• ঢাকা, বাংলাদেশ
  • বৃহস্পতিবার, ২২ অক্টোবর ২০২০, ৭ কার্তিক ১৪২৭
“পৃথিবীর সমস্ত সৌন্দর্য কোনও এক শ্রেণীর দখলে থাকতে পারে না”

“পৃথিবীর সমস্ত সৌন্দর্য কোনও এক শ্রেণীর দখলে থাকতে পারে না”

১৯৩৬ সালে লক্ষ্নৌতে আয়োজিত প্রগতিশীল লেখক সংঘের প্রথম আনুষ্ঠানিক সভায় সভাপতি বললেন, “সাহিত্য সেখানেই জন্ম নেয় যেখানে সত্যের প্রকাশ ঘটে। জীবনের সত্যময়তা ও অনুভূতিপ্রবণতা ভাষার হাত ধরে ব্যক্ত হলে সাহিত্যে পূর্ণতা আসে”।

বিস্তারিত
ঢাকায় জলাবদ্ধতা

ঢাকায় জলাবদ্ধতা

প্রতি বর্ষায় দেখা যায়, পানির নিচে ঢাকা। বর্ষা আসার আগে থেকেই বৃষ্টি শুরু হয়। আর তারপরের দুই-একদিনের টানা বর্ষণে রাস্তাঘাট সব পানির নিচে চলে যায়। অপরিকল্পিতভাবে গড়ে ওঠা এই নগরীর নদী খাল ভরাট করে রাস্তাঘাটসহ ঘরবাড়ি করা-যেমন এর একটি কারণ, তেমনি দুর্বল বর্জ্য ব্যবস্থাপনা জলাবদ্ধতার অন্যতম কারণ। রাস্তার পাশের ড্রেন দেখা যায় কিন্তু বর্জ্য নিষ্কাশন খুব কমই দেখা যায়। মাঝে মাঝে এগুলো পরিষ্কার করতে দেখা গেলেও কিছুদিনের মধ্যে চিত্র একই হয়।

বিস্তারিত
কুয়েত মৈত্রী হসপিটাল থেকে লিখছি: করোনার সাথে বসবাস (শেষ পর্ব)

কুয়েত মৈত্রী হসপিটাল থেকে লিখছি: করোনার সাথে বসবাস (শেষ পর্ব)

উপরে এসে ফ্রেশ হলাম। আব্বা চুপচাপ, রুমের মাঝে থমথমে অবস্থা। আব্বা সারাদিন কারও সাথে তেমন কথা বলেননি। এখন আব্বার পেটের পীড়াটা একটু ঠিক হয়েছে। অন্যরাও একটু একটু স্ট্যাবল হচ্ছে।

বিস্তারিত
কুয়েত মৈত্রী হসপিটাল থেকে লিখছি: করোনার সাথে বসবাস (পর্ব-৫)

কুয়েত মৈত্রী হসপিটাল থেকে লিখছি: করোনার সাথে বসবাস (পর্ব-৫)

পঞ্চম তলার এই পরিবেশটা ভিন্ন। ফ্লোরে ঢুকে লম্বা করিডোরে দেখলাম সকলেই হাটাহাটি করছে। এক-দুই জন বয়স্ক স্বামী-স্ত্রী এক সাথে তসবি নিয়ে আস্তে আস্তে হাঁটছেন। ৪ জন মহিলাকে দেখলাম এক সাথে গল্প করছেন আর হাটাহাটি করছেন। বেশ কিছু তরুণ তরুণীও নিজস্ব দল পাকিয়ে হাটাহাটি করছেন। সবাই মাস্ক পরা।

বিস্তারিত
কুয়েত মৈত্রী হসপিটাল থেকে লিখছি: করোনার সাথে বসবাস (পর্ব-৪)

কুয়েত মৈত্রী হসপিটাল থেকে লিখছি: করোনার সাথে বসবাস (পর্ব-৪)

দুপুরে হাসপাতালের খাবারের পাশাপাশি বড় বোনের বাসা থেকে খাবার আসে। আমার বড় বোনের বাসা টঙ্গীতে। উত্তরা থেকে তার বাসা কাছাকাছি। মূলত এটা ফুফুর বাসা। ফুফাতো ভাইয়ের সাথে বোনের বিয়ের কারণে এটা এখন ফুফু কাম বোনের বাসায় রূপান্তর হয়েছে। বোন, ফুফু দুইজনই একটু অসুস্থ কিন্তু একজনের ভাই আরেকজনের বাবা দুই ভালোবাসা মিলে শারীরিক অসুস্থতা পাত্তা পায়নি।

