• ঢাকা, বাংলাদেশ
  • বৃহস্পতিবার, ১৮ জুলাই ২০১৯, ৩ শ্রাবণ ১৪২৬

মতামত

এইচএসসিতে যারা ফেল করেছ তারা আমাদের দলে

এইচএসসিতে যারা ফেল করেছ তারা আমাদের দলে

এইচএসসি ও সমমান পরীক্ষায় এবার যারা ফেল করেছ তারা আমাদের দলের সদস্য। আমরা সেই দলে আছি যারা বারবার ফেল করেও সফলতা পেয়েছেন। স্কুলজীবনে বারবার ফেল করেছেন তারা। অকর্মন্য অপদার্থ বলে যাদের গালি শুনতে হয়েছে। তবে নিজেকে তারা কখনও বিকিয়ে দেননি। বরং অদম্য স্পৃহা তাদের সফলতার দলে স্থান দিয়েছে। তোমরা আলিবাবার প্রতিষ্ঠাতা জ্যাক মার কথা শুনেছ নিশ্চয়। বর্তমানে বিশ্বের অন্যতম ধনী ব্যক্তি...

আমার সন্তান যেন থাকে নিরাপদে

আমার সন্তান যেন থাকে নিরাপদে

আস্থা ও বিশ্বাসের সম্পর্ক আজ খুব নড়বড়ে হয়ে যাচ্ছে। সমাজে খুন, ধর্ষণ, অপহরণ, যৌনতা, অশ্লীলতা ইত্যাদি বেড়ে যাচ্ছে। শিশু থেকে বয়স্ক সবাই অনিরাপদ। মেয়েদের ক্ষেত্রে বললে ভয়ংকর অনিরাপদ। সন্তানের লাশ বহন করছে পিতা। বাবা হয়ে নিরাপদ আশ্রয় দিতে পারছে না। চলুন মধ্যযুগের সাহিত্য থেকে ঘুরে আসি।

প্রকৃতি ও মানুষ     

প্রকৃতি ও মানুষ     

একসময় প্রকৃতির সাথে মানুষের বন্ধুত্ব ছিল। মানুষ প্রকৃতির ওপর নির্ভরশীল ছিল। আজ প্রকৃতি মানুষের ওপর নির্ভরশীল। মানুষ চাইলে প্রকৃতি সুরক্ষিত রাখতে পারে; আবার মানুষ চাইলে প্রকৃতি ধ্বংস করতে পারে।

'শিক্ষক শিক্ষার্থীর সম্পর্ক নেতিবাচক হচ্ছে'

'শিক্ষক শিক্ষার্থীর সম্পর্ক নেতিবাচক হচ্ছে'

যাই হোক ভালো শিক্ষক হতে অনেক গুণাবলির সমন্বয় চাই। তেমনি ভালো শিক্ষার্থীর রয়েছে বিভিন্ন বৈশিষ্ট্য। সব ছাত্র মেধাবি হবে তা নয়; কিন্তু পড়াশোনা করে ভালো মানুষ হবে এটা শিক্ষার অন্যতম লক্ষ্য।

শিশুদের হাতে স্মার্টফোন, আনস্মার্ট সিদ্ধান্ত

শিশুদের হাতে স্মার্টফোন, আনস্মার্ট সিদ্ধান্ত

বড়দের উদাসীনতা বা নেকামির কারণে ছোটো বাচ্চারা মোবাইল ফোনে আসক্ত হয়ে পড়ছে; যার প্রভাব ও কুফল খুবই ভয়ংকর। শিশুরা ফোন চাইলেই দিতে হবে এটা নিশ্চয়ই স্মার্টনেস নয়। আমরা বড়রা যেভাবে ফোনে আসক্ত হয়ে পড়ছি, আগামীতে শিশুরাও আরো বেশি আসক্ত হয়ে পড়ছে। বাবা-মা কর্ম ব্যস্ততার দোহাই দিয়ে সময় না দেওয়ার কারণে অথবা শখ করে ফোন কিনে দেওয়াই বা তাদের বায়না পূরণ করতে মোবাইল উপহার দেওয়া ইত্যাদি কারণে আদরের শিশুদের হাতে হাতে ফোন। বাচ্চারা ইচ্ছেমতো ঘণ্টার পর ঘণ্টা গেইম খেলছে, ভিডিও দেখছে, ফোন নিয়ে যাচ্ছেতাই ব্যবহার করছে। কমবয়সী শিশুদের হাতে ফোন দিয়ে আমরা যে বিপদ ডেকে আনছি; সেটা আজ জরুরি সমাধানের সময় এসেছে।

জিতেই চলেছেন ওয়াইসি, বাড়ছে আকাঙ্ক্ষা

জিতেই চলেছেন ওয়াইসি, বাড়ছে আকাঙ্ক্ষা

নিগ্রহ-নির্যাতনের মধ্যেও দেশটিতে মুসলমানদের সংখ্যা বাড়ছে। বাড়ছে মনোবলও। তবে এর পেছনে বর্তমানে যার ভূমিকা সবচেয়ে বেশি তিনি হলেন আসাদউদ্দিন ওয়াইসি। যিনি অল ইন্ডিয়া মজলিস-ই-ইত্তেহাদুল মুসলিমীন (এআইএমএইএম) এর প্রেসিডেন্ট এবং দেশটির হায়দ্রাবাদ নির্বাচনী আসনের নির্বাচিত সংসদ সদস্য। তাকে ঘিরে মুসলমানদের মধ্যে বাড়ছে প্রত্যাশা। তার নেতৃত্ব আগামীতে ভারতে মুসলমানদের একটি শক্ত অবস্থানে নিয়ে যাবে এই আকাঙ্খাও দিন দিন জোরালো হচ্ছে।