• ঢাকা, বাংলাদেশ
  • সোমবার, ১৭ ফেব্রুয়ারি ২০২০, ৫ ফাল্গুন ১৪২৬

মতামত

‘জয় বাংলা’ আমাদের প্রাপ্য

‘জয় বাংলা’ আমাদের প্রাপ্য

দীর্ঘকাল ধরে দুর্বলের উপর নির্যাতনের হাতিয়ার হিসেবে সিস্টেম/ব্যবস্থা ব্যবহৃত হয়ে আসছে। পতাকাবাহী (নেতৃত্ব দানকারী) খারাপ লোকেরা ভাল নামগুলিকে কলঙ্কিত করেছে। তবে রাতের আধারে, মানুষ তাদের জগতকে আগুন জ্বেলে আলোকিত করেছে। শেখ আলমগীর মামা, আপনি সেই আশার আগুন জ্বালিয়েছেন। আপনি দেখিয়েছেন যে সিস্টেম/ ব্যবস্থা কাজ করতে পারে। তাও এমন একটি সংস্কৃতির লোকেদের মধ্যে, যারা বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ দলটির উত্তরাধিকারকে কলঙ্কিত করেছিল। আপনি নিজেকে

‘এক-দুই সন্তান নীতি’ প্রত্যাশা ও প্রভাব

‘এক-দুই সন্তান নীতি’ প্রত্যাশা ও প্রভাব

চীনের one-child policy (এক সন্তান নীতি) সম্পর্কে আমরা মোটামুটি সবাই জানি। জনসংখ্যা নিয়ন্ত্রণে রাখতে চীনে ১৯৭৯ সালে এই নীতি চালু হয়। এই নীতি পৃথিবীর বৃহৎ জনসংখ্যার দেশ চীনকে বর্তমান বিশ্বের সবচেয়ে ‘লিঙ্গ ভারসাম্যহীনতা’ উপহার দিয়েছে! য়ার ফলে ২০১৫ সালে সেই নিয়ম ভেঙে দেয় চীনা সরকার।

ভারত ও এর জনগণকে অভিনন্দন

ভারত ও এর জনগণকে অভিনন্দন

১৯৪৫ সালে ব্রিটিশ ভারতে জন্মগ্রহণ করে আমি স্বয়ংক্রিয়ভাবে জাতীয়তা পরিবর্তনের মধ্য দিয়ে গেছি। প্রথমটি ছিল ১৯৪৭ সালে পাকিস্তান ও ভারতের স্বাধীনতার পর, তখন আমি একজন পূর্ব পাকিস্তানি হয়েছিলাম। দ্বিতীয়টি ১৯৭১ সালে যখন বাংলাদেশ নামক একটি স্বাধীন রাষ্ট্রে পরিণত হয়েছিল পূর্ব-পাকিস্তান।

বাবরি মসজিদ: ভারতীয় আদালতের সাম্প্রদায়িক রায়

বাবরি মসজিদ: ভারতীয় আদালতের সাম্প্রদায়িক রায়

এই বাবরি মসজিদ নিয়ে ঝামেলা বা ক্যাচাল, যেটাই বলেন, সেটা বেশ পুরনো। কিন্তু ভারতের সর্বোচ্চ আদালতে মসজিদের সাথে মন্দির নির্মাণ নিয়ে যে রায়’টা দিলো তা মোদীর সাম্প্রদায়িক মনোভাবেরই আইনি প্রকাশ হয়েছে। বলে রাখা ভালো, রাম মন্দির নির্মাণ বিজেপির নির্বাচনী অঙ্গীকারেও ছিলো। আদালতের রায়ে কিংবা আর্কিওলজিক্যাল সার্ভে অব ইন্ডিয়ার প্রতিবেদনের কোথাও বলা হয়নি, মসজিদের স্থানে রাম মন্দিরের অস্তিত্ব ছিল। আদালত তার রায়ে স্ববিরোধিতাও করেছে। যেমন রায়ে বলেছে 'যেহেতু বিশ্বাসের ওপর দাঁড়িয়ে জমির মালিকানা ঠিক করা সম্ভব নয়, তাই আইনের ভিত্তিতেই জমির মালিকানা ঠিক করা উচিত।' কিন্তু সেই মন্দির থাকার অলীক কল্পনার ভিত্তিতেই রায় দিয়ে নতুন করে রাম মন্দির নির্মাণের নির্দেশ দিয়েছে।

গাছ ও পাহাড় কেটে তৈরি হচ্ছে একের পর এক ইটভাটা

গাছ ও পাহাড় কেটে তৈরি হচ্ছে একের পর এক ইটভাটা

হবিগঞ্জের বাহুবল উপজেলার মিরপুরে এবং মৌলভীবাজার জেলার বিভিন্ন প্রান্তে ফসলি জমি ধ্বংস করে গড়ে উঠছে একের পর এক ইটভাটা। পরিবেশকে বিপর্যয়ের মুখে ফেলে এসব ইটের ভাটায় জ্বালানি হিসেবে ব্যবহার করা হচ্ছে পাহাড় থেকে কেটে আনা গাছ। আর এই কাজটি রাতের আঁধারে করে যাচ্ছে একটি চোর চক্র। ফলে উজাড় হচ্ছে পাহাড়ি বনাঞ্চল ও মূল্যবান গাছ।

তারকাদের গোপনীয়তা ও কিছু কথা

তারকাদের গোপনীয়তা ও কিছু কথা

আমাদের ছোট বেলায় তথ্যের এমন অবাধ প্রবাহ ছিল না। তাই হয়তো অনেক কাহিনি চোখে পড়ে নাই। যখন থেকে হালকা পাতলা বুঝতে শিখেছি তখন আমার কাছে সবচেয়ে আলোচিত ক্যারেক্টার ছিলে প্রিন্সেস ডায়ানার রগরগে কাহিনি।