বিস্তারিত
সঙ্গীকে নিয়ে সুখে থাকার দার্শনিক ব্যাখ্যা

সঙ্গীকে নিয়ে সুখে থাকার দার্শনিক ব্যাখ্যা

আমরা পৃথিবীতে এসেছি সুখে শান্তিতে থাকার জন্য। এই মানব জীবনের একমাত্র উদ্দেশ্য হলো ভালো থাকা। এই ভালো থাকার সবচেয়ে বড় উপাদান হলো সঙ্গী। সবাই সঙ্গী চায়, নারী পুরুষের সঙ্গ পেতে চায়, পুরুষ নারীর সঙ্গ চায়, প্রেমিক প্রেমিকার সঙ্গ চায়, প্রেমিকা প্রেমিকের সঙ্গ চাই।

বিস্তারিত
কুয়েত মৈত্রী হসপিটাল থেকে লিখছি: করোনার সাথে বসবাস (পর্ব-৩)

কুয়েত মৈত্রী হসপিটাল থেকে লিখছি: করোনার সাথে বসবাস (পর্ব-৩)

দুপুর ১টায় খাবার চলে আসলো। এখানকার খাবার দেবার ব্যবস্থা খারাপ না। ফয়েল প্যাকে করে পর্যাপ্ত ভাত আরেকটা প্যাকে সবজি, কক মুরগি একটি বড় পিস, একটি পলিতে ডাল এবং ডিম সেদ্ধ। প্রতিদিন দুপুরের মেন্যুতে একই আইটেম দেওয়া হয়।

বিস্তারিত
কুয়েত মৈত্রী হসপিটাল থেকে লিখছি: করোনার সাথে বসবাস (পর্ব-২)

কুয়েত মৈত্রী হসপিটাল থেকে লিখছি: করোনার সাথে বসবাস (পর্ব-২)

আমরা স্ত্রী (মীম) যখন গফরগাঁও থেকে তার ভাইয়ের সাথে রওনা হয় সেই সময়টা ছিলো ভীষণ বেদনাদায়ক। মে মাসের ৩১ তারিখ মীম তার ডাইরিতে করোনার জন্য হসপিটালে ভর্তি হতে হলে কি কি সঙ্গে নিতে হবে এমন একটি লিস্ট করেছিলো, বিধিবাম এক সময় সেই লিস্ট ধরেই তাকে প্রস্তুত করে জুন মাসের ২৯ তারিখ আমার অচেনা একটি সরকারি হসপিটালে পাঠিয়ে দেবার মত কঠিন সিদ্ধান্ত নিতে হয়েছে। সিদ্ধান্তটি হৃদয়ে রক্তক্ষরণ ঘটালেও নিজেকে শক্ত করেছিলাম সেই সময় পরবর্তী এক লেখায় ওই তালিকাটিও প্রকাশ করবো ইনশাআল্লাহ।

বিস্তারিত
কুয়েত মৈত্রী হসপিটাল থেকে লিখছি : করোনার সাথে বসবাস (প্রথম পর্ব)

কুয়েত মৈত্রী হসপিটাল থেকে লিখছি : করোনার সাথে বসবাস (প্রথম পর্ব)

গত ২১ জুন রাতে আব্বার (আকরাম হোসেন মুক্তা)জ্বর সর্দি কাশি দেখা দেয় সাথে গায়ে ব্যাথা। তারপর একে একে আমি আমার স্ত্রী জ্বর সর্দি কাশিত্ আক্রান্ত হলে আমরা বাসার সকল সদস্য গফরগাঁও স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে করোনা টেস্ট করানো হয় যার রেজাল্ট ৩ দিন পর নেগেটিভ আসে।

বিস্তারিত
সংসার সামলে ৩৯তম বিসিএসে প্রথম, ৩৮তম বিসিএসে তৃতীয়!

সংসার সামলে ৩৯তম বিসিএসে প্রথম, ৩৮তম বিসিএসে তৃতীয়!

আলহামদুলিল্লাহ। ৩৮তম বিসিএস এ সুপারিশ প্রাপ্ত হলাম (৩য় স্থান)। যদিও ৩৯তম এর মত

বিস্তারিত