• ঢাকা, বাংলাদেশ
  • মঙ্গলবার, ০১ ডিসেম্বর ২০২০, ১৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৭

ইতিহাস

হিরু অনোদা: হার না মানা এক জাপানি সৈনিকের গল্প

হিরু অনোদা: হার না মানা এক জাপানি সৈনিকের গল্প

দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ শেষ হয়েছে ৬ যুগ আগে। কাগজে কলমে দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পরিসমাপ্তি ঘটলেও পরবর্তি ৩০ বছর গেরিলা যুদ্ধ চালিয়ে গেছেন এক জাপানি। তাঁর নাম হিরু অনোদা। হিরোশিমা ও নাগাসাকিতে যুক্তরাষ্ট্রের পারমানবিক বোমা হামলার পর ২য় বিশ্বযুদ্ধে জাপানের আত্মসমর্পণ যখন প্রায় নিশ্চিত। তখনও প্রায় ৩,৬০০ জাপানি সৈনিক দেশটির রাজা হিরোহিতোর ঘোষণা মেনে নিয়ে যুদ্ধ থেকে ফিরে আসেননি। ধারণা করা হয়, এদের বেশির ভাগই বিশ্বাস

১৯১৮ সালের ফ্লু মহামারির দ্বিতীয় তরঙ্গ ছিল সব থেকে ভয়ঙ্কর

১৯১৮ সালের ফ্লু মহামারির দ্বিতীয় তরঙ্গ ছিল সব থেকে ভয়ঙ্কর

১৯১৮ সালের ফ্লু মহামারীর দ্বিতীয় তরঙ্গ বা সেকেন্ড ওয়েভের ফলে লাখ লাখ মানুষ মারা গিয়েছিল। কারণ ভাইরাস এবং শ্বাসকষ্টজনিত রোগ কিভাবে ছড়ায় তা আমরা জানলেও সে সময়ের লোকেরা সেটি জানতেন না।

নিজের স্তন কেটে প্রতিবাদ করেছিলেন যে নারী

নিজের স্তন কেটে প্রতিবাদ করেছিলেন যে নারী

কোন দলিত মাহিলা যদি তার স্তন আবৃত রাখতে চাইতেন তাহলে তাকে উচ্চমাত্রায় কর দিতে বাধ্য করা হতো। এমনকি কর সংগ্রাহকেরা স্তনের আকার বিবেচনা পূর্বক করের পরিমাণ নির্ধারণ করতেন। এটি ইতিহাসে স্তনকর বা ব্রেস্ট ট্যাক্স নামে পরিচিত।

দায়িত্ব পালনের সময় আমেরিকার যেসব রাষ্ট্রপতি গুরুতর অসুস্থ হয়ে পড়েছিলেন

দায়িত্ব পালনের সময় আমেরিকার যেসব রাষ্ট্রপতি গুরুতর অসুস্থ হয়ে পড়েছিলেন

আমেরিকার সবচেয়ে বেশি সময়ের রাষ্ট্রপতি ফ্রাঙ্কলিন ডেলানো রুজভেল্ট পোলিওতে আক্রান্ত ছিলেন। রোগটি তীব্র আকার ধারণ করলেও তিনি তা আমেরিকান জনগণের কাছ থেকে লুকিয়ে রেখেছিলেন, তার আশঙ্কা ছিল এটি প্রকাশ হয়ে গেলে জনগণ তাকে দুর্বল মনে করতে পারে।

মিশরের প্রাচীন কবরস্থানে আড়াই হাজার বছর পুরোনো ২৭টি কফিনের সন্ধান   

মিশরের প্রাচীন কবরস্থানে আড়াই হাজার বছর পুরোনো ২৭টি কফিনের সন্ধান  

২৫০০ বছর ভূগর্ভস্থ থাকা সত্ত্বেও বেশকিছু কফিনের গায়ে করা নকশার রং এখনো অপরিবর্তিত রয়েছে । একই স্থান থেকে ছোট-বড় অনেক প্রত্নততাত্তিক সামগ্রীও পাওয়া গেছে।

হিটলারের পরমাণু বিজ্ঞানীদের ধরতে পরিচালিত হয় যে গোপন মিশন

হিটলারের পরমাণু বিজ্ঞানীদের ধরতে পরিচালিত হয় যে গোপন মিশন

১৯৩৮ সালে, জার্মান বিজ্ঞানীরা পারমাণবিক রি-অ্যাকটর তৈরি করতে সক্ষম হয়েছিলেন। ইউরেনিয়ামের মজুদ জোগাড় করে পারমাণবিক অস্ত্র তৈরির জন্য কোয়ান্টাম পদার্থবিদ ওয়ার্নার কার্ল হেইসেনবার্গের নেতৃত্বে গঠন করা হয়েছিল একটি বিশেষ বৈজ্ঞানিক ইউনিট।