমাজের সব স্তরের দুর্নীতিবাজদের বিরুদ্ধে শুদ্ধি অভিযান বিস্তৃত করা হবে বলে জানিয়েছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের।

আইন আদালত

মানবাধিকার কমিশন ঘুমাচ্ছে: হাইকোর্টের পর্যবেক্ষণ

মানবাধিকার কমিশন ঘুমাচ্ছে: হাইকোর্টের পর্যবেক্ষণ

২০১৩ সালে খাদিজাকে নির্যাতনের ঘটনা ঘটে। ওই ঘটনায় একটি জাতীয় পত্রিকায় প্রতিবেদন প্রকাশ হয়। এর পরিপ্রেক্ষিতে মানবাধিকার সংগঠন ‘চিলড্রেন চ্যারিটি ফাউন্ডেশন’-এর পক্ষ থেকে জাতীয় মানবাধিকার কমিশনকে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণে চিঠি দেওয়া হয়। এরপর পাঁচ বছর কেটে গেলেও কোনও ব্যবস্থা না নেওয়ায় ২০১৮ সালের ২২ ডিসেম্বর হাইকোর্টে রিট দায়ের করা হয়।

রাজনীতি

পীরগঞ্জ উপজেলা আ. লীগের সদস্য হলেন জয়

পীরগঞ্জ উপজেলা আ. লীগের সদস্য হলেন জয়

রংপুরের পীরগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের নতুন কমিটি ঘোষণা করা হয়েছে। কমিটিকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তিবিষয়ক উপদেষ্টা ও তার ছেলে সজীব ওয়াজেদ জয়কে এক নম্বর সদস্য করা হয়েছে।

জাতীয়

যুদ্ধাপরাধ ট্রাইব্যুনালের প্রসিকিউটর তুরিন আফরোজকে অপসারণ   

যুদ্ধাপরাধ ট্রাইব্যুনালের প্রসিকিউটর তুরিন আফরোজকে অপসারণ  

আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালের প্রসিকিউটর পদ থেকে প্রসিকিউটর ড. তুরিন আফরোজকে অপসারণ করা হয়েছে। পেশাগত অসদাচরণ, শৃঙ্খলা ও আচরণবিধি লঙ্ঘনের অভিযোগে তাকে অপসারণ করা হয়েছে।

বিনোদন

‘শ্রোতাদের কাছে আরও ঋণী হয়ে গেলাম’

‘শ্রোতাদের কাছে আরও ঋণী হয়ে গেলাম’

বাংলাদেশের জনপ্রিয় কণ্ঠশিল্পী আঁখি আলমগীর। ১৯৮৪ সালে চতুর্থ শ্রেণীতে পড়ার সময় বাবার সাথেই প্রয়াত আমজাদ হোসেন পরিচালিত ‘ভাত দে’ সিনেমায় অভিনয় করেছিলেন তিনি। সেই সিনেমাতে অভিনয়ের পর শিশু শিল্পী হিসেবে জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কারে ভূষিত হয়েছিলেন আঁখি।